চট্টগ্রাম শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ | ২:৩৬ পূর্বাহ্ন

স্পোর্টস ডেস্ক

ভারতকে মোকাবেলায় প্রস্তুত বাংলাদেশ

আজ কলকাতায় বাংলাদেশ-ভারত বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচ। প্রতিবেশী দুই দেশের খেলা, সেটা ক্রিকেট হোক কিংবা ফুটবল- উন্মাদনা এমনিতেই তৈরি হবে। তার ওপর, কলকাতা হচ্ছে ফুটবলের শহর। সেখানে যুব ভারতীতে প্রায় ৯ বছর পর খেলতে নামছে ভারতীয় জাতীয় দল। এই মাঠে স্বাগতিকরা বাংলাদেশের মুখোমুখি হচ্ছে ৩৪ বছর পর। ক্রিকেট ছাপিয়ে ফুটবল উন্মাদনা যেন পুরো কলকাতা শহরকে গ্রাস করে রেখেছে। র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ-ভারতের অবস্থান যাই থাকুক না কেন, দু’দলের মধ্যেই এখন যুদ্ধংদেহী ভাব।

ভারতের বিপক্ষে লড়ার জন্য তিনদিন আগেই কলকাতা গিয়ে পৌঁছে যান বাংলাদেশ দলের ফুটবলাররা। ইংলিশ কোচ জেমি ডে কলকাতায় গিয়ে ঘাঁটি গেঁড়েছেন ভারতীয় দলের আগমণের দু’দিন আগেই। যে কারণে সল্টলেকের যুব ভারতীতে সুনিল ছেত্রীদের আগেই শিষ্যদের নিয়ে অনুশীলনে নেমে পড়তে পেরেছেন বাংলাদেশ দলের কোচ। আজ মাঠে নামার আগে দলের গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানা বলেন, ‘ভারতের জন্য আমরা তৈরি রয়েছি। অতীতে কি হয়েছে ভুলে যান। মঙ্গলবার (আজ) কিন্তু একটা নতুন নব্বই মিনিটের ম্যাচ। সেখানে যাদের পরিকল্পনা কাজ করবে, তারাই জিতে ফিরতে পারবে।’

ঘরের মাঠে নিশ্চিত ভয়ঙ্কর থাকবেন ভারতীয় ফুটবলাররা। তাদের আক্রমণ ঠেকানোর পরিকল্পনা সর্ম্পকে গোলরক্ষক রানা বললেন, ‘বক্সের আশেপাশে সুনিল ভয়ঙ্কর। ওর কোনাকুনি সব শট, ফ্রি-কিক, পুরনো ম্যুভ গত দু-দিন ধরে হোটেলের রুমে বসে মন দিয়ে দেখেছি। কোচ আগের রাতে একই সঙ্গে কাতারের বিরুদ্ধে আমাদের খেলার ভুলভ্রান্তি ছিল- সেগুলো নিয়ে ভিডিও ক্লাস করিয়েছেন।’

ভারতীয়দের ভিডিও নিয়ে বিশ্লেষণ করা হয়েছে বলেও জানান রানা। তিনি বলেন, ‘কিভাবে সুনিলদের বোতলবন্দি করতে হবে সে সংক্রান্ত বেশ কিছু তথ্যও কোচ দিয়েছেন চার ডিফেন্ডারসহ আমাকে। আমরা তৈরি সুনিল-উদান্তদের জন্য।’ কলকাতার যুব ভারতীতে ভারতীয় ফুটবলারদের আটকানোর লক্ষ্যেই মূলতঃ প্রস্তুতি নিয়েছে বাংলাদেশ দলের ফুটবলাররা। অর্থ্যাৎ, রক্ষণকে জমাট করে রাখার কৌশলই নিচ্ছেন জেমি ডে।

গতকাল দেড় ঘণ্টার বাংলাদেশ অনুশীলনে জোর দেওয়া হয়েছে মূলতঃ রক্ষণ জোরদার করার দিকেই। ভারতীয় ফরোয়ার্ডদের আক্রমণের সময় বাংলাদেশ মিডফিল্ডার ও ডিফেন্ডাররা কোথায় তাদেরকে ‘ব্লক’ করবেন, কে কাকে ‘কভার’ দেবেন, এসবই ইয়াসিনদের হাতে ধরে দেখাচ্ছিলেন বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে। পাশাপাশি আক্রমণে ওঠার সময় রক্ষণ ও মাঝমাঠ কতটা ও কিভাবে উঠবে, সেই মহড়াও হয়েছে প্রায় ২০ মিনিট। শেষ মুহূর্তে হল প্রতিপক্ষের কর্নার, ফ্রি-কিকের সময়ে বল বিপদমুক্ত করার প্রস্তুতি।

বাংলাদেশ দলের সহকারী কোচ মাসুদ পারভেজ কায়সার বলে দিলেন, ‘ছেলেদের বলে দেওয়া হয়েছে, ভারতকে তাদের নিজেদের ছন্দে খেলতে দেওয়া চলবে না। মঙ্গলবার প্রথম মিনিট থেকেই তাই আমাদের কাজ হবে ওদের তালটা কেটে দেওয়া। সঙ্গে ম্যাচের দখলটাও নিতে হবে আমাদের।’ যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে শেষবার ভারতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ খেলেছিল ১৯৮৫ সালের ১২ এপ্রিল। ওই ম্যাচও ছিল বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচ। ওই ম্যাচে ২-১ জিতেছিল ভারত। ৩৪ বছর পর সেই একই মাঠে আবারও বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচ।’ ভারতকে এগিয়ে রেখে বাংলাদেশের গোলরক্ষক কোচ ববি মিমস বললেন, ‘সুনিল ছেত্রীদের ভারত আমাদের চেয়ে এগিয়ে। এটাই বরং আমাদের বাড়তি প্রেরণা জোগাচ্ছে।’

The Post Viewed By: 87 People

সম্পর্কিত পোস্ট