চট্টগ্রাম রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

সর্বশেষ:

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ২:৩০ পূর্বাহ্ণ

দেবাশীষ বড়–য়া দেবু

বৃষ্টিই বাঁচাতে পারে বাংলাদেশকে

চট্টগ্রাম টেস্ট/ ৪র্থ দিন
আফগানিস্তান: ৩৪২ ও ২৬০
বাংলাদেশ: ২০৫ ও ৬ উই: ১৩৬

অতিমানবীয় কিছু না হলে চট্টগ্রাম টেস্টকে কোনভাবেই বাঁচানো সম্ভব নয়। ম্যাচের স্টিয়ারিং পুরোপুরি সফরকারী আফগানিস্তানের হাতে। বলা যায়, একরকম নিশ্চিত পরাজয়ের মুখোমুখি বাংলাদেশ। তবে বেরসিক বৃষ্টিও সব হিসেব-নিকেশ ওলট-পালট করে দিতে পারে। এই বৃষ্টি গতকাল টেস্টের তৃতীয় দিনে বেশ কয়েকবার হানা দিয়েছে। এই যেমন প্রায় সোয়া দুই ঘন্টার পর গতকালের খেলা মাঠে গড়িয়েছে। এরপর আরো ২ দফায় বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হয়েছে এবং শেষবার যখন বন্ধ হয় তখনো প্রায় ১৩ ওভারের মতো খেলা বাকি ছিল। এর আগেও আলোর স্বল্পতার কারণে ফ্লাডলাইটের আলো চালিয়ে খেলা চলছিলো। বৃষ্টি বিঘিœত টেস্টের ৩য় দিনে আফগানিস্তান গতকাল ২য় ইনিংসে আগের দিনের ৮ উইকেটে ২৩৭ রান নিয়ে খেলতে নামে এবং আর মাত্র ২৩ রান করে ২৬০ রানে অল-আউট হয়। এতেই বাংলাদেশের সামনে জয়ের জন্য ৩৯৮ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় আফগানরা। এই রান তাড়া করে জিততে হলে বাংলাদেশকে অসাধ্য সাধন করতে হবে, রেকর্ড গড়তে হবে। কিন্তু ইতিহাস বলছে অন্য কথা। এর আগে এত রান তাড়া করে জেতার কীর্তি নেই টাইগারদের। বাংলাদেশ এর আগে ২১৬ রান তাড়া করে জিতেছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে।

কিন্তু ৩৯৮ রানের হিমালয়সম পর্বতকে টপকাতে পদে পদে আছড়ে পড়েছে বাংলাদেশ। কোত্থেকে যে কী হয়ে গেল, তার কোন জবাব নাই। ১ম ইনিংসের ব্যাটিং ব্যর্থতার খোলস থেকে ২য় ইনিংসেও বেরিয়ে আসতে পারেনি টাইগাররা। অক্টোপাসের মতো ঘিরে ধরা ব্যর্থতা ২য় ইনিংসেও অব্যাহত ছিল। তাসের ঘরের মতো ভেঙ্গে পড়া ইনিংসে অবিশ^াস্যভাবে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৬ উইকেটে মাত্র ১৩৬ রান। আজ শেষ দিনে অবিশ্বাস্য, অভাবনীয়, অবর্ণনীয় কিছু করে দেখাতে হবে। কিন্তু বাংলাদেশের ভঙ্গুর ব্যাটিংয়ে সেই আশা কীভাবে করবেন ক্রিকেটামোদীরা। এখনো বাংলাদেশ ২৬২ রান পিছিয়ে রয়েছে। হাতে রয়েছে ৪ উইকেট। ক্রিজে রয়েছেন ৩৯ রান করা অধিনায়ক সাকিব আল হাসান এবং এখানো রানের খাতা না খোলা সৌম্য সরকার। তার আগে সাজঘরে ফিরে গেছেন লিটন দাস (৯), মোসাদ্দেক (১২), মমিনুল (৩), মাহামুদউল্লাহ (৭) ও মুশফিক (২৩)। একমাত্র সাদমান ৪১ রান করে কিছুটা দৃঢ়তা দেখান। এদিকে আজ সকাল ৯টা ৩০মিনিটে খেলা শুরু হবে বলে জানা গেছে।

৩৯৮ রানের লক্ষ্যে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে পরিবর্তন এনে সাদমান ইসলামের সাথে ১ম ইনিংসে ৩ নম্বরে ব্যাট করা লিটন দাসকে নামানো হয়। ওপেনার সৌম্যকে নিচে নামানো হয়। কিন্তু সুবিধা করতে পারেনি লিটন। দলীয় ৩০ রানেই লিটনকে হারালো বাংলাদেশ। ৯ রান করা লিটন ১ম ইনিংসে কোন উইকেট না পাওয়া জহির খানের শিকার পরিণত হন। ওপেনিংয়ের মতো ওয়ান ডাউনেও পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়। চমক দেখিয়ে নামানো হয় মোসাদ্দেক হোসেনকে। কিন্তু তিনি কোন চমক দেখাতে পারেননি। ১২ রান তুলেই নিজের উইকেট বিলিয়ে দেন। এরপর চার নম্বরে নির্ভরযোগ্য মুশফিকুর রহিম এলেও তিনিও অন্যরকম কিছু করতে পারেননি। মাত্র ২৩ রানে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

রশিদ খানের এলবির ফাঁদে পড়ে মুমিনুল হক (৩) যখন আউট হন দলের রান তখন ৮২। ১ম ইনিংসে কোন রান না করা ওপেনার সাদমান ইসলাম ২য় ইনিংসে কিছুটা দৃঢ়তা দেখালেও মোহাম্মদ নবীর বলে আউট হন। চারটি চারের সাহায্যে করেন তিনি ৪১ রান করেন। দলীয় ১০৬ রানে সাদমান ফিরে যাওয়ার পর ১২৫ রানে ফিরে যান মাহমুদউল্লাহ (৭)। এরপর আলোর স্বল্পতার কারণে ৪৫ মিনিট আগেই টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার সময়ে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৬ উইকেটে ১৩৬ রান।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 292 People

সম্পর্কিত পোস্ট