চট্টগ্রাম বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

২৫ আগস্ট, ২০১৯ | ১:৪৪ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক

তামিম-সৌম্যদের ফিল্ডিংয়ের বেসিক শেখাবেন কুক

গত বছরের জুলাইয়ে বাংলাদেশের ফিল্ডিং কোচের শূন্যস্থান পূরণ করেন রায়ান কুক। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে আছেন তিনি মাশরাফি-সাকিবদের সঙ্গে। দেশের ফিল্ডারদের উন্নতিতে নিজের সেরাটা দিয়ে যাচ্ছেন এই দক্ষিণ আফ্রিকান। বিশেষ করে ফিল্ডিংয়ের বেসিক নিয়ে কাজ করতে চান তিনি। ক্যাচ নিতে না পারা বাংলাদেশের ফিল্ডিংয়ের অন্যতম বড় আক্ষেপ বলা চলে

এই সমস্যার সমাধানে মনোযোগ দিতে চান কুক, ‘প্রত্যেক দিন আমরা উন্নতির চেষ্টা করছি। আমাদের বেসিক কিছু ভুল আছে, সেগুলো যতখানি সম্ভব কাটিয়ে উঠতে চাই। বিশ্বকাপে অনেক ভালো কয়েকটি ম্যাচ গেছে এবং কয়েকটি ভালো সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে। আমি মনে করি এটা (ক্যাচিং) এই দলে কিছুটা অসামঞ্জস্যপূর্ণ। তবে বিশ্বকাপ ও শ্রীলংকা সিরিজে আমাদের সত্যিই ভালো সুযোগ এসেছিল। ক্যাচিংটা হতে হবে সামঞ্জস্যপূর্ণ। আগামী কয়েক দিন আমরা এই জায়গায় মনোযোগ দিবো।’ ফিল্ডিংয়ের মৌলিক জায়গায় উন্নতি করতে হলে বয়সভিত্তিক দলেও মনোযোগ দিতে হবে মনে করেন কুক, ‘প্রত্যেকেই তার বর্তমান অবস্থা থেকে উন্নতি করতে পারে। যদি অনূর্ধ্ব-১৫ দলের বেসিক নিয়ে কাজ করতে হয়, তাহলে সেটাতেও হাত দিতে হবে। বয়সভিত্তিক পর্যায় থেকেই আমাদের কাজ করতে হবে।’ জাতীয় দলে এখনও ফিল্ডারদের অগ্রগতির ভালো সুযোগ দেখছেন তিনি। তার মতে, ফিল্ডিং পজিশনও ফিল্ডারদের সামর্থ্যরে ওপর ভিত্তি করে সাজাতে হবে। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের ফিল্ডিং নিয়ে কোচের মূল্যায়ন, ‘আমি বলবো ফিল্ডিংয়ে মাঝামাঝি অবস্থানে আমরা। বিশ্বকাপে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে নিজেদের যাচাই করার ভালো সুযোগ ছিল। সম্ভবত আমরা মাঝামাঝি জায়গায় আছি। সেরা তিনে আমাদের কাউকে দেখতে পারলে ভালো লাগতো। বিশ্বের শীর্ষ তিন ফিল্ডারের ভেতরে আমাদের একজনকে দেখতে অবশ্যই কাজ শুরু করতে পারি।’ এই স্বপ্ন পূরণ করতে হলে কোন জায়গা নিয়ে কাজ করতে হবে প্রশ্নে কুক বলেছেন, ‘আমাদের সবকিছুতে মনোযোগ দেওয়া দরকার।

আমাদের সুযোগগুলো সফল করতে আমরা বিশ্বকাপের সময় সত্যিই অনেক খেটেছি। কারণ সেটা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বকাপে সরাসরি হিটে অনেক রান আউট হয়েছে এবং আমরা সেটা করতে চেয়েছিলাম। অন্য দলগুলোর তুলনায় আমরা ক্যাচিংয়ে অনেক শতাংশ এগিয়ে ছিলাম।’ ব্যাটিং-বোলিংয়ের পাশাপাশি ফিল্ডিংকেও প্রাধান্য দেওয়া উচিত মনে করেন কুক। খেলোয়াড়দের মানসিকতা আরও দৃঢ় হওয়া প্রয়োজন, ‘আপনি চাইবেন আপনার খেলোয়াড় ভাবতে থাকুক যে ‘আমি বিশ্বের সেরা ফিল্ডার হতে চাই, বাংলাদেশের হলেও কম না।’ আর সেটা করতে হবে বয়সভিত্তিক পর্যায় থেকে। এই জায়গাটা নিয়ে আমরা কাজ করতে পারি।’ ভালো ফিল্ডিংয়ের জন্য ফিটনেস জরুরি বললেন এই দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ, ‘অবশ্যই, ফিল্ডিং আর ফিটনেস একে অন্যের পরিপূরক। আমরা আগেও এনিয়ে কথা বলেছি। কয়েকটি দলের খেলোয়াড়রা অনেক লম্বা থ্রো করতে পারে।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কাজ করায় আমি দেখেছি তাদের কাছে থ্রোয়িং খুব গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি অনূর্ধ্ব-৯ দলেও এই কৌশলটা শেখায়। এজন্যই আপনার দলের ১১ জন খেলোয়াড়ের কাছ থেকে চাইবেন, তারা যে কোনও পজিশন থেকে দ্রুত ও শক্তিশালী থ্রোয়ে বল পাঠাচ্ছে। আমরা সেই পর্যায়ে নেই। ওই অবস্থায় পৌঁছানোটা নিশ্চিত করতে হবে আমাদের।’ কোচ হিসেবে বাংলাদেশের ফিল্ডিংকে কত নম্বর দিবেন, এই প্রশ্নে কুক বললেন, ‘খেলার বিভিন্ন ফরম্যাট অনুযায়ী এটা আমাদের মূল্যায়ন করতে হবে। টি-টোয়েন্টিতে এই মুহূর্তে আমরা সম্ভবত দশে সাড়ে ৬ পাবো। ওয়ানডেতে সাড়ে ৭ এবং টেস্টে ৭। উন্নতির অনেক জায়গা আছে। কিন্তু এমন কিছু জায়গা আছে যেগুলোতে আমরা ভালোও করছি।’

The Post Viewed By: 71 People

সম্পর্কিত পোস্ট