চট্টগ্রাম শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর, ২০২২

৮ অক্টোবর, ২০২২ | ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব ক্রীড়া প্রতিবেদক

ইতিহাস পাল্টাতে পারবে ফ্রান্স ?

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসাবে খেলতে নেমে একবারই বিশ্বকাপ ট্রফি নিজেদের কাছে রাখার ঘটনা ঘটেছিল। পেলে’র ব্রাজিল ১৯৫৮ সালে বিশ্বজয়ের পরের আসরে আবারও ট্রফিটি নিজেদের কাছে রেখে দেয়, ১৯৬২ সালে। এর আগে বা পরে কোন দেশই এ কাজ দ্বিতীয়বার করতে পারেনি। সে কারণে ২০১৮’র বিশ্বসেরা ফ্রান্সের কাছে কাতার মিশনটা চ্যালেঞ্জ জয়ের, ইতিহাস পাল্টানোর। দিদিয়ের দেশমের দল সেটা পারবে কিনা তা সময়ই বলে দেবে। চলমান সময়ে দলটির মাঠের পারফরম্যান্সে কিছুটা ছন্দপতনে ফেভারিটদের তালিকা থেকেও কিছুটা পিছিয়ে পড়েছে।

বিশ্ব সেরার অভিযানে কোচ দেশমের সবচেয়ে বড় দুই হাতিয়ার হলেন করিম বেনজেমা ও কিলিয়ান এমবাপে। তাদের সঙ্গে আক্রমণভাগের আরও দুই বড় নাম আঁতোয়ান গ্রিজমান ও উসমান দেম্বেলে। মাঝমাঠে এনগোলো কঁতে। রাশিয়া বিশ্বকাপ জয়ের আরেক তারকা পল পগবা হতে পারতেন দেশমের তরুপের তাস। কিন্তু ইনজুরির কাছে হেরে গেছেন তিনি। পগবা না থাকলেও তরুণ কিন্তু দারুণ কার্যকর কিছু খেলোয়াড় আছে দেশমের শিবিরে।

রিয়াল মাদ্রিদের অহেলিয়া চুয়ামেনি, লিপজিগের ক্রিস্টোফার এনকুনকু, আর্সেনালের উইলিয়াম সালিবা ও বার্সেলোনার জুল কুন্দে। ভক্তদের প্রত্যাশা, শক্তিশালী দল নিয়ে ফ্রান্সের গ্রুপ পর্ব পেরিয়ে যাওয়া হয়তো কঠিন হবে না। প্রতিপক্ষ তিউনিসিয়া শক্তি কিংবা অভিজ্ঞতা- দুইয়ের বিচারেই ফ্রান্সের চেয়ে অনেক পিছিয়ে।

 

এর আগে মাত্র পাঁচবার বিশ্বকাপ খেলেছে আফ্রিকার দলটি, যেখানে ফরাসিরা খেলেছে ১৫বার, সঙ্গে জিতেছে দুটি শিরোপা। আরেক প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া টানা চারবার সহ মোট পাঁচবার বিশ্বকাপ খেলেছে। রাশিয়া বিশ্বকাপে তাদের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে জিতেই বিশ্ব জয়ের পথে অভিযান শুরু করেছিল ফ্রান্স।

‘ডি’ গ্রুপে সবচেয়ে বড় পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে ডেনমার্কের বিপক্ষে। ডেনিশদের বিপক্ষে এবারের নেশন্স লিগে দুইবারের দেখায় দু’বারই হেরেছে এমবাপেরা। এমবাপে, বেনজেমাদের নৈপুন্যে এবার দ্বিতীয়বারের মতো হয়তো পাল্টাতে পারে ইতিহাস।

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট