চট্টগ্রাম শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯

১১ অগাস্ট, ২০১৯ | ১:২৫ পূর্বাহ্ন

কলকাতার তিন বড় ক্লাব নিয়েই চট্টগ্রামে শেখ কামাল টুর্নামেন্ট

আবারো দরজায় কড়া নাড়ছে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট। চলতি বছরের অক্টোবর মাসেই এ টুর্নামেন্টের ৩য় আসর বসতে যাচ্ছে চট্টগ্রামে। সবগুলো খেলাই এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। এবারের টুর্নামেন্টে কলকাতার বড় ৩টি ক্লাবের মধ্যে প্রথমবারের মতো অংশ নিতে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী এবং ভারতের সবচেয়ে পুরানো ফুটবল ক্লাব মোহনবাগান। ১৮৮৯ সালে ক্লাবটি প্রতিষ্ঠিত হয়। এর ঠিক দু-বছর পর কলকাতা মোহামেডান এবং তারও ২৯ বছর পর আরেক ঐতিহ্যবাহী শতবর্ষীয় ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের জন্ম। মোহামেডানের অনেক পরে প্রতিষ্ঠা পেলেও চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দল হিসেবে এখন কলকাতার সেরা দু-দল হচ্ছে মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল। চট্টগ্রামের ফুটবল প্রিয় দর্শকরা কি উপভোগ করতে পারবে আরো একটা মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল দৈরথ। তবে, এটা হতেও পারে, নাও হতে পারে। কেননা লটারিতে কে কোথায় পরে তার কোন ইয়াত্তা নাই। তবে এক গ্রুপে পড়লেই সে দৈরথটা উপভোগ করা যাবে। এখানে আরো কথা আছে, দলগুলো কী তাদের মুল একাদশের খেলোয়াড় নিয়েই এ টুর্নামেন্টে আসছে ? প্রথমবার কিন্তু আসেনি। আয়োজক সুত্রে জানা গেছে, এবারে তারা মুল দল নিয়ে খেলতে আসবে। এর আগে ২০১৫ সালে চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত এ টুর্নামেন্টে কলকাতার ইস্টবেঙ্গল ও মোহামেডান দল অংশ নিয়েছিল। সেবার মোহামেডান খুব একটা ভাল করতে না পারলেও রানার্স আপ হয়েছিলো ইস্টবেঙ্গল। মোহামেডান গ্রুপ পর্বের ম্যাচে একটি জয়ও পায়নি। ৩টি ম্যাচের মধ্যে ২টিতে হেরে, ১টিতে ড্র করেছিলো। অন্যদিকে ইস্টবেঙ্গল গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই সেমিতে ওঠে এবং সেখানেও জিতে ফাইনালে স্বাগতিক চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছে ১-৩ গোলে হেরে যায়। অথচ গ্রুপ পর্বের খেলায় ইস্টবেঙ্গল ২-১ গোলে চট্টগ্রাম আবাহনীকে হারিয়েছিলো। এদিকে কলকাতার তিন প্রধানের কথা যতই বলি না কেন, এবারের টুর্নামেন্টের মুল আকর্ষণ হতে পারে বি-লিগ চ্যাম্পিয়ন নতুন সেনসেশন বাংলাদেশের বসুন্ধরা কিংস। দল গঠন থেকে শুরু করে সবমিলিয়ে ১১ কোটি টাকা ব্যায়ে প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েই দেশের সেরা ফুটবল আসরে (বি-লিগ) চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। এছাড়া দলটি রাশিয়া বিশ^কাপে কোস্টারিকা দেশের হয়ে অংশ নেয়া কলিনড্রেসকে বাংলাদেশের বি-লিগে খেলিয়ে চমক দেখিয়েছে বসুন্ধরা কিংস। আরো চমকের অপেক্ষায় দিনগুনছে চট্টগ্রামের ফুটবলপ্রিয় দর্শকরা। বসুন্ধরা কিংসের পাশাপাশি বি-লিগ রানার্স আপ ঢাকা আবাহনী লিমিটেডও এ টুর্নামেন্টে অংশ নেবে। দলটি এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ২টি আসরের ২টিতেই অংশ নেয়। কিন্তু দু-বারই গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে। দু-বারই ৩টি করে ম্যাচে অংশ নিয়ে ১ জয়, ১ হার ও ১ ড্র নিয়ে নামের প্রতি অবিচার করেছে। সুতরাং তারাও চাইবে এবারের শিরোপাটা নিজেদের করে নিতে। এদিকে এএফসি কাপের দ্বিতীয় পর্বে খেলার জন্য দলের শক্তি আরো বাড়িয়েছে ঢাকা আবাহনী। আফগান ডিফেন্ডার মাসিহ সাইঘানি’র পরিবর্তে মিশর থেকে উড়িয়ে এনেছে আলা আলদিন নাছিরকে। সাথে এসেছেন দক্ষিণ কোরিয়ান মিডফিল্ডার লি তাইমিন। সাইঘানি গেছেন চেন্নাই এফসি’র হয়ে ভারতের আই লিগে খেলতে। এ টুর্নামেন্টের প্রথম চ্যাম্পিয়ন চট্টগ্রাম আবাহনীও খেলবে এবারের আসরে। প্রথম আসরে কলকাতার সেরা দল ইস্টবেঙ্গলকে ৩-১ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় চট্টগ্রাম আবাহনী। ২য় আসরেও একই ধারাবাহিকতায় এগিয়ে যাচ্ছিলো। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালেও ওঠে। কিন্তু সেখানে শক্তিশালী দক্ষিণ কোরিয়ার দল এফসি পোচন নামীয় দলের সাথে ১-২ গোলে হেরে যায়। উল্লেখ্য বাংলাদেশের বসুন্ধরা কিংস, ঢাকা ও চট্টগ্রামের দুই আবাহনী এবং ভারতের মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল ও মোহামেডানসহ ৬টি দলের এ টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ প্রায় নিশ্চিত। বাকি আরো ২টি ক্লাবের জন্য থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালদ্বীপ, নেপাল ও কম্বোডিয়ার মধ্য থেকে আনার চেষ্টা চলছে।

The Post Viewed By: 290 People

সম্পর্কিত পোস্ট