চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

২৯ জুলাই, ২০১৯ | ১:২৬ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

বিব্রতকর রেকর্ডে দেশ সেরা ওপেনার

হলো কি তামিমের…!

বোলারের নাম কখনো ইশুরু উদানা, কখনো লাসিথ মালিঙ্গা কিংবা শাহিন শাহ আফ্রিদি। তামিম ইকবালের নিয়তি যেন একই। গত ছয় ওয়ানডেতে টানা বোল্ড আউট হয়ে ফিরতে হয়েছে তাকে। এরমধ্যে মালিঙ্গার দারুণ ইয়র্কারে ভূপাতিত হয়ে স্টাম্প খুইয়েছিলেন, অন্য প্রায় সববারই দায় তার। স্টাম্পে অনেকে দৃষ্টিকটু ভাবে আউট হয়েছেন একাধিকবার। এই ম্যাচে বোল্ড হয়ে তামিম গড়েছেন বিব্রতকর এক রেকর্ড। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি বোল্ড আউট হওয়া ব্যাটসম্যান যে তিনিই, টানা সবচেয়ে বেশি ম্যাচেও বোল্ড হওয়ার রেকর্ড হলো তার। গতকাল কলম্বোয় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৩১ বলে ১৯ রান করে উদানার বলে বোল্ড হন তামিম। অফ স্টাম্পের অনেক বাইরের বল টেনে নিয়ে আসেন তিনি। এই নিয়ে আন্তর্জাতিক একদিনের ম্যাচে ৩১ বার বোল্ড হলেন তামিম। ছাড়িয়ে গেলেন দ্বিতীয় স্থানে থাকা মাশরাফি বিন মর্তুজা আর সাকিব আল হাসানকে। তারা দু’জনেই ৩০ বার করে বোল্ড হয়েছিলেন। বোল্ড হতেই পারেন। তবে তার বোল্ড হওয়ার ধরণ বলে দিচ্ছে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতিতে ভুগছেন দেশ সেরা এই ওপেনার।
ডবশ^কাপে তামিমের ব্যাট হাসে না, এবারও হাসেনি। ৮ ইনিংস খেলে ১ ফিফটিতে তিনি করতে পেরেছেন মাত্র ২৩৫ রান। শুধু বিশ্বকাপই নয়, তামিম ইকবালের ব্যাট কথা বলছে না ঠিক এক বছর ধরে। আজ থেকে ঠিক ৩৬৬ দিন আগে, ২৮ জুলাই ২০১৮’তে ওয়ানডে ক্রিকেটে নিজের সবশেষ সেঞ্চুরিটি করেছিলেন তামিম। তার ১২৪ বলে খেলা ১০৩ রানের ইনিংসে ভর করেই সেদিন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১৮ রানের জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। একইসঙ্গে সিরিজ জিতেছিল ২-১ ব্যবধানে। এরপর আরও ২০ ইনিংসে ব্যাট করে একবারের জন্যও তিন অঙ্কে যেতে পারেননি টাইগারদের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক। এ সময়ে তার ব্যাট থেকে এসেছে ৫টি ফিফটি, সর্বোচ্চ সংগ্রহ ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ৮১ রানের অপরাজিত ইনিংস। এ ২০ ইনিংসের মধ্যে ২ বার ফিরেছেন শূন্য রানে ও ৬ বার থেমেছেন দুই অঙ্কে যাওয়ার আগেই। মাত্র ৩১.৪৪ গড় ও ৭৩.৬০ স্ট্রাইকরেটে তামিমের সর্বমোট সংগ্রহ ৫৬৬ রান।
গত ৩৬৬ দিনে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন মুশফিকুর রহিম। তামিমের সবশেষ সেঞ্চুরির পর থেকে, ওয়ানডে ক্রিকেটে তার চেয়ে বেশি রান করেছেন দলের দুই তরুণ ওপেনার কাম টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার (৬৮১) এবং লিটন দাস (৬০৩)। দু’জনেরই রয়েছে ১টি করে সেঞ্চুরি। ২০১৫ বিশ্বকাপের পর থেকে গতবছরের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ পর্যন্ত তামিম একাই ছিলেন সর্বেসর্বা। এসময় ৪০ ইনিংসে ব্যাট করে ১৪টি ফিফটির সঙ্গে ৭টি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন তিনি। স্ট্রাইকরেট খানিক কম (৭৯.৬৭) হলেও ৬২.২৮ গড়ে সর্বমোট করেছিলেন ২১৮০ রান। কিন্তু গতবছরের ২৮ জুলাইয়ের পর থেকেই বড্ড বিবর্ণ তামিম। এর আগের তিন বছরে যিনি খেলেছেন ৬২ গড়ে, সেই তামিমই গত এক বছর ধরে রান করছেন প্রায় অর্ধেক মাত্র ৩১ গড়ে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 336 People