চট্টগ্রাম বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১

সর্বশেষ:

২২ জুলাই, ২০২১ | ৮:২৯ অপরাহ্ণ

হুমায়ুন কবির কিরণ

টি-টোয়েন্টির ‘সেঞ্চুরি’ ম্যাচ জয়ে রাঙালো বাংলাদেশ

‘সেঞ্চুরি’ ম্যাচে জয়ের ধারা অব্যাহত রাখলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। টেস্ট ও ওয়ানডের শততম ম্যাচে জয়ে রাঙানোর পর বাংলাদেশ দল এবার নিজেদের শততম টি-টোয়েন্টি ম্যাচেও জয় পেলো। ২২ জুলাই বৃহস্পতিবার জিম্বাবুয়ের হারারে স্পোর্ট ক্লাব মাঠে স্বাগতিকদের ৮ উইকেটে হারিয়ে এই কৃতিত্ব অর্জণ করেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। বাংলাদেশ দলের অন্যতম অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মাহমুদউল্লাহ টেস্ট ও ওয়ানডের শততম ম্যাচে একাদশে ছিলেন না। তাই শততম ম্যাচ জয়ের তৃপ্তি অবশেষে তিনি পেলেন ধুম-ধাড়াক্কা ফরম্যাটে এসে। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকাল ৪.৩০টায় শুরু হওয়া ম্যাচে আগে ব্যাট করে জিম্বাবুয়ে নির্ধারিত কুড়ি ওভারের চাইতে এক ওভার কম খেলে সবক’টি উইকেট হারিয়ে ১৫২ রান সংগ্রহ করে। জবাব দিতে নেমে বাংলাদেশ দল ৭ বল হাতে রেখেই ২ উইকেটে টার্গেট পেরিয়ে ১৫৩ রান তুলে নেয়। সুবাদে ৩ ম্যাচের সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেলো টাইগাররা। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটি ২৩ জুলাই শুক্রবার বিকাল ৪.৩০টায় শুরু হবে।

হারারেতে জিম্বাবুয়ের ১৫২ রান পেরুনোর টার্গেট নিয়ে খেলতে নামা বাংলাদেশ ওপেনিং জুটিতেই তুলে নেয় ১০২ রান। দলের জয় তখনই নিশ্চিত হয়ে যায়। ১৪তম ওভারের প্রথম বলে দুর্দান্ত খেলা সৌম্য সরকার অর্ধশতকে পৌছেই সাজঘরে ফিরেন। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১২ বলে ১৫ রান করে ফিরলেও দলের কোন বিপদ হতে দেননি ওপেনিং জুটিতে সৌম্যের সাথে দারুণ ব্যাটিং করা মোহাম্মদ নাইম। ৫১ বলে ৬৩ রান করে দলকে জিতিয়ে নুরুল হাসান সোহানের সাথে মাঠ ছাড়েন নাইম। সোহান ৮ বলে ১৬ রানে অপরাজিত ছিলেন।

প্রথম টি টোয়েন্টিতে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই চাপে পড়ে স্বাগতিকরা। নিজের প্রথম ওভারেই উইকেট তুলে নেন কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে ওয়েসলি মাধেভেরে ও রেজিস চাকাভা যোগ করেন ৬৪ রান। মাধেভেরেকে ফিরতি ক্যাচে আউট করেন সাকিব আল হাসান। ১১তম ওভারে দুই ব্যাটসম্যানকে হারায় জিম্বাবুয়ে। চাকাভা ব্যক্তিগত ৪৩ রানে রান আউট হন নুরুল হাসান সোহানের দারুণ থ্রোতে। একই ওভারে জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক সিকান্দার রাজাকে উইকেটের পেছনে সোহানের ক্যাচ বানান শরিফুল ইসলাম। বল হাতে সফল ছিলেন সৌম্য সরকারও।

এই পেসার এলবিডব্লিউ করে আউট করেন তারিসাই মুসাকান্দাকে। এরপরের ওভারে শরিফুল আউট করেন ৩৫ রান করা ডিওন মেয়ার্সকে। পরে দারুণ খেলতে থাকা লুইস জংউইকে ইয়র্কারে পরাস্ত করেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। সাইফউদ্দিনের বলেই লং অনে দারুণ এক ডাইভিং ক্যাচে নিয়েছেন শামীম হোসেন পাটোয়ারি। আর তাতেই বার্লের ইনিংস থামে ৪ রানে। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। ১৯তম ওভারে রিচার্ড এনগারাভা ও ব্লেজিং মুজারাবানিকে ফিরিয়ে জিম্বাবুয়ের ইনিংস গুটিয়ে দেন মুস্তাফিজ। বল হাতে ফিজ ৩১ রানে ৩টি, সাইফউদ্দিন ও শরিফুল ২টি করে উইকেট লাভ করেন।

পূর্বকোণ/আরআর/পারভেজ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 260 People