চট্টগ্রাম বুধবার, ০৪ আগস্ট, ২০২১

সর্বশেষ:

২০ জুলাই, ২০২১ | ৯:৩১ অপরাহ্ণ

হুমায়ুন কবির কিরণ

জিম্বাবুয়েকে ধবল ধোলাই করলো বাংলাদেশ

তামিমের শতকের পর সোহান-আফিফে জিম্বাবুয়েকে ধবলধোলাই করল বাংলাদেশ হুমায়ুন কবির কিরণ জিম্বাবুয়েকে ধবল ধোলাই করেছে বাংলাদেশ দল। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে আগেই সিরিজ নিশ্চিত করা বাংলাদেশ ২০ জুলাই মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় বেলা ১.৩০টায় শুরু হওয়া তৃতীয় ওয়ানডেতে স্বাগতিকদের ৫ উইকেটে হারিয়ে ৩-০ তে সিরিজ জিতে নিয়েছে।
ম্যাচে জিম্বাবুয়ের করা ২৯৮ রানের বড় স্কোরের জবাবে তামিম ইকবালের অনবদ্য শতকের সাথে সাকিব আল হাসান ও মোহাম্মদ মিথুনের ৩০, আফিফ হোসেন ধ্রুব’র অপরাজিত ২৬ ও দীর্ঘদিন পর সুযোগ পাওয়া নুরুল হাসানের হার না মানা ৪৫ রানের ওপর ভর করে ১২ বল হাতে রেখেই ৩০২ রান তুলে নেয় বাংলাদেশ, ৫ উইকেট হারিয়ে। এই জয়ে এক যুগ পর বিদেশের মাটিতে কোনো ওয়ানডে সিরিজে প্রতিপক্ষকে ধবলধোলাই করল টাইগাররা। সর্বশেষ ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তাদের মাটিতে ধবলধোলাই করেছিল সাকিব আল হাসানের বাংলাদেশ। তাছাড়া জিম্বাবুয়েকে ষষ্ঠবারের মতো ধবলধোলাই করে সব মিলিয়ে ১৫ বার এই আনন্দ উপভোগ করলো বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ে ছাড়াও নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও কেনিয়াকে দু’বার করে এবং পাকিস্তান, স্কটল্যান্ড এবং আয়ারল্যান্ডকে একবার করে ধবলধোলাই করেছে টাইগাররা। সিরিজে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল পূর্ণ ৩০ পয়েন্ট। শেষ ওয়ানডেতে জয় নিয়ে সেই লক্ষ্য শতভাগ পূর্ণ করেছে তামিম কোম্পানি। আইসিসি বিশ্বকাপ সুপার লিগের পয়েন্ট তালিকায় ৮০ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে বাংলাদেশ। খেলেছে ১২টি ম্যাচ। পক্ষান্তরে ১৫ ম্যাচ খেলে ইংল্যান্ড ৯৫ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে। জিম্বাবুয়ে ৬ ম্যাচ খেলে ১০ পয়েন্ট নিয়ে সবার নিচে। বাংলাদেশের জয়ের সুখকর দিনে দু:খের সংবাদ হলো হাটুর ইনজুরির কারণে আগামী দু’মাসের জন্য ক্রিকেট থেকে ছিটকে পড়েছেন তামিম ইকবাল।
তৃতীয় ওয়ানডে চলাকালীন সময়েই ক্রিকইনফোতে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর বক্তব্যের সূত্রে এই তথ্য পাওয়া যায়। আশা করা হচ্ছে টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শতভাগ ফিট তামিম ইকবালের সার্ভিস পাবে দল। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে বিরুদ্ধ কন্ডিশনে সাদা পোশাকে অনায়াস জয়ের পর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজেও সাবলিল জয় কুড়িয়ে নিলো টাইগাররা। শেষ ওয়ানডেতে প্রতিপক্ষের ২৯৮ রান তাড়া করে শেষ হাসিটা ছিল চ্যালেঞ্জের। তাতে ইনজুরি নিয়েও তামিম ইকবাল যেমন হেসেছেন তেমনি রান পেয়েছেন মোহাম্মদ মিথুনও। যদিও তিনি করেছেন মাত্র ৩০ রান। তবুও আগের চার ইনিংসের ব্যর্থতা ভুলে তার এই ইনিংস মিথুনকে সামনে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে। বিশেষভাবে উল্লেখ করতে হয় নুরুল হাসান সোহানের কথা। উইকেটকিপার এই ব্যাটসম্যান জাতীয় দলের জার্সি গায়ে সর্বশেষ খেলেছিলেন ২০১৬ সালে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে। সে ম্যাচে ৪৪ করার পর দল থেকে ছিটকে পড়ে ২০ জুলাই মঙ্গলবার খেললেন ক্যারিয়ার সেরা অপরাজিত ৪৫ রানের ইনিংস। তার এই রান দলের জয়ে বড় ভুমিকা রাখে। দুর্দান্ত খেলেন আফিফও।
এছাড়া নিয়মিত কিপার লিটন দাস একাদশে থাকা সত্ত্বেও গতকাল উইকেটে পিছনেও দাড়িয়েছিলন সোহান। ম্যাচে বাংলাদেশের জয়ের পথে তামিম ইকবাল ৯৭ বলে করেন ১১২ রান। অধিনায়কত্বে প্রথম সেঞ্চুরি হলেও ক্যারিয়ারে এটা ছিল তার ১৪তম। প্রথম ম্যাচে লিটন দাস, দ্বিতীয় ম্যাচে সাকিব আল হাসান ও শেষ ওয়ানডেতে তামিম ইকবাল, টপ অর্ডারের এই ত্রয়ীর ওপর ভর করেই সিরিজে প্রতিপক্ষকে ধবল ধোলাই করলো বাংলাদেশ। শেষ ওয়ানডেতে লিটন দাস ৩২, সাকিব আল হাসান ৩০ রান করেন। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ শূন্যতেই সাজঘরে ফিরেন। দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে ম্যাচসেরা হয়েছেন তামিম। আর ব্যাট-বলে হাতে আলো ছড়িয়ে সিরিজসেরা পুরস্কার জিতেছেন সাকিব। মুস্তাফিজুর রহমান ফেরায় আগের ম্যাচের সফল পেসার শরিফুল একাদশে ছিলেন না। আর মেহেদী মিরাজের চোটের জন্য নুরুল হাসান সোহান সুযোগ পান। জিম্বাবুয়েকে পথ দেখিয়েছিলেন রেজিস চাকাভা।
আগের ম্যাচগুলোর মতো ব্যাট করেছেন দারুণ। ব্রেন্ডন টেইলর ও ডিওন মায়ার্সকে নিয়ে দুইটি জুটিতে এগিয়ে নিয়েছেন জিম্বাবুয়েকে। সেঞ্চুরির আশা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত আউট হয়েছেন ৮৪ রানে। তবে জিম্বাবুয়ের রান ২৯৯ হয়েছে মূলত শেষ দিকের ব্যাটিংয়ে। সিকান্দার রাজা ও রায়ান বার্লের মধ্যে সাইফ উদ্দিনের একার একটা ওভার থেকেই নিয়েছেন ২২ রান। ৫৪ বলে ৫৭ রান করেছেন রাজা, বার্ল চারটি ছয়ে ৪৩ বলে করেছেন ৫৭। ৮ ওভার বল করে ৮৭ রান দিয়েছেন সাইফউদ্দিন। ২০০তম ওয়ানডেতে নেমে শুরুতেই উইকেট পেয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। পরে পেয়েছেন আরেকটি। তবে ৩টি করে উইকেট নিয়ে সাইফউদ্দিন ও মুস্তাফিজই ছিলেন সবচেয়ে সফল।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 373 People