চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

২২ মে, ২০১৯ | ১:১২ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

মাশরাফি-সাকিবের অন্যরকম লড়াই

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের জার্সি গায়ে চড়িয়ে ঈর্ষনীয় পারফরম্যান্স সাকিব আল হাসানের। বোলিং ব্যাটিং সব দিক থেকেই দেশের অন্য সব ক্রিকেটারদের থেকে এগিয়ে তিনি। তবে এই বিশ্বকাপে বোলিংয়ে মাশরাফির সাথে লড়াইয়ে নামবেন সাকিব। যেখানে সতীর্থ হয়েও লড়বেন একে অন্যকে ছাড়িয়ে যাওয়ার জন্য। বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপে সর্বাধিক উইকেট সংগ্রাহক সাকিব। বিশ্বকাপের মঞ্চে সাকিব খেলেছেন ২১টি ম্যাচ। আর পাঁচের নিচে ইকোনমি রেট নিয়ে সাকিবের সংগ্রহ ২৩ উইকেট। বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি সাকিবই। তবে তার থেকে কম ম্যাচ খেলে সব থেকে কাছে আছেন আর এক টাইগার স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক। বিশ্বকাপে বোলারদের মধ্যে সাকিবের পরেই দ্বিতীয় সেরা পারফর্মার আব্দুর রাজ্জাকই। তবে বিশ্বকাপ দলে না থাকায় সাকিবকে টপকে যাওয়ার সম্ভবনা নেই রাজ্জাকের। দুই বিশ্বকাপে ১৫ ম্যাচে ২০ উইকেট রাজ্জাকের। কিন্তু টাইগার দলপতি মাশরাফির আছে সাকিবের সাথে টক্কর দেওয়ার সম্ভবনা। টাইগার দলপতি এর আগে তিন বিশ্বকাপে খেলেছেন ১৬ ম্যাচ। আর ৪.৯৪ ইকোনমি রেটে সংগ্রহ করেছেন ১৮ উইকেট। সাকিবের থেকে ৫ উইকেট পিছিয়ে থাকলেও লড়াইটা হবে জমজমাট। সাকিব বদলেছেন নিজের বোলিংয়ের ধরন। উইকেট তুলে নেওয়ার থেকে সাকিবের নজর এখন কিপটে বোলিং করে প্রতিপক্ষের রানের লাগাম টেনে ধরা দিকে। আর অন্যদিকে মাশরাফির ধরন ইকোনমিক্যাল বোলিংয়ের পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট তুলে নেওয়া। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে মাশরাফি আর সাকিবের পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ করলেই দেখা মেলে পার্থক্যের। চার ম্যাচ খেলে মাশরাফির শিকার যেখানে ৬ উইকেট সেখানে তিন ম্যাচ খেলে সাকিবের শিকার মাত্র ২টি। বিশ্বকাপের মঞ্চে তাই মাশরাফি চাইবেন সাকিবের থেকে বেশি উইকেট তুলে নিয়ে সেরা বোলার হওয়ার খেতাব সংগ্রহ করতে। মাশরাফির শেষ বিশ্বকাপ হলেও সাকিব খেলতে পারেন আরও এক বিশ্বকাপ।

শেয়ার করুন