চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০৪ মার্চ, ২০২১

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১:০১ পূর্বাহ্ণ

মো. দেলোয়ার হোসেন হ চন্দনাইশ

আখের বাম্পার ফলনে লাভবান চাষিরা

প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপকভাবে আখের চাষ করা হয়েছে। ফলন হয়েছে বেশ ভালো, দামও প্রচুর। এ কারণে আখ চাষিরা বেজায় খুশি। বিশেষজ্ঞদের মতে, আখের রস মানবদেহের শরীরে বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে সহায়ক হিসেবে কাজ করে থাকে। তাছাড়া রক্তকণিকা স্বচ্ছ করে। তাই মানুষ আখের রস মিষ্টি পানীয় ও শরীরে উপকার হিসেবে পান করে থাকে। চন্দনাইশে উৎপাদিত আখ চট্টগ্রামের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা হয়। উপজেলার শঙ্খ নদীর তীরবর্তী বৈলতলী, জাফরাবাদ, চাগাচর, সাতবাড়িয়া, হাছনদ-ী, বরমা, চর বরমা, লালুটিয়া ও পাহাড়ি এলাকা দোহাজারী, হাশিমপুর, কাঞ্চননগর বিভিন্ন এলাকায় আখের চাষ হয়ে থাকে। বিশেষ করে শঙ্খ নদীর পাড় ঘেঁষা এলাকায় আখের চাষ ভালো হয়।

চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এসব এলাকায় প্রচুর আখের চাষ হয়েছে। আখ চাষি মোবারক জানান, মাত্র ৬ মাস আগে এককানি জমিতে ৫০ হাজার টাকা খরচে আখ চাষ করেছিলাম। এখন খরচ বাদ দিয়ে তার দ্বিগুণ টাকায় চাচ্ছে ক্রেতারা। হাছনদ-ীর কৃষক আবুল কালাম বলেছেন, ৩৫ হাজার টাকা খরচ করে সে যে আখ চাষ করেছি, তা এখন ৯০ হাজার টাকায় বিক্রির অফার রয়েছে। চর বরমা এলাকার জাফর ৮০ হাজার টাকা খরচ করে আখ চাষ করেছে, তা এখন ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছে। তাই তারা এখন বেশ খুশি। তাদের মতে আখ চাষে সময় খুব বেশি লাগে না। এছাড়া তেমন কোন সারেরও প্রয়োজন হয় না। আগাছা পরিষ্কার করে বিভিন্ন প্রজাতির পোকা থেকে বাঁচিয়ে রাখতে হয় আখকে। রাত্রিবেলায় পাহারা বসাতে হয়। আখ চাষি জমির আহমদ জানান, চন্দনাইশের আখের চাহিদা সারাদেশে। কারণ এ এলাকার মাটি আখ চাষের জন্য খুবই উপযোগী। তাছাড়া এ এলাকার আখের রস খুবই সুস্বাধু। আখ থেকে গুড় তৈরি করা যায় বলে আখের চাহিদা রয়েছে প্রচুর। সাধারণ মানুষ জ-িস রোগের পথ্য হিসেবে আখের রস পান করে থাকে। তারা আরো বলেন, কোনরকম প্রশিক্ষণ ও সাহায্য সহযোগিতা ছাড়াই তাদের পূর্বপুরুষের ন্যায় আখ চাষ চালিয়ে যাচ্ছেন। এ ব্যাপারে সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ ও কম সুদে ঋণ পেলে আখ চাষে আরও এগিয়ে আসবে চাষিরা। তারা যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা স্মৃতি রাণী সরকার বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন ভালো হয়েছে, দামও ভালো পাওয়া যাচ্ছে। তাই কৃষকেরা খুবই খুশি। চলতি মৌসুমে আখ চাষের জন্য ১৮৫ হেক্টর জমিতে আখ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত থাকলেও তা অতিক্রম করে ১৯০ হেক্টর জমিতে আখ চাষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 192 People

সম্পর্কিত পোস্ট