চট্টগ্রাম সোমবার, ০৮ মার্চ, ২০২১

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১:০১ পূর্বাহ্ণ

কায়সার হামিদ মানিক , উখিয়া

ঢেঁকির তালে ধান ভাঙার শব্দ শোনা যায় না গ্রামীণ জনপদে

কক্সবাজার

‘ও বউ ধান ভানোরে ঢেঁকিতে পাড় দিয়া, ঢেঁকি নাচে বউ নাচে হেলিয়া দুলিয়া, বউ ধান ভানোরে’। গ্রাম বাংলার সেই ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি কালের বিবর্তনে এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। ঢেঁকির তালে ধান ভাঙা আর সেই তালে গাওয়া গান আজ হারিয়ে যাচ্ছে কক্সবাজারের গ্রামগুলো থেকে।

আবহমান গ্রাম বাংলার প্রতিটি গ্রামে একসময় ঢেঁকির প্রচলন ছিল। কৃষাণ-কৃষাণীদের ভালো মানের চাল তৈরির প্রধান মাধ্যম ছিল ঢেঁকি। গ্রাম বাংলার তরুণ, নববধূ ও কৃষাণীদের ব্যস্ত সময় কাটতো ঢেঁকিতে ধান ভেঙে। প্রতিদিন বিকেলে শোনা যেত ঢেঁকির শব্দ আর সেই সাথে নানা ধরনের আঞ্চলিক গান। কিন্তু সময়ের সাথে হারিয়ে যেতে বসেছে ঢেঁকির সেই ছন্দময় শব্দ। ঢেঁকি কাঠের তৈরি। এটি তৈরি করা হতো কুল, বাবলা, জামগাছ ইত্যাদি কাঠ দিয়ে। ঢেঁকির দৈর্ঘ্য সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাত আর পৌণে ১ হাত চওড়া। মাথার দিকে একটু পুরু ও অগ্রভাগে সরু। এর মাথায় এক হাত কাঠের ওচা বা দস্তা থাকে। এর মাথায় লাগানো থাকে লোহার গুলা। গুলার মুখ যে নির্দিষ্ট স্থানে পড়ে সে স্থানকে গড় বলে। ধান ভাঙতে ন্যূনতম ২ জন লোকের প্রয়োজন হয়। সেই সময়ে কবি সাহিত্যিকরা ঢেঁকিকে নিয়ে অনেক কবিতা ও গান লিখেছেন। আর ঢেঁকি ছাঁটা আউশ চালের পান্তা ভাত পুষ্টিমান ও খেতে খুব স্বাদ লাগত। বর্তমান প্রজন্ম সেই স্বাদ থেকে বঞ্চিত। প্রাচীনকালে ঢেঁকির ব্যবহার বেশি হলেও বর্তমানে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারের কারণে গ্রাম বাংলার ঢেঁকি আজ বিলুপ্তির পথে।

একসময় বছরজুড়ে সারাদেশে নবান্ন উৎসব হলে নানা ধরনের পিঠাপুলি তৈরির ধুম পড়ে যেত। আধুনিকতার যান্ত্রিক কবলে হারিয়ে যাচ্ছে এসব উৎসব ও ঢেঁকির ছন্দময় শব্দ।

আধুনিকতার ছোঁয়ায় বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া ঢেঁকি প্রসঙ্গে ইনানী গ্রামের নুর ইসলাম বলেন, ঢেঁকিকে নিয়ে বহু গান আমাদের এলাকার প্রবীণদের মুখে শুনেছি। আমাদের মা-চাচিদের ঢেঁকিতে ধান ভাঙতে দেখেছি। এখন ঢেঁকি নেই। অন্য এক বৃদ্ধা মহিলা ছখিনা খাতুন জানান, আগে ধান ঢেঁকিতে পাড় দিয়ে সে চালের গুঁড়ায় পিঠা-পুলি ও পায়েস তৈরি করে স্বামীকে খাওয়াতাম।
‘ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে’ বাংলার এ প্রবাদ বাক্যটি অনেক প্রচলিত হলেও ঢেঁকি এখন আর ধান ভানে না। কালের প্রভাবে ঢেঁকি আজ হারিয়ে গেছে আর আধুনিক যুগে ঢেঁকির জায়গা দখল করে নিয়েছে বিদ্যুৎ চালিত মেশিন। শহর তো বটেই, গ্রামবাংলার অনেক ছেলেমেয়েই ঢেঁকি কখনো দেখেনি, লোকমুখে শুনেছে কেবল। ঢেঁকি যেন শুধুই সোনালি অতীত হয়ে না যায় তার জন্য এ যুগের ছেলে মেয়েদের ছবি দেখিয়ে বুঝিয়ে দিতে হবে ও পরিচয় করিয়ে দিতে হবে ঢেঁকি শিল্প কি ছিল।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 433 People

সম্পর্কিত পোস্ট