চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

১০ ডিসেম্বর, ২০২২ | ১২:৫২ অপরাহ্ণ

পারমিতা রায় চৌধুরী

ভারত-বাংলাদেশ বর্ডার দেখার ইচ্ছা বহুদিনের…

তাই বেরিয়ে পড়লাম। গন্তব্য পেট্রাপোল-বেনাপোল বর্ডার, আমার পিতৃভূমি এবং জন্মভূমির সেতু ।

বনগাঁ স্টেশন থেকে হরিদাসপুর বর্ডারে পৌঁছলাম। সামনে ভারত-বাংলাদেশের শেষ সীমানা। দেখা যাচ্ছে বেনাপোলে দাঁড়ানো বাস যাত্রীদের তড়িঘড়ি। আত্মীয়দের অপেক্ষাতে আমার পাশে বেশ কয়েকজন। হঠাৎ এক ভদ্রলোক আমার কাছে জানতে চাইলেন- আমার লোক কোন বাসের যাত্রী। পরে আমার সেখানে যাওয়ার কারণ জানতে পেরে ওনার ঘরে বসতে অনুরোধ করেন। কাস্টমসের ভেতরে ঢুকে দেখি উনি কাস্টমস সুপারিন্টেন্ডেন্ট। বললেন- 4:30-এ কুচকাওয়াজ দেখে যাবেন। এখন একটু চা’য়ে গলা ভেজান।’ তারপর এই কথা সেই কথা, আমার নানান প্রশ্নের উত্তরও দিলেন। আলাপ করলাম বাংলাদেশ কাস্টমসের সাথেও।
পরে ওনার অনুমতি নিয়ে গিয়ে দাঁড়ালাম নো ম্যানস ল্যাণ্ডের কাছে। আমার সামনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ। বাচ্চা ছেলেরা মাঠে খেলছে, কেউ আবার গরু নিয়ে ঘরের পথে, মানুষজন কাজে ব্যস্ত। এটাই আমার মায়ের জন্মভূমি যশোহর !!! ওই পথেই বাবার নাড়ির টান বরিশাল জেলা।
আমি রাজনীতি বুঝি না, জানি না ধর্মভেদ। আমার ওপারে পিতৃ পরিচয় আর এপারে মাতৃ জঠরের টান। একই আকাশ একই বাতাস এক হৃদয়ের একই তো শ্বাস, দোয়েল-কোয়েল পাখির ঠোঁটে একই মুর্ছনা। কখন যে চোখ ঝাপসা হয়ে গেছে জানি না। সম্বিৎ ফিরলো বি জি বি জওয়ান ভাইয়ের ডাকে। ‘কুচকাওয়াজ দেখবেন না ম্যাডাম?’ দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললাম- চলুন।…

 

লেখক : পারমিতা রায় চৌধুরী,কলকাতা

 

পূর্বকোণ/এএইচ

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট