চট্টগ্রাম সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

৩১ অক্টোবর, ২০২২ | ১০:৫৪ পূর্বাহ্ণ

অপ্রয়োজনীয় ব্যয় মানে আরেকটু দরিদ্র হওয়া

আমার বাবা বলতেন ‘একটু অপ্রয়োজনীয় ব্যয় মানে একটু বেশি দরিদ্র হওয়া’। তখন তাঁর উপর বিরক্ত হতাম। এখন যখন রোজগার করি তখন বুঝি এরচে বড় সত্য আর নাই। বেদরকারি ব্যয় যে কত বেদরকারি তা হাড়ে হাড়ে বুঝি। আসলে সারাজীবন একটা আর্থিক স্থিতিশীল জীবন কাটাতে হলে মিতব্যয়ী হওয়ার বিকল্প নাই। আজ টাকা আছে বলে দিনে মোমবাতি জ্বালালাম তো কাল রাতে কুপি জ্বালানোর তেল থাকবে না। মোমবাতির টাকাটা সঞ্চয় করলে তা সারাজীবন রাতে বাতি জ্বালানোর ক্ষমতা দেবে। আমরা প্রায় তা বুঝি না।

 

ধরে নেই, জীবনটা চিরবসন্ত- তাই খরচের হাত -পা থাকে না। হঠাৎ বর্ষা এলে মাথায় ধরার জন্য ছাতা থাকে না। ছাতাহীন বর্ষা কিন্তু ভয়ংকর, তখন পাশে কেউ থাকে না। তাই সময় থাকতেই সাবধান হওয়া ভালো। এখন আমি নিজেই বাবা, মেয়েকে প্রায় বলি, পেনি সেইভড মিনস পেনি আরনড মা, পয়সা বাঁচানো মানে পয়সা কামানো। তখন আমার মিতব্যয়ী কিন্তু বুদ্ধিমান বাবার কথা মনে পড়ে যায়। তার মতো এমন সরল কথায় আমি কাউকে মিতব্যয়িতার প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরতে পারিনি। বাবার বয়সে এসে বিশ্ব মিতব্যয়িতা দিবসে বলি, একটু অপ্রয়োজনীয় ব্যয় মানে আরেকটু দরিদ্র হওয়া- তাই আমাদের মিতব্যয়ী হতে হবে। বিশেষ করে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বে যে মন্দা দেখা দিচ্ছে তা নিশ্চিত আমাদেরও স্পর্শ করবে।

 

এখন অযথা ব্যয় করার সময় নয়, এখন বিপদের জন্য সঞ্চয় করার সময়। এই সঞ্চয় আমাদের খারাপ সময়ে রক্ষা করবে। আমরা যাই বলি না কেন, বিপদে টাকার চাইতে বড় বন্ধু আর নেই। তাই আসুন, মিতব্যয়ী হই, বৃষ্টির দিনের জন্য ছাতা তৈরি রাখি।

লেখক : কথাসাহিত্যিক ও সমাজকর্মী

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট