চট্টগ্রাম শনিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

২০ এপ্রিল, ২০২২ | ১:১০ পূর্বাহ্ণ

মুহাম্মদ আশরাফ উদ্দীন হিমেল

ঐতিহাসিক বদর দিবস: মুসলিমদের এগিয়ে চলার প্রেরণা

৬২৪ খ্রিস্টাব্দে তথা দ্বিতীয় হিজরির ১৭ রমযানে বদর প্রান্তরে সংঘটিত হয় ঐতিহাসিক যুদ্ধ। প্রতিপক্ষ ছিল মক্কার মুশরিক ও মদিনার মুসলিম। এতে মুসলমানদের সেনাসংখ্যা ছিল মাত্র ৩১৩। এই যুদ্ধে মুসলমানরা সংখ্যায় কম হয়েও কাফিরদের বিশাল বাহিনীর ওপর বিজয় লাভ করেছে।

কুরআন কারিমে এই যুদ্ধকে সত্য-মিথ্যার মধ্যে পার্থক্যকারী যুদ্ধ বলে অভিহিত করা হয়েছে। ইসলামের ইতিহাসে এই যুদ্ধের অসামান্য গুরুত্ব রয়েছে। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম’র সব কাজকর্ম ওহি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হওয়া সত্ত্বেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ সব কাজে সাহাবাদের সঙ্গে পরামর্শ করতেন। বদরযুদ্ধের সময় রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সাহাবাদের সঙ্গে পরামর্শ করেছেন। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মূলত মদিনা থেকে বের হয়েছিলেন আবু সুফিয়ানের ব্যবসায়িক কাফেলাকে পাকড়াও করার জন্য। পথিমধ্যে তিনি জানতে পারলেন কুরাইশরা তাদের কাফেলাকে রক্ষা করার জন্য সদলবলে যাত্রা করছে। তখন তিনি সাহাবাদের সঙ্গে পরামর্শ করলেন এ মুহূর্তে কী করা উচিত? মুসলমানরা কি যুদ্ধ করবে, নাকি মদিনায় ফিরে যাবে? তখন রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মুহাজির ও আনসারদের পরামর্শে যুদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন।

এই যুদ্ধে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হাব্বাব ইবনে মুনজিরের পরামর্শে যুদ্ধের অবস্থানস্থল পরিবর্তন করেন। অনুরূপভাবে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বদরের বন্দিদের ব্যাপারেও সাহাবাদের সঙ্গে পরামর্শ করেন। যেকোনো কাজে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম’র সুন্নত। উপযুক্ত ব্যবস্থা কিংবা উপকরণ গ্রহণ করা তাওয়াক্কুলের পরিপন্থী নয়। বদরযুদ্ধের সময় দেখা নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাধ্যমতো যুদ্ধের প্রস্তুতি ও অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। হুযুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তালহা ইবনে উবায়দুল্লাহ ও সাঈদ ইবনে জায়েদকে পাঠিয়েছিলেন আবু সুফিয়ানের ব্যাবসায়িক কাফেলার খবর নিতে। অনুরূপভাবে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আদি ইবনে জাবা ও বাসবাস ইবনে আমরকে বদরপ্রান্তে পানি খোঁজ করার জন্য প্রেরণ করেন।

রাসুলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যেকোনো বিপদের সময় দোয়ার প্রতি খুব গুরুত্ব দিতেন। বদর  যুদ্ধের সময় রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর কাছে বিনয়াবনত হয়ে রোনাজারি করেছেন এবং আল্লাহর কাছে সাহায্য তলব করেছেন। মুমিনদের বৈশিষ্ট্য হলো বিপদ কিংবা প্রতিকূল পরিস্থিতিতে মনোবল হারায় না, বিচলিত হয় না। তারা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী প্রস্তুতি গ্রহণ করে আল্লাহর ওপর ভরসা করবে। বদর যুদ্ধে দেখা যায়, মুসলমানদের সেনা সংখ্যা অবিশ্বাসীদের তুলনায় অনেক কম ছিল। মুসলমানদের যুদ্ধ সরঞ্জাম ও  বাহন বলতে ছিল ৭০টি উট, দুটি ঘোড়া এবং ৬০টি বর্ম।

এ যুদ্ধ প্রমাণ করে যে বিজয় কিংবা সাফল্যের ওপর সেনা সংখ্যাধিক্যের কোনো প্রভাব নেই। মক্কার কাফিররা নিজেকে খুব ক্ষমতাবান মনে করত। আত্ম-অহমিকা ও অহংকারের কারণে কেউ তাদের সামনে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারত না। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে তারা মক্কায় মুসলমানদের ওপর বর্ণনাতীত নির্যাতন করেছিল। যুদ্ধের দিনও মুসলমানদের তুলনায় তাদের সেনাসংখ্যা ও যুদ্ধ-সুরঞ্জাম অনেক বেশি ছিল। এ নিয়ে তারা অহংকারও করেছিল। কিন্তু আল্লাহ তায়ালা তাদের অহংকার ও ক্ষমতার দাপট মাটিতে মিশিয়ে দিলেন। বদরযুদ্ধে আবু জাহেল, উতবা, শাইবা ও উমাইয়ার মতো কুরাইশদের বড় বড় সর্দার নিহত হয়।

আজ মুসলমান জাতি পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি নিগৃহীত ও নিপীড়িত। নিকট অতীতে ইরাক, আফগানিস্তান, ফিলিস্তিন, কাশ্মীর, মিয়ানমারে যত মুসলমান মা-বোনের ইজ্জত লুণ্ঠিত হয়েছে তা একত্রিত করলে গোটা পৃথিবী কালো মেঘে ডেকে যাবে, যত মুসলমানকে হত্যা করা হয়েছে তাদের হাড়গুলো একত্রিত করলে একটি হিমালয় পর্বতে রূপান্তরিত হয়ে যাবে, তাদের রক্তগুলো একত্রিত করা হলে ফুরাত নদীর মতো একটি নদী বয়ে যাবে।

আজ আধুনিক বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভেসে আসছে মুসলমানদের বুকফাটা আর্তনাদ। মনে হচ্ছে যেন মুসলমানদের যোগ্য কোনো অভিভাবক নেই, কোনো আশ্রয় দাতা নেই। অথচ এই মুসলমানরাই এক সময় গড়েছিল সভ্যতার সোনালী ইতিহাস-শাসন করেছিল অর্ধ পৃথিবী। ইতিহাসের এই বিজয়ী জাতির আজ এই দুর্দশা কেন? আজ সারা বিশ্বে মুসলমানদের এই চরম দুর্দশার একমাত্র কারণ হলো মুসলমানদের ঈমানি দুর্বলতা এবং কাপুরুষতা। মুসলিম বিশ্ব আজ বহুদাবিভক্ত। মুসলমানরা আজ তাগুতি শক্তির ক্রীড়নক।

ফিলিস্তিন, আফগানিস্তান, ইরাক ও আরাকান, কাশ্মীর, ভারতজুড়ে কাফের মুশরিকরা মুসলিম নিধনের মহড়া দিচ্ছে, ইসরাইলি হায়নারা ফিলিস্তিনের মা-বোনদের বুকের ওপর দাঁড়িয়ে নৃত্য করে, পিতার সামনে মেয়ের ইজ্জত লুন্ঠন করে, মিয়ানমারের বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা মুসলমানদের হত্যা করে অথচ মুসলিম নেতারা এই সব জুলুমের প্রতিবাদটুকুও করতে ভয় পায়। এ অবস্থায় আল্লাহর সাহায্য আসবে কি করে? বদর প্রান্তরে মুসলমানদের মাঝে যে ঈমানি শক্তি, ঐক্য ও মমত্ববোধ, একনিষ্ঠতা ছিল, সাহাবায়ে কেরামরা যেভাবে ছিলেন কুফুর শিরকের বিরুদ্ধে আপসহীন, এসবের কিছুই তো আজ মুসলিম বিশ্বে নেই। আছে শুধু দ্বন্দ্ব-কলহ, ক্ষমতার লোভ, বিলাসিতা ইত্যাদি। বিশ্বের কোনো একটি দেশেও ইসলামপন্থীদের মধ্যে সুদৃঢ় ঐক্য নেই। আর একারণেই আজ মুসলিমবিশ্বের এই অবস্থা। আল্লাহর সাহায্যও মদদ থেকে আমরা বঞ্চিত। যদি আমরা বদরের মহান বিজয় ইতিহাস থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারি এবং সাহাবায়ে কেরামদের ঈমানি চেতনা ও নবীপ্রেমে উজ্জীবিত হতে পারি, তাহলে আজও পৃথিবীতে ইসলামের পতাকা উঁচু থাকবে, আমাদের সম্মান-মর্যাদা বৃদ্ধি পাবে, মুসলমানদের এই দুর্দশা দূর হবে। পৃথিবীর কোনো তাগুতি শক্তি মুসলমানদের দমিয়ে রাখতে পারবে না। ইনশাআল্লাহ!

লেখক: মুহাম্মদ আশরাফ উদ্দীন হিমেল প্রাবন্ধিক ও সমাজকর্মী

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট