চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

২২ মে, ২০১৯ | ২:৩৯ পূর্বাহ্ণ

মেদান সালেহ

আপনার যদি পুরনো সভ্যতা ও ইতিহাসের প্রতি আগ্রহ থাকে, সেক্ষেত্রে মেদান সালেহ আপনার জন্যে একটি চমৎকার গন্তব্যও হতে পারে। এখানে আপনি প্রাচীন যুগের সৌদি আরবকে আবিষ্কার করতে পারবেন।
পবিত্র কোরআন শরিফে বর্ণিত আছে সামুদ জাতি এখানে বসবাস করত। তখন সেখানকার পরিবেশ ছিল চমৎকার। মিষ্টি পানিরও কোন অভাব ছিল না। কিন্তু তারা মিথ্যাচার, ব্যাভিচার, মূর্তিপূজাসহ বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত ছিল।
এর পর আল্লাহর প্রেরিত পুরুষ হযরত সালেহ (আ.) তাদেরকে ইসলামের দাওয়াত দেন। তখন সামুদরা হযরত সালেহ (আ.) এর কথা শুনতে অস্বীকৃতি জানায়। তারা মহান আল্লাহ পাকের ক্ষমতার প্রমাণ স্বরূপ একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্যযুক্ত মাদী উট আনতে বলে। সালেহ (আ.) তাদের কথা মত তাদের একটি উট এনে দেন। তিনি এটাও বলেন যে তারা (সামুদ) যেন উটের যত্ন নেয় এবং ক্ষতি না করে, কারণ এটা আল্লাহপাকের পক্ষ থেকে উপহার স্বরূপ ছিল। কিন্তু নাফরমান সামুদ জাতি আল্লাহর উপর বিশ্বাস তো আনলই না, বরং সেই উটকে হত্যা করল। এরপর আল্লাহ তাদের উপর গজব নাযিল করেন। তিন দিনের গজব আসে। প্রথম দিনে সমস্ত সামুদ জাতির মুখ হলুদ হয়ে যায়। এর পরদিন সবার মুখ রক্তের মত লাল হয়ে যায়। শেষ দিনে সবার মুখের রঙ গভীর কাল বর্ণ ধারণ করে। এর পর প্রচ- ঝড়, বজ্র ও ভূমিকম্প আসে এবং তাতে সমগ্র সামুদ জাতি সমূলে ধ্বংস হয়ে যায়।
এই সামুদ জাতি ছিল তাদের পূর্ববর্তী আদ জাতির বংশধর। সেই আদ জাতিও মহান আল্লাহর বিরোধিতা করে এবং যথারীতি গজবে ধ্বংস হয়ে যায়। তারাও মেদান সালেহ- এ বসবাস করত। এজন্য মেদান সালেহ জায়গাটি একটি অভিশপ্ত জায়গার পরিচিতি পেয়েছে আরব বিশ্ব তথা সমগ্র পৃথিবীর কাছে।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট