চট্টগ্রাম শনিবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

২২ মে, ২০১৯ | ১:১৭ পূর্বাহ্ণ

মো. রবিউল হোসেন স¤্রাট

প্রসঙ্গ : চাকুরীর আবেদন ও ব্যাংক ড্রাফট

চাকুরী মানেই সোনার হরিণ। একজন বেকারের এমনিতে নেই কোন আয় উপার্জন। কিন্তু একটা চাকুরীর পিছনে দৌঁড়াতে, দৌঁড়াতে সময় ও কষ্টের সাথে টাকার ব্যবস্থা করা কতটা কঠিন তা ভুক্তভোগীমাত্রই জানে। সরকারী চাকুরীতে আবেদন করতে বিভিন্ন পদের জন্য ব্যাংক চালান, ব্যাংক পে-অর্ডার বা ব্যাংক ড্রাফটে খরচ পড়ে ৫০০ হতে ১,৫০০ পর্যন্ত। আবেদনের পর অনেকের পরীক্ষার প্রবেশপত্র আসে না। ফলে চাকুরীপ্রার্থীকে লোকসান গুনতে হয়। পরবর্তীতে যাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে পরীক্ষার জন্য ডাকা হয় তাদের বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকায় পরীক্ষার জন্য যেতে হয়। ফলে বিপুল পরিমাণ গাড়ীভাড়া ও থাকা খাওয়াসহ খরচ পড়ে ৩,০০০ থেকে ৫,০০০ টাকা। তাহলে আবেদন ১,৫০০+ অনান্য খরচ ৫,০০০ টাকাসহ সর্বমোট খরচ পড়ে ৬,৫০০। একজন বেকারের পক্ষে তা বহন করা কতটুকু সম্ভব? এটা কোনো ভাবেই মানবিক নয়। বেকারত্ব কমানোর কৌশলতো নয়ই। আমরা বিষয়টি সুবিবেচনায় নিতে সরকারসহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 443 People

সম্পর্কিত পোস্ট