চট্টগ্রাম শনিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২১

১৬ মে, ২০১৯ | ৫:৩৭ অপরাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

ফের পেছালো খালেদার কয়লাখনি দুর্নীতি মামলার চার্জ শুনানি

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলায় চার্জ শুনানি  ফের পিছিয়ে আগামী ১৯ জুন ধার্য করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৬ মে) কেরানীগঞ্জে কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে নবনির্মিত ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতের বিচারক এইচ এম রুহুল ইমরান নতুন এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার ছিল মামলার চার্জ শুনানির দিন । কিন্তু খালেদা জিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় তার পক্ষে আইনজীবীরা আদালতে সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করেন। আদালত তার এ আবেদন মঞ্জুর করে চার্জ শুনানির জন্য নতুন এ তারিখ ঘোষণা করেছেন।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হকের করা আবেদনের রুল খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মামলাটি ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ বছরের ৩১ জানুয়ারি মামলার অন্যতম আসামি বিএনপি নেতা আমিনুল হক ও এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী সময় বাড়ানোর আবেদন করেন। পরে শুনানি শেষে ২৬ ফেব্রুয়ারি শুনানির জন্য দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।

এ মামলায় জামায়াত নেতা নিজামী ও মুজাহিদ আসামি ছিলেন। তাদের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় এবং সাবেক তথ্যমন্ত্রী এম শামসুল ইসলাম ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী এম কে আনোয়ার মারা যাওয়ায় বর্তমানে তাদের মামলা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এ মামলায় মোট আসামি ছিল ১৩ জন, মারা গেছেন ৪ জন। বর্তমানে এ মামলায় আসামির সংখ্যা ৯ জন।

মামলায় অন্য আসামিরা হলেন- খালেদা জিয়া, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন, সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিস্টার মো. আমিনুল হক, মো. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, হোসাফ গ্রুপের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন, সাবেক জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ সচিব নজরুল ইসলাম, পেট্রোবাংলার সাবেক পরিচালক মুঈনুল আহসান, সাবেক জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন।

২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর শাহবাগ থানায় খালেদা জিয়া ও তার মন্ত্রিসভার সদস্যসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, সরকারের প্রায় ১৫৮ কোটি ৭১ লাখ টাকার ক্ষতি হয় , কনসোর্টিয়াম অব চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইম্পোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশনকে (সিএমসি) বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির উৎপাদন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণ চুক্তি করায়

গত ১৩ মে সরকারের জারি করা প্রজ্ঞাপন অনুযারী, পুরান ঢাকার পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-২ কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে নবনির্মিত ২ নম্বর ভবনে স্থানান্তর করা হয়েছে। তাই এখন থেকে খালেদা জিয়ার মামলার কার্যক্রম সেখানেই চলবে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 325 People

সম্পর্কিত পোস্ট