চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৪:১৩ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক হ ঢাকা অফিস

মীরজাফররা আর যেন ক্ষমতায় না আসে : প্রধানমন্ত্রী

জিয়াউর রহমানের অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল থেকে শুরু করে স্বাধীনতার বিরোধীদের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী বানানোর সমালোচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতীয় পার্টির এরশাদও সেই একই পদাঙ্ক অনুসরণ করেছে বলেও জানান তিনি। আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘এরশাদ ক্ষমতায় এসে ফারুককে করেছে রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী। দল করার সুযোগ দিয়েছে। খুনিরা বানিয়েছে ফ্রিডম পার্টি। অর্থ্যাৎ খুন করার ফ্রিডম, সেই ফ্রিডম দিয়েছিল এরশাদ। আর খালেদা জিয়া এসে তো আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলো, স্বামী যা করেছে তার থেকে আরও বেশি করলেন তিনি।’ প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এ দেশে মোশতাক, জিয়ার মতো মীরজাফররা আর যেন কোনো দিন ক্ষমতায় না আসতে পারে, দেশের উন্নয়ন আর যেন বাধাগ্রস্ত না হয়।

গতকাল রাজধানীর খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ‘তোমাদের যা বলার ছিল, বলছে তা আজ বাংলাদেশ’ শিরোনামে এই আলোচনা সভা করে আওয়ামী লীগ। জিয়াউর রহমানের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির পিতার হত্যাকারী আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পাঠিয়েছিল খুনি জিয়া। পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতাবিরোধী গোলাম আযমকে দেশে ফিরিয়ে আনা এবং শাহ আজিজদের রাষ্ট্রপতি বানানো হলো। যে বাংলাদেশের স্বাধীনতাই চায়নি, সে হলো প্রধানমন্ত্রী।’

‘সেই রাজাকার বাহিনী, আলবদর বাহিনী, যারা এই বুদ্ধিজীবীদের ঘরে গিয়ে গিয়ে ধরে নিয়ে এসে হত্যা করেছে তাদের বানালো মন্ত্রী। তারা মন্ত্রী হয়ে দেশকে ধ্বংস করেছে। তাদের হাত দিয়েই খালেদা জিয়ার ব্যবসা, দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা। তার ছেলেই সাজাপ্রাপ্ত। আর নিজে তো এতিমের অর্থ আত্মসাৎ করেই আছে। একটা দেশের মানুষের জন্য দরদ নাই এবং এই দেশটা যে এতো লাখো শহীদের রক্তের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে, এই বিষয়ে তাদের কোনরকম কোন সহানুভূতি ছিল না। তাদের ওই পাকিস্তানের প্রতি যে বহুল আনুগত্য, সেই আনুগত্যই তারা দেখিয়ে গেছে। তাদেরই তোষামোদী, চাটুকারিতা করে গেছে এবং তারা করে যাচ্ছে এখনও, বলেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতির পিতার নেতৃত্বে দেশ স্বাধীনের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘২১ বছর এদেশের মানুষ কষ্ট ভোগ করেছে। এরপর আবার ২০০১ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত তাদের কষ্ট ভোগ করতে হয়েছে। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, সেগুলোর সৃষ্টি করেছে। পরবর্তীতে আমরা যখন সরকারে এলাম, তারপর শুরু হল অগ্নিসন্ত্রাসের তা-ব। যার মধ্যে এতটুকু মনুষ্যত্ব থাকে সে কি পারে জীবন্ত মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে পুড়িয়ে হত্যা করতে? এটাই নাকি খালেদা জিয়ার আন্দোলন ছিল! অর্থ্যাৎ খুন, হত্যা ছাড়া এরা আর কিছুই জানে না। মেধাবী ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে তাদের পেটোয়া বাহিনী বানিয়েছে। শুরু করল জিয়া, তার পদাঙ্ক অনুসরণ করলো খালেদা জিয়া।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় সূচনা বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শহীদ বুদ্ধিজীবী সন্তান হিসাবে অনুভূতি ব্যক্ত করেন শহীদ বুদ্ধিজীবী আলতাফ মাহমুদের কন্যা শাওন মাহমুদ।

The Post Viewed By: 59 People

সম্পর্কিত পোস্ট