চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০২ মার্চ, ২০২১

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ | ১১:৪৫ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

বাবাকে হারিয়ে কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা দেয়া এক জ্যোতির গল্প

বাবার স্বপ্ন পূরণের জন্যই ছেলে বাবার লাশ বাড়িতে রেখে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নেয়। আজ সোমবার (১৮ নভেম্বর) নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। পরীক্ষার্থী জ্যোতি আক্তার উপজেলার হাটাব দক্ষিণ বাড়ৈ শিশু নিকেতন ব্র্যাক স্কুলের শিক্ষার্থী। এদিকে, বাবা মারা যাওয়াই লাশ দাফনের প্রস্তুতি চলছে। শোকে বিহ্বল স্বজনরা।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার হাটাব মধ্যপাড়া এলাকার বাসিন্দা জামান মিয়া (৪১)।  তিনি কিছু দিন ধরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। গত রবিবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জামান মারা  গেলে আজ বেলা ১১টার দিকে তাঁর জানাজার সময় নির্ধারণ করা হয়। জামানের দুই ছেলে ও এক মেয়ে। তাঁর মৃত্যুতে একমাত্র মেয়ে জ্যোতির প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নেয়া বিষয়ে স্বজনেরা দোটানায় পড়েছিলেন। তবে জ্যোতি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। জ্যোতি বাবাকে হারিয়ে কাঁদতে কাঁদতে পরীক্ষা দেয় । পরীক্ষা শেষে জ্যোতি যখন বাড়ি ফেরে, ততক্ষণে বাবার দাফনও সম্পন্ন হয়ে গেছে।

পরীক্ষা শেষে জ্যোতি আক্তার জানান, বাবা তাকে ভীষন ভালোবাসতেন। বাবা চাইতেন, সে যেন পড়ালেখা করে অনেক বড় হয়। মানুষের মতো মানুষ হয়। তাই, সে যদি এ পরীক্ষা না দেয় তাহলে তার বাবার আত্মা কষ্ট পাবে। এ কারণে নিজেকে কষ্ট দিয়ে সে পরীক্ষা দিয়েছে।

রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মমতাজ বেগম জানান, পৃথিবীতে বাবাকে হারানো যেকোনো শিশুর জন্য খুবই বেনাদায়ক। কেননা প্রত্যেক শিশুর কাছে বাবা একজন বটবৃক্ষের মতো। তাসত্ত্বেও শিশু জ্যোতি বাবা হারানোর কষ্ট নিয়ে পরীক্ষায় দিয়েছে। আমরা তার পরীক্ষার সময় যতটা সহযোগিতা দরকার করেছি। হল সুপার পুরো সময় তার পাশে দাঁড়িয়ে থেকে সান্ত্বনা দিয়ে মনোবল শক্ত করতে বলেছেন।

পূর্বকোণ-রাশেদ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 195 People

সম্পর্কিত পোস্ট