চট্টগ্রাম রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯

সর্বশেষ:

৮ অক্টোবর, ২০১৯ | ৩:৩০ পূর্বাহ্ণ

ঢাকা অফিস

ছাত্রলীগ নেতাসহ আটক ৯

বুয়েট শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যা

বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১১ জন বহিষ্কার

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রবিবার দিবাগত রাত তিনটা নাগাদ বুয়েটের শের-ই বাংলা হলের নিচতলা থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে হলের শিক্ষার্থীরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন। মারা যাওয়া আবরার ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী ছিলেন। তাঁর বাড়ি কুষ্টিয়া শহরে। গতকাল ময়নাতদন্তের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সোহেল মাহমুদ বলেন, ভোঁতা কিছু দিয়ে আবরারকে মারা হয়েছে। ফরেনসিকের ভাষায় বলে- ব্লান্ট ফোর্সেস ইনজুরি। বাংলা কথায়, ওকে পিটিয়ে মারা হয়েছে। এদিকে, আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ জনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকালই বুয়েটের শেরে বাংলা হলে অভিযান চালিয়ে এবং সিসিসিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে তাদের আটক করার কথা জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়। কৃষ্ণপদ রায় সাংবাদিকদের বলেন, ‘বুয়েট শিক্ষার্থী ফাহাদ হত্যার ঘটনায় শনাক্ত ৯ জনকে আটক করেছি। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। আমরা সিসিটিভি ফুটেজ পেয়েছি। সেটা পর্যালোচনা করছি।’ তারআগে সকালের দিকে প্রথম দফায় বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল ও সহসভাপতি মুহতাসিম ফুয়াদকে আটক করার কথা জানায় পুলিশ। এরপর সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আরও সাতজনকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয় বলে সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের জানান কৃষ্ণপদ রায়। ধৃতদের মধ্যে বুয়েট ছাত্রলীগের তথ্য গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার, ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল জিয়ন, উপসমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশারফ সকাল, যন্ত্রকৌশল বিভাগের তানভীরুল আবেদিন ইথান, রবিন, মুন্না, ও জেমি রয়েছেন।
এদিকে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায়
বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১১ জনকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
হলের শিক্ষার্থীরা জানান, গত রবিবার রাত আটটার দিকে আবরার ফাহাদসহ দ্বিতীয় বর্ষের ৭-৮ জন শিক্ষার্থীকে শের-ই বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে পাঠান তৃতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ৭-৮ জন নেতা। তাঁরা আবরার ফাহাদের মুঠোফোন চেক করে শিবির-সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ খোঁজেন। একপর্যায়ে ক্রিকেট খেলার স্টাম্প দিয়ে তাঁকে পেটাতে শুরু করেন তাঁরা। পরে চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী ওই কক্ষে গিয়ে আবরারকে আরেক দফায় পেটান। এতে তাঁর মৃত্যু হলে রাতে সহপাঠীদের ডেকে লাশ সিঁড়ির নিচে রাখতে বলা হয়।
ঘটনার সময় ২০১১ নম্বর কক্ষে উপস্থিত বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আশিকুল ইসলাম ওরফে বিটু। তিনি দাবি করেন, ‘রাত আটটার দিকে আবরার ফাহাদকে ২০১১ নম্বর কক্ষে ডাকা হয়। আমি মাঝে মাঝে ওই কক্ষে বন্ধুর কাছে যাই। সেখানে গিয়ে দেখতে পাই, সেখানে আবরার ফাহাদের ফেসবুক আইডি ও মেসেঞ্জার চেক করা হচ্ছে। তাঁর বিরুদ্ধে শিবির-সংশ্লিষ্টতার কিছু প্রমাণও পাওয়া যায়। রাত পৌনে নয়টার দিকে আমি কক্ষ থেকে বেরিয়ে আসি। পরে সেখানে কী হয়েছে, আমি জানি না। নিজের কক্ষে গিয়ে পড়াশোনা ও আড্ডা দিয়ে রাত একটার দিকে ওই কক্ষে রেখে আসা নিজের ল্যাপটপ ও বই আনতে গেলে আবরারকে পড়ে থাকতে দেখি। তখন সেখানে আর কেউ ছিল না।
হল শাখা ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, আবরারকে জেরা ও পেটানোর সময় ওই কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপসম্পাদক ও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র অমিত সাহা, উপদপ্তর সম্পাদক ও কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র মুজতাবা রাফিদ, সমাজসেবা বিষয়ক উপসম্পাদক ও বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র ইফতি মোশারফ ওরফে সকালসহ তৃতীয় বর্ষের আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী ছিলেন। ওই কক্ষে এসে দ্বিতীয় দফায় আবরারকে পেটান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী অনিক সরকার, ক্রীড়া সম্পাদক ও নেভাল আর্কিটেকচার এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের একই বর্ষের মেফতাহুল ইসলাম জিয়নসহ কয়েকজন।
হলের দারোয়ান মোহাম্মদ মোস্তফা বলেন, সিঁড়ির পাশের সিসিটিভি ফুটেজটি নষ্ট। কোনো আওয়াজ বা হইচই শুনিনি। এই অংশের সিসিটিভি কয়েক দিন থেকে এলোমেলো। ভোরে ঘটনাস্থলে আসেন নিহত আবরারের মামাতো ভাই একটি দৈনিক পত্রিকার সাংবাদিক আবু তালহা রাসেল ৷ তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আবরারের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা একদমই সত্য নয়। তাঁর গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নে। আওয়ামী লীগের পাঁচজন সমর্থক থাকলে তাঁর বাবা বরকতউল্লাহ তাঁদের একজন। আমরা এই হত্যার বিচার চাই৷’ ঘটনার বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ জাফর ইকবাল খান বলেন, ‘রাত পৌনে তিনটার দিকে খবর পাই যে এক শিক্ষার্থী হলের সামনে পড়ে আছে। কেন সে বাইরে গিয়েছিল, কী হয়েছিল, তা এখনও জানা যায়নি। তাৎক্ষণিকভাবে বুয়েটের চিকিৎসক দিয়ে তাকে পরীক্ষা করা হয়। ওই চিকিৎসক জানান সে বেঁচে নেই। পরে পুলিশকে খবর দিই। পুলিশ এসে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।’
আবরার হত্যা : পাওয়া গেল সিসিটিভি ফুটেজ
আবরার ফাহাদ হত্যাকা-ের সিসিটিভি ফুটেজ পূর্বকোণের হাতে এসেছে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, চারজন আবরারকে বহন করে নিয়ে যাচ্ছে। তাদের পেছনে আরও একজনকে হেঁটে আসতে দেখা যায়। তারপর আরও পাঁচজনকে দেখা যায়। ভিডিওতে মোট ১০ জনকে দেখা গেছে।
এ সম্পের্ক ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় বলেন, আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে আমরা প্রাথমিকভাবে প্রমাণ পেয়েছি। আমরা দেখছি কারা এই হত্যাকা-ের সাথে জড়িত। এটি যে হত্যাকা-, এতে সন্দেহ নেই। তিনি বলেন, কয়েকটি সিসিটিভি ফুটেজ আমাদের কাছে রয়েছে। বিচার বিশ্লেষণ করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। রাজনৈতিক পরিচয় যাই থাকুক, যে জড়িত থাকবে তাকেই তার বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। এদিকে, বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশ করার দাবি জানিয়ে গতরাতেও বিক্ষোভ করছিল ক্যাম্পাসে।

The Post Viewed By: 242 People

সম্পর্কিত পোস্ট