চট্টগ্রাম রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ২:২৪ পূর্বাহ্ণ

শিবুকান্তি দাশ, ঢাকা অফিস

কাউন্সিল ছাড়াই ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন তারেক রহমান ?

আদালতের নির্দেশে স্থগিত জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কাউন্সিলের সম্ভাবনা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ফিকে হয়ে যাচ্ছে। ফলে কাউন্সিল ছাড়াই কমিটি গঠন হতে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। তাই সংগঠনের নেতৃত্ব বাছাইয়ে শেষ ভরসা এখন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

ছাত্রদলের কাউন্সিল পরিচালনা কমিটির উপর আদালত কর্তৃক নিষেধাজ্ঞার প্রেক্ষিতে গতকাল মঙ্গলবার নয়াপল্টনস্থ বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে ছাত্রদলের কাউন্সিল সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কাউন্সিলররা সর্বসম্মতিক্রমে তাদের অভিভাবক সংগঠন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাংগঠনিক অভিভাবক ঘোষণা করেছেন। ছাত্রদলের গঠন ও পুনর্গঠনসহ ছাত্রদলকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার লক্ষ্যে তারেক রহমানকে ছাত্রদলের গঠনতন্ত্রের সংশোধন, কাউন্সিল আহ্বান, কাউন্সিল মুলতবি করা, ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্ধারণে নির্বাচন পরিচালনাসহ যে কোনো সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত ও ব্যবস্থা গ্রহণের সর্বময় দায়িত্ব প্রদান করেন তারা। সভায় ঢাকা মহানগর ছাত্রদলের উত্তরের সভাপতি ও কাউন্সিলর মিজানুর রহমান রাজের প্রস্তাবে সর্বসম্মতিক্রমে কাউন্সিলর খন্দকার এনামুল হক এনাম সভাপতিত্ব করেন। সভা পরিচালনা করেন কাউন্সিলর রেজাউল করিম টুটুল।

জানা গেছে, আইনি জটিলতার কারণে কাউন্সিলের পথে হাঁটতে চান না বিএনপির দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। ‘সমঝোতা’ ভিত্তিতে কমিটি গঠনের দিকেই এগুচ্ছেন তারা। এজন্য প্রার্থী এবং কাউন্সিলরদের কাছ থেকে সম্মতিও নেয়া হয়েছে।
দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ‘এরই মধ্যে প্রার্থী এবং কাউন্সিলরদের কাছ থেকে মতামত নেয়া হয়েছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান যে সিদ্ধান্ত দেবেন তা সবাই মেনে নেবেন। তবে এখনই এ বিষয়ে কোনও ঘোষণা দেয়া হবে না।

কাউন্সিলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক নেতা বলেন, যেহেতু আদালতের একটা নির্দেশনা আছে তাই আমরা কাউন্সিল করতে পারছি না। তবে কাউন্সিল করবো এ ঘোষণাও এখনই দিতে পারছি না। আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
প্রসঙ্গত দীর্ঘ ২৭ বছর পর গত শনিবার ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিলুপ্ত কমিটির সহ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক মো. আমানউল্লাহ গত বৃহস্পতিবার মামলা করলে এতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দেন আদালত। ফলে স্থগিত হয় ছাত্রদলের কাউন্সিল। আদালতের নিষেধাজ্ঞায় আটকে যাওয়া ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিল কোন প্রক্রিয়ায় হবে তা নিয়ে চলছে বিস্তর আলোচনা। কাউন্সিল সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার দুটি পন্থা ছিল। এর একটি হলো- বিলুপ্ত কমিটি আবার সক্রিয় করা আর দ্বিতীয়টি হলো- সারা দেশের কাউন্সিলররা বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া।

এর আগে গত ১৫ জুলাই ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল। বলা হয়েছিল, ২০০০ সালের আগে যারা এসএসসি পাস করেছে তারা কাউন্সিলে প্রার্থী হতে পারবেন না। বয়সের এমন বাধ্যবাধকতার কারণে সে সময় ছাত্রদলের সদ্য সাবেক নেতারা চরম ক্ষুব্ধ হন; যা নিয়ে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাও ঘটে, ছাত্রদলে দেখা দেয় সংকট। যার কারণে ওই নির্ধারিত তারিখে কাউন্সিল হয়নি সংগঠনটির।

The Post Viewed By: 393 People

সম্পর্কিত পোস্ট