চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

৭ জানুয়ারি, ২০২৩ | ১:১১ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

আর নেই লেখক, শিক্ষক সুফিয়া খাতুন

বিদুষী লেখক, শিক্ষক ও সমাজসেবক সুফিয়া খাতুন আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তাঁর বয়স ১০০ পেরিয়েছিল।

 

শনিবার (৭ জানুয়ারি) ভোর পৌনে চারটার দিকে তিনি মারা গেছেন।

 

রাজধানীর সেন্ট্রাল রোডে বেলা দেড়টার দিকে নিজ বাড়িতে সুফিয়া খাতুনের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে বনানী কবরস্থানে স্বামী এ কে এম ওয়াঝিহ উল্লাহর কবরের পাশে তাকে দাফন করা হবে। তিনি চার ছেলে, এক মেয়ে, নাতি–নাতনি, অসংখ্য শিক্ষার্থী ও শুভানুধ্যায়ী রেখে গেছেন।

 

সুফিয়া খাতুন আত্মজীবনীতে ২০২১ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত ‘জীবন নদীর বাঁকে বাঁকে ’ গ্রন্থের রচয়িতা। তিনি ছিলেন সফল স্কুলশিক্ষক। ১৯৫০–এর দশক থেকে শুরু করে ২৩ বছর তিনি সিদ্ধেশ্বরী গার্লস স্কুল, ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও তৎকালীন ক্যান্টনমেন্ট মডার্ন স্কুলে শিক্ষকতা করেছেন।

 

সমাজসেবাধর্মী নানা কর্মকাণ্ডেও নিয়োজিত ছিলেন সুফিয়া খাতুন। গড়ে তুলেছিলেন প্রাতর্ভ্রমণকারী সঙ্গিনীদের নিয়ে ‘উষা মৈত্রী’ সংগঠন। যুক্ত ছিলেন ‘হেমন্তিকা’ নামের সংগঠনের জন্মপ্রক্রিয়া থেকে। সমমনা আগ্রহী নারীদের সঙ্গে নিয়ে বৃদ্ধাবাস প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করেছে ‘হেমন্তিকা’। দুটি সংগঠনের নামই তার দেওয়া।

 

সুফিয়া খাতুনের জন্ম ময়মনসিংহে, খরস্রোতা ব্রহ্মপুত্রের তীরে। তাই আত্মজীবনী ‘জীবন নদীর বাঁকে বাঁকে’ বইতে নদীর মতো প্রবহমান জীবনের গল্প তুলে ধরেছেন তিনি। বইটির সময়কাল ১৯৩০ থেকে ২০০৩ সাল। এই বইতে এক সাধারণ নারীর অসাধারণ হয়ে ওঠার গল্প রচিত হয়েছে।

 

দেশ ও বিদেশের নানা স্থানে জীবন কেটেছে তার। শৈশব ও কৈশোরে বাবার কাছে, বিয়ের পর সরকারি কর্মকর্তা স্বামীর চাকরিসূত্রে এবং পরবর্তী জীবনে ছেলেমেয়েদের জন্য তিনি হেঁটেছেন পৃথিবীর পথে পথে।

 

বইটি পড়তে পড়তে পাঠকের চোখের সামনে কখনো ভেসে উঠবে ব্যারাকপুর, কলকাতা, কৃষ্ণনগর, মুর্শিদাবাদ থেকে শুরু করে কুমিল্লা, পাবনা, বরিশাল, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধাসহ দেশের নানা স্থান। আবার কখনো তাঁদের নিয়ে যাবে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ডসহ বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় লেখকের জীবনের অতিবাহিত দিনগুলোয়। তিলোত্তমা ঢাকা শহর প্রায় গড়ে উঠতে দেখা যায় এই আত্মজীবনীতে।

 

মুসলিম সমাজে নবজাগরণ, সমাজে হিন্দু-মুসলমান সহাবস্থান ও পরবর্তী সময়ে দাঙ্গা, কলেরা মহামারি, দুর্ভিক্ষ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, দেশভাগ, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, সামরিক শাসন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা—প্রায় সব ঘটনারই সাক্ষী সুফিয়া খাতুন।

 

সুফিয়া খাতুনের মা, বাবা, মাতামহী, দাদা, জীবনসঙ্গী, বাল্যকালের গৃহশিক্ষক কফিলউদ্দীনসহ সবাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে বিচরণ করেছেন আত্মজীবনীটির পৃষ্ঠাজুড়ে। উঠে এসেছে মুনীর চৌধুরীসহ বিভিন্ন বিখ্যাত ব্যক্তির সঙ্গে তার হৃদ্যতার সম্পর্কের নানা প্রান্ত।

 

পূর্বকোণ/আরএ/এএইচ

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট