চট্টগ্রাম শনিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

৭ ডিসেম্বর, ২০২২ | ৮:৩৫ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে আহত ২১, আটক শতাধিক

রাজধানীর নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে মকবুল হোসেন (৪০) নামে একজন নিহত এবং অন্তত ২১ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম ও খায়রুল কবির খোকনসহ শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় সংঘর্ষের পর দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

 

জানা গেছে, কার্যালয়ের ভেতরে ঢুকে কলাপসিবল গেট বন্ধ করে দেয় পুলিশ। সেসময় রুহুল কবির রিজভী, শিমুল বিশ্বাস, শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী এবং আব্দুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েলসহ নেতাকর্মীদের আটক করা হয়। পরে খায়রুল কবির খোকন, আমান উল্লাহ আমান ও আব্দুস সালামকেও আটক করা হয়। পল্টন থানা হাজতে আসামি রাখার জায়গা না থাকায় আটককৃতদের শাহবাগ ও আশপাশের অন্যান্য থানায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। 

এর আগে বিকালে ১০ ডিসেম্বরের গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন বিএনপির নেতাকর্মীরা। পুলিশ নেতাকর্মীদের সরিয়ে দিতে গেলে তাদের ওপর চড়াও হন বিএনপির নেতাকর্মীরা। তখনই সংঘর্ষ শুরু হয়। পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারগ্যাস শেল ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় তারাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন।

 

সংঘর্ষে মকবুল হোসেন নামে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর তাকে ঢামেক হাসপাতালে নেওয়া হলে তিনি মারা যান। এতে এক পুলিশ সদস্যসহ আরও ২১ জন আহত হয়েছেন। 

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, নয়াপল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় ২১ জন চিকিৎসা নিয়েছেন। একজনের মরদেহ ঢামেকের মর্গে আছে। একজন পুলিশ সদস্যসহ তিনজন ভর্তি আছেন। তবে তারা শংকামুক্ত। আহতদের চিকিৎসার জন্য কুইক রেস্পন্স টিম প্রস্তুত আছে।

এদিকে, নিহত মকবুলের স্ত্রী জানান, মকবুল রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না, তিনি ব্যবসায়ী। কেউ একজন তাকে (মকবুল) ডেকে নিয়ে গিয়েছিল। এরপর আর কিছু জানি না।

 

পূর্বকোণ/এএস/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট