চট্টগ্রাম শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

২৬ অক্টোবর, ২০২২ | ১২:০০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঝুঁকিতে দেশের রাবার চাষ

রাবার চাষকে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও কৃষিজাত পণ্য হিসেবে শুরুর দিকে চিহ্নিত করা ছিল। ফলে এই খাতটির বিকাশে সহজেই কৃষি ব্যাংকের ঋণ মিলতো। কিন্তু সরকার রাবারকে শিল্পজাত পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ায় রাবার বাগান ও রাবার উৎপাদন বহুমূখী করের ফাঁদে পড়ার শঙ্কায় রয়েছে। এতে ঝুঁকির মুখে দেশের রাবার চাষ। এমনিতেই দেশে রাবার আমদানি করলে কর দিতে হয় ৫ শতাংশ। আর দেশে উৎপাদন করলে পরিশোধ করতে হয় ১৫ শতাংশ মুসক।

 

সংশ্লিষ্ট কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে বলেন, একদিকে কাঁচা রাবারের দাম কমে গেছে। অন্যদিকে উৎপাদন পর্যায়ে বেশি কর ধার্য করা হয়েছে। তাই ভ্যাট কর্মকর্তাদের মৌখিকভাবে বলা হয়েছে তারা যেন রাবার বাগানের মালিকদের অহেতুক হয়রানি না করেন। কিন্তু আমরা খবর পাচ্ছি, তারা হরহামেশাই বাগানে হানা দিচ্ছেন। অনেক মালিক এ নিয়ে কোনো বাক-বিতণ্ডায় না গিয়ে অর্থও পরিশোধ করছেন। অনেকটা বাধ্য হয়েই মালিকরা এই টাকা দিচ্ছেন।

 

সূত্র বলছে, ১৯৫২ সাল থেকে বাংলাদেশে রাবার চাষের প্রক্রিয়া শুরু হয় চট্টগ্রাম ও টাঙ্গাইল এলাকায়। পরবর্তীতে সুফল পাওয়া গেলে প্রথমে সরকারি এবং আশির দশকে ব্যক্তি উদ্যোগে এদেশে রাবার চাষ শুরু হয়। বর্তমানে বাংলাদেশে রাবারের বার্ষিক মোট চাহিদা ৩৫ হাজার টন। আর দেশের মোট উৎপাদন ২৫ হাজার টন। আর দেশে আমদানি ২০ হাজার টন আমদানি করা হয়। কারণ দেশে উৎপাদিত কিছু রাবার শিট আবার ভারত, ভিয়েতনাম ও মালয়েশিয়ায় রপ্তানি হয়।

 

রাবার বাগান মালিক ও বাংলাদেশ রাবার বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাংলাদেশের মতো বিগত বছরগুলোতে ভারত, ভিয়েতনাম আর মালয়েশিয়াও ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। তবে তাদের দেশে রাবার একটি কৃষি পণ্য হিসেবে স্বীকৃত। তাই বাংলাদেশের রাবার বাগান মালিকদের দাবি, এদেশেও এটিকে কৃষিপণ্য হিসেবেই স্বীকৃতি দেওয়া হোক।

 

বাংলাদেশ রাবার বাগান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাইফ উল্লাহ মনসুর বলেন, উৎপাদিত কৃষিপণ্যে কর আরোপের সুযোগ নেই। কিন্তু রাবার যখন শিল্পপণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পায় তখন শিল্পের অন্যান্য উৎপাদনের মতোই রাবার উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে একাধিক কর দেওয়ার বাধ্যবাধকতা তৈরি হয়েছে।

তবে বাংলাদেশ রাবার বোর্ডের চেয়ারম্যান সৈয়দা সারওয়ার জাহান বলেন, রাবার বাগান ও রাবার উৎপাদন এখন বন মন্ত্রনালয়ের অধীনে রয়েছে। কারণ রাবারের বিষয়টি বন মন্ত্রনালয়ের সঙ্গেই বেশি সম্পৃক্ত। রাবার গাছের কষ থেকে রাবার উৎপাদনের চেয়েও কার্বন গ্রহণ, অক্সিজেন উৎপাদন এবং পরবর্তীতে উন্নত আসবাবপত্র তৈরির ক্ষেত্রে রাবার গাছের ভূমিকা অনেক বেশি।

 

করারোপের ব্যাপারে তিনি বলেন, সরকার চাইলে রাবার উৎপাদনকারীদের কাছ থেকে মুসক কমানো যেতে পারে। অথবা দেশীয় পণ্য উৎপাদনকারীদের সুরক্ষা দিতে আমদানি শুল্ক বাড়ানো যেতে পারে। ২০১৬ সালে একবার মুসক কমানো হয়েছিল যা পরে আবার বাড়ানো হয়।

 

বর্তমান সরকার ক্ষমতাসীন হবার পর ২০১৩ সালের ৫ মে রাবার বোর্ড গঠন করে। একাধিক বাগান মালিক বলেন, বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং অন্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে মনে হলো তারা আমাদের অভিভাবকের ভূমিকা নিতে চান। আমরাও তাতে সন্তুষ্ট। আমরা চাই রাবার বোর্ড আমারে বহুমূখী করারোপের চাপ থেকে মুক্ত করুক।

 

মোমিনুল হক চৌধুরী নামের একজন রাবার বাগানের মালিক বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারি আমার নামে বরাদ্দ বাগানের জমি খুঁজে পেতেই ১৭ বছর লেগে যায়। কক্সবাজারের ঈঁদগা থেকে প্রতিদিন চারঘন্টা হেঁটে বাগানে পৌঁছতে হতো। সেই জায়গা এখন আমরা আবাদ করায় রাস্তাঘাট তৈরী হয়েছে। আমরা যখন পতিত জমিকে রাবার বাগানে পরিণত করেছি এবং এটি যখন সম্ভাবনাময় খাতে পরিণত হয়েছে, তখনই কর বিভাগের লোকজন বাগানে হানা দেওয়া শুরু করেছেন। ১৯৮০ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের পতিত ভূমি রাবার বাগানের জন্য ইজারা দেওয়া হয়। প্রতি মালিককে ২৫ একর করে ভূমি বরাদ্দ দেওয়া হয়।

 

রাবারকে ঘোষণা করা হয় একটি কৃষিপণ্য। পাহাড়ি মানুষের কর্মসংস্থান, ওই এলাকায় মানুষের বসবাস এবং বনায়নের জন্য কৃষিব্যাংক ঋন দেওয়ার সম্ভাবনাও তৈরি হয়। কিন্তু দুই দশক আগে রাবারকে কৃষিপণ্য থেকে কাগজে কলমে শিল্পপণ্যে রূপান্তরের পর কৃষিব্যাংকের ঋন দেওয়া বন্ধ হয়ে যায়। বাংলাদেশ রাবার বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, সরকারী-বেসরকারী বড় ও ছোট বাগান মিলে দেশে প্রায় একলাখ একর জমিতে রাবার চাষ হচ্ছে।

 

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট