চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ৫:৪৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘বিশ্ব ফুসফুস দিবস’ উপলক্ষে বিএলএফ’র অনুষ্ঠানে বক্তারা

আন্তর্জাতিক উদ্যোগেই সম্ভব শ্বাসতন্ত্রের সুস্থতা

কোন জনগোষ্ঠীই ফুসফুসজনিত (বক্ষব্যাধি) রোগের প্রকোপ থেকে মুক্ত নয়। কারণ আমরা সকলে একই বাতাসে শ্বাস গ্রহণ করি। ফলে এককভাবে কোন ব্যক্তি, সংগঠন বা দেশের পক্ষে এই সমস্যার মোকাবেলা করা সম্ভব নয়। সাম্প্রতিক কোভিড-১৯ সংক্রমণের বৈশ্বিক মহামারী বক্ষব্যাধির ব্যাপকতার এক ভয়াবহ চিত্র আমাদের সামনে তুলে ধরেছে। তাই একটি আন্তর্জাতিক উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি করেই কেবল শ্বাসতন্ত্রের সুস্থতা নিশ্চিত করা যেতে পারে। যার মূল উদ্দেশ্য হবে- উন্নততর রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা, চিকিৎসাসেবা, জনসচেতনতা এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণার বিশ্বব্যাপী সমন্বয়।
গতকাল (রবিবার) রাজধানীর ঢাকা ক্লাবের স্যামসন চৌধুরী সেন্টারে ‘বিশ্ব ফুসফুস দিবস’ উপলক্ষে বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন (বিএলএফ) আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএলএফ-এর সভাপতি প্রথিতযশা বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক মো. আলী হোসেন। এতে অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের চিকিৎসক এবং বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞগণ।
সূচনা বক্তব্য পেশ করেন বিএলএফ’র কোষাধ্যক্ষ ডা. আবদুস শাকুর খান। ‘মহামারী পরবর্তী বক্ষব্যাধি পরিস্থিতি’ শীর্ষক মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএলএফ’র মহাসচিব ডা. আসিফ মুজতবা মাহমুদ। অনুষ্ঠানে বিএলএফ কর্তৃক নিয়মিতভাবে পরিচালিত ‘ওয়ার্কশপ অন চেস্ট ইমেজিং’ এবং ‘ইন্টারেক্টিভ কোর্স অন প্রডিউসার্স এন্ড প্রাক্টিস ইন পুলমনোলোজি’ নামক দুটি কর্মশালার সফল অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে অভিনন্দনপত্র বিতরণ করা হয়। সমগ্র অনুষ্ঠানের বৈজ্ঞানিক সহযোগী হিসাবে সার্বিক সহায়তা করেন খ্যাতিমান ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো ফার্মা লিমিটেড।
উল্লেখ্য, সমন্বিতভাবে বক্ষব্যাধি নিরাময়ের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দেশের বক্ষব্যাধি সংগঠনগুলোর আন্তঃমহাদেশীয় উদ্যোগে গঠিত সংগঠন ‘ফোরাম অব ইন্টারন্যাশনাল রেসপিরাটরি সোসাইটিস’ (এফআইআরএস) ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো প্রতি বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর ‘বিশ্ব ফুসফুস দিবস’ পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। আন্তর্জাতিক এ সংগঠনের সূচনা লগ্নে ঘোষিত ‘চার্টার ফর লাং হেলথ’-এ স্বাক্ষর প্রদানকারী বাংলাদেশ থেকে একমাত্র সংগঠন হিসেবে যুক্ত হয় বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন। যা বিশ্বের অন্যান্য দেশেও সুপরিচিত একটি সংগঠন।
প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন (বিএলএফ) বাংলাদেশের বক্ষব্যাধি চিকিৎসকদের সর্ববৃহৎ এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান। যা বিগত ১৫ বছর ধরে শ্বাসতন্ত্রের সুস্থতা নিশ্চিতকরণের জন্য কাজ করে আসছে। বিএলএফ ‘এশিয়া-প্যাসিফিক সোসাইটি অব রেসপাইরোলজি’ (এপিএসআর)-এর সম্মানজনক এন-ব্লক মেম্বার।
অনুষ্ঠানের সবচেয়ে আকর্ষণীয় পর্ব ছিলো ‘বিএলএফ থিম সং’-এর সাড়ম্বর উদ্বোধন। সঙ্গীতটি নির্মাণে সার্বিক তত্ত্বাবধান করেছেন বাংলাদেশের সঙ্গীত-জগতের জীবন্ত কিংবদন্তি ফেরদৌস ওয়াহিদ। গানের কথা লিখেছেন বিএলএফ’র যুগ্ম সম্পাদক ডা. কাজী সাইফউদ্দীন বেন্নুর। সুর সংযোজনায় সহযোগিতা করেছেন জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী হাবীব ওয়াহিদ। মূল কণ্ঠ দিয়েছেন ফেরদৌস ওয়াহিদ এবং মিষ্টকণ্ঠী গায়িকা ন্যান্সি। মিউজিক ভিডিওতে উৎসাহমূলক বক্তব্য রেখেছেন স্বনামধন্য অভিনেতা জাহিদ হাসান।
বিএলএফ আশা করে, এই থিম সং শ্বাসতন্ত্রের সুস্থতায় নিয়োজিত প্রতিটি যোদ্ধাকে প্রতিনিয়ত উদ্দীপ্ত করবে। এছাড়া সঙ্গীতটি বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশনের সকল ধরনের কার্যক্রম এবং বক্ষব্যাধি রোগ প্রতিরোধে উদ্বুদ্ধকরণমূলক কর্মসূচিতে দিশারী হিসাবে ভূমিকা পালন করবে।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট