চট্টগ্রাম রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১১:২০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজ মহালয়া, শুরু হল দুর্গাপূজার ক্ষণগণনা

শারদীয় দুর্গোৎসবের পূণ্যলগ্ন শুভ মহালয়া আজ। নীল আকাশে ধবধবে সাদা মেঘের ভেলার সাথে ভোরের মিস্টি শিশিরের পরশ এবং শিউলি ফুলের গন্ধ আগেই জানান দিয়েছে, আসছে দুর্গাপূজা। সনাতনী সম্প্রদায়ের অপেক্ষার প্রহর শেষ। সূর্যের প্রথম আলোক রশ্মি শিশির বিন্দুকে স্পর্শ করার আগেই শুরু হবে মহালয়ার ক্ষণ। শঙ্খের ধ্বনি আর চণ্ডী পাঠে দেবী দুর্গাকে মর্ত্যে আমন্ত্রণ জানানো হবে।

মহালয়া শব্দটির অর্থ মহান আলয় বা আশ্রম। এক্ষেত্রে দেবী দুর্গাই হলেন সেই মহান আলয়। পিতৃপক্ষের অবসান, দেবীপক্ষের সূচনার সন্ধিক্ষণেই পালিত হয় মহালয়া। মহালয়ার মাধ্যমে দেবী দুর্গা আজ পা রেখেছেন মর্ত্যলোকে। হিমালয়ের কৈলাশ থেকে সুদূর পথ পাড়ি দিয়ে প্রতিবছরের মতো এবারও দুর্গা দেবী আসবেন বাবার বাড়িতে। সঙ্গে নিয়ে আসবেন গণেশ, কার্তিক, লক্ষ্মী আর সরস্বতীকে।

এবার দেবী দুর্গার আগমন হবে গজে। অর্থাৎ হস্তিতে চড়ে মা দুর্গা পা রাখবেন মর্ত্য। শাস্ত্র মতে, গজে দেবীর আগমনে শস্যপূর্ণ বসুন্ধরা দেখা যায়। অর্থাৎ চারিদিকে শস্যের উৎপাদন বেড়ে সুখ, সমৃদ্ধি, ও শুভ ফল আসবে। পুরাণ মতে, ব্রহ্মার বরে মহিষাসুর অমর হয়ে উঠেছিলেন। শুধুমাত্র কোনও নারীশক্তির কাছে তার পরাজয় নিশ্চিত।

অসুরদের অত্যাচারে যখন দেবতারা অতিষ্ঠ, তখন ত্রিশক্তি ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও মহেশ্বর নারীশক্তির সৃষ্টি করেন। তিনিই মহামায়া রূপী দেবী দুর্গা। দেবতাদের দেওয়া অস্ত্র দিয়ে মহিষাসুরকে বধ করেন দুর্গা। এই জন্যেই এই উৎসব খারাপ শক্তির বিনাশ করে শুভশক্তির বিজয়। মহালয়ার দিনে শুরু হয় দেবী প্রতিমার চক্ষুদান পর্বও। মহালয়া উপলক্ষে মণ্ডপে মণ্ডপে অনুষ্ঠিত হবে চণ্ডীপাঠ ও চণ্ডীপূজা। মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে নগরীর জে এম সেন হলে রয়েছে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা।

পুজা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল সেন উজ্জ্বল জানান, সকাল ৯টায় মহালয়া পূজা আরম্ভ, বিকাল ৩টায় চণ্ডীপাঠ, ৪টায় জাতীয় ও পরিষদের পতাকা উত্তোলন এবং মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বালন, সন্ধ্যা ৬টায় ধর্মীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ‘আগমনী’, ৭টায় আলোচনা সভা, রাত ৮টায় গীতিনৃত্য নাট্য ‘ষা চণ্ডী’। আলোচনা সভায় উদ্বোধক থাকবেন কৈবল্যধামের মোহন্ত মহারাজ শ্রীমৎ কালীপদ ভট্টাচার্য্য। প্রধান অতিথি থাকবেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান। প্রধান বক্তা থাকবেন দৈনিক ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত।

বিশেষ অতিথি থাকবেন হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টী উত্তম কুমার শর্মা, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস ও সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে বোয়ালখালী উপজেলার কড়লডেঙ্গা পাহাড়ের মেধস মুনির আশ্রমে সকালে চণ্ডীপাঠের মাধ্যমে মা দুর্গাকে মর্ত্যধামে আহবান করা হবে। সকাল ৮টায় চণ্ডী পূজার মাধ্যমে শুরু হবে দিনের অনুষ্ঠান। এরপর সংগীতানুষ্ঠান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শ্যামল কুমার পালিত বলেন, পরিষদের পক্ষ থেকে মেধস আশ্রমে যাওয়ার জন্য রাখা হয়েছে গাড়ির ব্যবস্থা। আগ্রহী ভক্তরা সকাল ৮টার মধ্যে আন্দরকিল্লা মোড় থেকে গাড়িতে উঠতে পারবেন। এদিকে মহালয়া ও অমাবস্যা পূজা উপলক্ষে নগরীর গোলপাহাড় মহাশ্মশান পরিচালনা পরিষদের অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে, চণ্ডী পাঠ, সংগীতানুষ্ঠান, অমাবস্যা কালী পূজা, ও অন্নপ্রসাদ বিতরণ।

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট