চট্টগ্রাম বুধবার, ০৬ জুলাই, ২০২২

সর্বশেষ:

২০ মে, ২০২২ | ১:১২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভোটার হালনাগাদ শুরু আজ থেকে

সারাদেশের সঙ্গে আজ থেকে (২০ মে) একযোগে শুরু হচ্ছে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম। চট্টগ্রামে ২১ উপজেলা ও থানায় ধাপে ধাপে হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। প্রথম ধাপে হবে ৬ উপজেলার হালনাগাদ কার্যক্রম। ১৮ বছর বয়সী ভোটারযোগ্য নাগরিক ছাড়াও ১৬ ও ১৭ বছরের নাগরিকদেরও তথ্য সংগ্রহ করা হবে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, প্রথম ধাপে জেলার সন্দ্বীপ, সীতাকুণ্ড, কর্ণফুলী, আনোয়ারা, লোহাগাড়া, পটিয়া উপজেলায় হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু হবে। অন্যান্য উপজেলা ও নগরের থানাগুলোতেও ধাপে ধাপে কার্যক্রম চলবে।
এবারের ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা নাগরিকরা যাতে অন্তর্ভুক্ত হতে না পারে, সেজন্য কঠোর নির্দেশনা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। এছাড়াও জনপ্রতিনিধিদেরও রোহিঙ্গা অন্তর্ভুক্তি ঠেকাতে দক্ষিণ চট্টগ্রাম, বান্দরবান, রাঙামাটি ও কক্সবাজারের ৩২ উপজেলাকে বিশেষ এলাকা ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হবে। ভোটারযোগ্য ১৮ বছর নাগরিক ছাড়াও ১৬ ও ১৭ বছর বয়সী নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। ২০০৭ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে জন্মগ্রহণকারীদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। অর্থাৎ ১৬ বছর বয়সীদের তথ্যও নেওয়া হবে। যারা পরে বয়স ১৮ বছর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোটার তালিকায় যুক্ত হবেন। তারা ভোটার তালিকায় যুক্ত হবেন ২০২৪ ও ২০২৫ সালে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহের পর নির্দিষ্ট কেন্দ্রে গিয়ে আঙ্গুলের ছাপ, চোখের আইরিশ ও ছবি তোলা হবে।
নতুন তথ্য সংগ্রহ ছাড়াও হালানাগাদে ভোটার তালিকা থেকে মৃত ভোটারের নাম কাটা ও আবাসস্থল পরিবর্তনের কারণে স্থানান্তরও করা হবে।
নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, প্রথম ধাপে ২০ মে সন্দ্বীপ, সীতাকুণ্ড, কর্ণফুলী, আনোয়ারা, লোহাগাড়া, পটিয়া উপজেলায় তথ্য সংগ্রহ করা হবে। তাদের ছবি তোলা হবে ১০ জুন থেকে। ১৮ জুন থেকে শুরু বোয়ালখালী, রাউজান ও হাটহাজারী উপজেলায়।
নিবন্ধনে যেসব কাগজপত্র জমা নেওয়া হবে : নিবন্ধনের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির পূরণকৃত নিবন্ধন ফরম-২ এর সঙ্গে অনলাইন জন্মসনদ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) অথবা এসএসসি বা সমমান পরীক্ষা বা যেকোনো পাবলিক পরীক্ষা পাসের সনদের ফটোকপি। মা-বাবার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি। এছাড়াও নাগরিক সনদ, প্রত্যয়নপত্র/ বাড়ি ভাড়া/ হোল্ডিং ট্যাক্স/ যেকোনো ইউটিলিটি বিল পরিশোধের রসিদের কপি জমা দিয়ে নিবন্ধন সম্পন্ন করবেন। এরপর স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে তথ্য যাচাই-বাছাই করে নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে। চট্টগ্রামে বর্তমানে মোট ভোটার সংখ্যা ৫৯ লাখ ৮৯ হাজার ২৩৫ জন। বর্তমানের তুলনায় ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ভোটার বাড়বে ধরে হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। ২০১৯ সালে সর্বশেষ ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হয়।

পূর্বকোণ/এস 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট