চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৭ জুলাই, ২০১৯ | ২:০০ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক

গণমাধ্যমের সমস্যা সমাধানে কাজ করছে সরকার : তথ্যমন্ত্রী

বিগত দশ বছরে গণমাধ্যমে ব্যপক উন্নতি হয়েছে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যমে গত দশ বছরে অনেক বিকাশ ঘটেছে। বিশেষ করে আগের চেয়ে অনেক বেশি উন্নতি হয়েছে ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার। দশ বছর আগে দেশে টেলিভিশন চ্যানেলের সংখ্যা ছিল মাত্র দশটি। কিন্তু বর্তমানে চ্যানেলের সংখ্যা ৩৪টি। সম্প্রচারে আসার অপেক্ষায় আছে আরও বেশ কিছু। শুধু ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াই নয়, গত দশ বছরে প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ারও ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাতে নগরীর ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটে টিভি জার্নালিস্টস্ এসোসিয়েশন চট্টগ্রাম এর নতুন কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও প্রীতি সম্মিলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, টেলিভিশনের সংখ্যা বাড়লেও বাড়েনি আয়ের উৎস। দেশের বিজ্ঞাপনের বড় অংশই এতদিন বিদেশি চ্যানেলে ছিল। এই

অজুহাতে টেলিভিশন মালিকরা তাদের সম্প্রচারের ক্ষেত্রও ছোট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কেউ কেউ। ব্যয় কমাতে প্রায়শই চলে ছাঁটাই প্রক্রিয়া। এসব বিষয়ও নজরে রাখছে সরকার। বর্তমানে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন বন্ধে কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রী। মন্ত্রী বলেন, এই পরিস্থিতিতে দেশের টেলিভিশন শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে বিদেশি চ্যানেলে দেশি বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধ করতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, গণমাধ্যমে অনেক সমস্যা আছে, তা ঠিক। সে সমস্যা সমাধানে কাজ করছে বর্তমান সরকার। দেশের টেলিভিশন শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে সরকার যা যা করার দরকার, তাই করছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, সম্প্রচারের ক্ষেত্রে যে বিশৃঙ্খলা ছিল, তা শৃঙ্খলা আনার জন্য চেষ্টা করছি। বিশেষ করে ক্যাবল নেটওয়ার্কে যে বিশৃঙ্খলা ছিল এতদিন, তা এখন একটি শৃঙ্খলার মধ্যে চলে এসেছে। সামনে আরও কাজ করা হবে।
সবার আগে সংবাদ পরিবেশন করতে গিয়ে, যেন ভুল সংবাদ পরিবেশন না করা হয় সে বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে ড. হাছান মাহমুদ আরও বলেন, বর্তমানে অনলাইন সংবাদমাধ্যমের যে বিকাশ ঘটছে তাতে দেখা যায়, সবার আগে সংবাদ পরিবেশন করতে গিয়ে ভুল তথ্য পরিবেশন করা হয়। যার কারণে অনেক সময় চরিত্রহরণের মতো ঘটনাও ঘটে থাকে। তাই এ বিষয়টি মাথায় রেখে তথ্যসম্বলিত সংবাদ পরিবেশনের আহ্বান জানান তিনি।
টিভি জার্নালিস্টস্ এসোসিয়েশনের সভাপতি নাছির উদ্দিন তোতার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসেম বক্কর, সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান, সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, বিএফইউজের যুগ্ম মহাসচিব মহসিন কাজী, সাংবাদিক শহিদুল আলম, সালাউদ্দিন রেজা, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা প্রমুখ।

The Post Viewed By: 110 People

সম্পর্কিত পোস্ট