চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯

সর্বশেষ:

১৫ জুলাই, ২০১৯ | ৮:৪২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

৮০০০ অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিবন্ধন চায়

সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কার্য অধিবেশন শেষে ডিসি সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ জানিয়েছেন , সরকারের কাছে আট হাজারের বেশি অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধনের জন্য আবেদন জমা পড়েছে। আজ সোমবার (১৫ জুলাই) সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
‘সত্যিকার অর্থে কাজ করতে পারবে’ এমন নিউজ পোর্টালগুলোকেই সরকারের তরফ থেকে রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি ।
তিনি বলেন,“আমরা ইতোমধ্যে সমস্ত অনলাইনগুলোকে রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আনার জন্য দরখাস্ত আহ্বান করেছি। আজকে (সোমবার) দরখাস্ত করার শেষ দিন। এ পর্যন্ত আমাদের কাছে আট হাজারের বেশি দরখাস্ত জমা পড়েছে।আমরা এগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যেগুলোর আসলে প্রয়োজন আছে, যেগুলো অনলাইন হিসেবে সত্যিকার অর্থে কাজ করতে পারবে বা করার সক্ষমতা রাখে বা অন্য কোনো উদ্দেশ্যে দরখাস্ত করা হয়নি সেগুলোকে আমরা রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আনব।”



আট হাজার আবেদন জমা পড়লেও বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে তা কতটুকু যৌক্তিক সেই প্রশ্ন তোলেন তথ্যমন্ত্রী।
নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ করতে কত দিন লাগবে- এ প্রশ্নে হাছান মাহমুদ বলেন, “আট হাজার তো, যাচাই-বাছাই করতে একটু সময় লাগবে। যত দ্রুত সম্ভব, যেগুলো সত্যিকার অর্থে অনলাইন হিসেবে কাজ করে তাদেরকে সহসাই এ রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আনব। যেগুলোর ব্যাপারে ব্যাপক পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন আছে সেগুলোকে তো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে।”
অনলাইন গণমাধ্যমগুলো নিবন্ধনের জন্য গত ৩০ জুন পর্যন্ত আবেদন জমা দেওয়ার সময় বেঁধে দেয় তথ্য মন্ত্রণালয়। পরে আরও ১৫ দিন সময় বাড়ানো হয়।
‘অপসাংবাদিকতা’ রোধে ২০১৫ সালের নভেম্বরে ১৫ সব অনলাইন গণমাধ্যমকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিল সরকার। এরপর আরও বেশ কয়েকবার ওই সময় বাড়ানো হয়।
এর আগে এক সরকারি ভাষ্যে বলা হয়েছিল, “বাংলাদেশের অনলাইন পত্রিকার প্রকাশকদের পত্রিকা প্রকাশের ক্ষেত্রে সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং অপসাংবাদিকতা রোধ করার লক্ষ্যে সরকার নিবন্ধন কার্যক্রম চালু করেছে।”

পূর্বকোণ/তাসফিয়া

The Post Viewed By: 192 People

সম্পর্কিত পোস্ট