চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২১

৫ জানুয়ারি, ২০২১ | ১১:৫৬ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

করোনা মোকাবেলায় দেশে টিকাদানের খসড়া পরিকল্পনা চূড়ান্ত

বাংলাদেশে করোনা মোকাবেলায় জাতীয়ভাবে টিকাদানের খসড়া পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। খসড়াটি মন্ত্রণালয়ে অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে বলে জানা যায়।

অধিদপ্তরের রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর জানান, পরিকল্পনায় স্বাস্থ্যকর্মী এবং স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকা বয়স্ক মানুষদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়া হবে। এই পরিকল্পনাটি অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে এবং এটিতে পরিবর্তন আসতে পারে।

পরিকল্পনাটিতে বলা হয়েছে, টিকা দেয়ার জন্য প্রস্তুতি ও জনবল নিয়োগের মতো কাজ করতে ৮ সপ্তাহ বা দুই মাসের মতো সময় লাগবে।

টিকা কোথা থেকে কেনা হচ্ছে এবং এর উৎসের উপর ভিত্তি করে আমদানির রেজিস্ট্রেশন পেতে আলাদা সময় লাগবে বলে জানানো হয়। এতে বলা হয়, কোভ্যাক্সের টিকার রেজিস্ট্রেশন পেতে ২-৩ দিন এবং অন্যান্য উৎস থেকে টিকা কিনতে বা দেশে টিকা উৎপাদন করা হলে ১২-১৫ দিন সময় লাগবে।

টিকাদান কর্মসূচী পরিকল্পনা, বাস্তবায়ন এবং পর্যবেক্ষণে সহায়তা ও সমন্বয়ের জন্য বাংলাদেশের সরকারের সব পর্যায়ে পরিকল্পনা ও সমন্বয় কমিটি গঠন করা হবে। রোহিঙ্গাদের টিকাদানের ক্ষেত্রে জাতীয় পর্যায়ে একটি আলাদা কমিটি গঠন করা হবে।

সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকাদের অগ্রাধিকার দিয়ে ভ্যাকসিন বন্টন করা হবে। সেক্ষেত্রে প্রথমেই রয়েছে কোভিড-১৯ রোগীদের সেবায় সরাসরি নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মী, সম্মুখ সারিতে থাকা কর্মী এবং রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল যেসব রোগী তারা। দ্বিতীয় ধাপে থাকবে বয়স্ক, স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে এমন বয়স্ক মানুষ, শিক্ষাকর্মী, জনপরিবহনের কর্মীরা।

তিন পর্যায়ে মোট ৫ ধাপে ১৩ কোটি ৮২ লাখ ৪৭ হাজারের বেশি মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে। যার মধ্যে প্রথম পর্যায়ের প্রথম ধাপে ৩ শতাংশ বা ৫১ লাখ ৮৪ হাজার ২৮২ জনকে টিকা দেয়া হবে। দ্বিতীয় ধাপে ৭ শতাংশ বা এক কোটি ২০ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৭ জনকে টিকা দেয়া হবে।

দ্বিতীয় পর্যায়ে একটি ধাপে ১১-২০শতাংশ বা এক কোটি ৭২ লাখ ৮০ হাজারের বেশি মানুষ ভ্যাকসনি পাবেন।

তৃতীয় ও সর্বশেষ পর্যায়ে মোট দুটি ধাপে ভ্যাকসিন দেয়া হবে। এর মধ্যে প্রথম ধাপে ২১-৪০ শতাংশ বা ৩ কোটি ৪৫ লাখ ৬১ হাজারের বেশি এবং দ্বিতীয় ধাপে ৪১-৮০ শতাংশ বা ৬ কোটি ৯১ লাখ ২৩ হাজার মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে।

দুই জন টিকাদানকর্মী ও চার জন স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে মোট ছয় জন করে একেকটি দল তৈরি করা হবে যারা এই টিকাদান কর্মসূচী মাঠপর্যায়ে পরিচালনা করবেন। প্রতিটি দল প্রতিদিন ১০০ থেকে ১৫০ জনকে টিকা দিতে পারবে বলে ধরা হয়েছে।  (সূত্র- বিবিসি বাংলা)

 

পূর্বকোণ/মামুন

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 138 People

সম্পর্কিত পোস্ট