চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

৪ অক্টোবর, ২০২০ | ১:৫৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজ বিশ্ব প্রাণী দিবস

নিরাপদ বাসস্থান হারাচ্ছে পশু-পাখি

বন উজাড়, পশু-পাখি শিকার, উপযুক্ত বাসস্থানের অভাব ও খাবার সংকটের কারণে বাংলাদেশে প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো পশু-পাখি বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এরজন্য দায়ী আমরা। আমরাই পশু-পাখিদের উপযুক্ত জায়গা দিতে পারছি না। এখনি যদি সম্মিলিতভাবে প্রাণী রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি সকলে এগিয়ে না আসি তবে খুব শীঘ্রই পরিবেশ মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে। যা আমাদের পরিবেশের জন্য খুবই ভয়াবহ হয়ে উঠবে। কারণ প্রাণী পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। এছাড়া পশু-পাখির উপযুক্ত বাসস্থানের জন্য এখনি নতুনভাবে কিছু অভয়ারণ্য তৈরি করা দরকার। এবিষয়ে বন গবেষণা কেন্দ্রকে উদ্যোগ নিতে হবে। কথাগুলো বলছিলেন চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার চিকিৎসক ও ডেপুটি কিউরেটরের দায়িত্বে থাকা শাহাদাত হোসেন শুভ। আজ বিশ্ব প্রাণী দিবস। প্রাণীর অধিকার রক্ষা ও কল্যাণার্থে প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী ৪ অক্টোবর দিবসটি পালন করা হয়। প্রাণীরা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় আবশ্যক ভূমিকা পালন করে। তাই প্রাণী রক্ষায় আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। প্রাণী হিসেবে তাদের যে বেঁচে থাকার অধিকার সে অধিকার নিশ্চিতে জনসচেতনতার উদ্দেশে ১৯৩১ সালে ইতালির ফ্লোরেন্স শহরে পরিবেশ বিজ্ঞানীদের এক সম্মেলনে ৪ অক্টোবর বিশ্ব প্রাণী দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। যুক্তরাজ্যভিত্তিক ন্যাচার ওয়াচ ফাউন্ডেশন প্রথম দিবসটি পালন করেন। এ ছাড়াও দেশে দেশে প্রাণী কল্যাণমূলক সংস্থা দিবসটি পালন করে।
তিন থেকে চার বছর আগেও চট্টগ্রামের চিড়িয়াখানায় হাতেগোনা কয়েকটি পশু-পাখি ছিল। কিন্তু বর্তমানে সম্পূর্ণ নতুন রূপে ৬৪ প্রজাতির ৬২০টি পশু-পাখি সংরক্ষণ করেছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।
একটি বেসরকারি তথ্য মতে বাংলাদেশে প্রায় ৭৪৪ প্রজাতির পাখি ছিল। কিন্তু বর্তমানে এটি কমে আছে প্রায় ৫শ’ প্রজাতির পাখি। এরমধ্যে ৩০ প্রজাতির অতিথি পাখি রয়েছে।
একটি অসম্পূর্ণ প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে আরেকটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে বাংলাদেশের প্রাণীজগতে প্রায় ১৬০০ প্রজাতির মেরুদণ্ডী প্রাণী এবং প্রায় ১০০০ প্রজাতির অমেরুদণ্ডী প্রাণী রয়েছে।
এছাড়া বর্তমানে বাংলাদেশে শুধু এক প্রজাতির বাঘ দেখা যায়। সাদা ডোরাকাটা রয়েল বেঙ্গল টাইগার। বাকি প্রজাতির বাঘ এখন বিলুপ্ত হয়ে গেছে। বাঘের উপপ্রজাতির মধ্যে বেঙ্গল টাইগারের সংখ্যাই সর্বাধিক এবং সাইবেরীয় বাঘের পর এই প্রজাতির দ্বিতীয় বৃহত্তম বাঘ। এই বাঘ বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় পশু। বাংলাদেশের ২০১২ সালের বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন অনুযায়ী এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত। বেঙ্গল টাইগারের একটি বর্ণসংকর প্রজাতি হচ্ছে সাদা বাঘ। সাদা বাঘ এখন আর বুনো অবস্থায় নেই। এটি চিড়িয়াখানায় সংরক্ষিত।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 198 People

সম্পর্কিত পোস্ট