চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

২৩ নভেম্বর, ২০১৯ | ৫:১৯ পূর্বাহ্ন

মো. দেলোয়ার হোসেন

ফুলকি’তে সংগীতানুষ্ঠান

গান ভালোবাসে না, এমন লোকের সংখ্যা খুবই নগণ্য। যারা গান ভালোবাসে না, তাদের মধ্যে প্রেম-ভালবাসারও অপূর্ণতা থেকে যায়। এমন মন্তব্য করেছেন অনেক বিজ্ঞজন। মানুষের দেহের খোরাক যেমন খাবার, তেমনি মনের খোরাক হচ্ছে গান। আর সে গান যদি নিজের জীবন কথার সাথে মিলে যায়, তাহলে তো আর কথাই নেই। এমন কিছু পছন্দনীয় গান নিয়ে চট্টগ্রামের এ প্রজন্মের ১০ জন শিল্পী তাদের পরিবেশনা দিয়ে মোহিত করেছিলেন হল ভর্তি দর্শক- শ্রোতাদের। চট্টগ্রাম জজ আদালতের আইনজীবী শুভাগত চৌধুরীর সংগঠন সুরধারা’র আয়োজনে, শৈশব ও চন্দনাইশ সংগীত নিকেতনের সার্বিক সহযোগিতায় গত ২৬ সেপ্টেম্বর নগরীর ডি সি হিল সংলগ্ন ফুলকি’র এ কে খান মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সংগীতানুষ্ঠান।
অনুষ্ঠানের শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এড. মুজিবুল হক। পরপর সংবর্ধিত অতিথি শিল্পী মহাদেব ঘোষকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। তার অনুভূতি প্রকাশের পর আলোচনায় অংশ নেন, ফুলকি’র অধ্যক্ষ শীলা মোমেন। সমাপনী বক্তব্য রাখেন, সিনিয়র সহকারি জজ ইসরাত জাহান পুনম। আলোচনা শেষে প্রথমে গান নিয়ে মঞ্চে আসেন এ প্রজন্মের শিল্পী সীমা পাল-তিনি গাইলেন, ‘সেই ভালো সেই ভালো, নিত্য তোমার যে’। এরপরে রূপা দত্ত গাইলেন, ‘আমারে কর, কার মিলন চাও’। শ্যামলী পাল পরপর ২টি গান করলেন, ‘তোমরা যা বলো, তুমি মোর পাও নাই পরিচয়’। দর্শকদের নীরবতার মাঝে মঞ্চে আসলেন শিউলী নাথ। গাইলেন ‘পিয়া পিয়া পিয়া কে ডাকে আমায়’। অর্পিতা দাশ পরিবেশন করলেন, ‘বনলতা ফুলে ফুলে’। সুমিত্রা বিশ্বাস গেয়ে উঠলেন, ‘নিঝুম সন্ধ্যায় পাখিরা গান গায়’। এড. সুচিত্রা লালা মুন্নি গাইলেন, ‘না যেও না’। এড. অসীম শর্মা দর্শকদের অনুরোধে পরিবেশন করলেন, ‘এ নদী এমন নদী’। পর পর মঞ্চে আসলেন, এপার-ওপার বাংলার স্বনামধন্য রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী এড. শুভাগত চৌধুরী পরিবেশন করলেন, ‘অলির কথা শোনে, এত সুর এত গান’। এরপর মঞ্চে আসলেন, সংবর্ধিত অতিথি শিল্পী মহাদেব ঘোষ। তিনি পরপর ১১টি গান পরিবেশন করে উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের মুগ্ধ করলেন। ‘চরণ ধরিতে দিয়োগো আমারে’ গানটি দিয়ে তার পরিবেশনা শুরু করেন। একে একে গাইলেন, নহ মাতা, নহ কন্যা, আমার মন মানে না, মাঝে মাঝে তব দেখা পায়, আমার পরান যাহা চায়, তুমি কেবলই ছবি, তুই ফেলে এসেছিস কারে, ভালোবেসে সখি নিভৃত যতনে, আগুনের পরশমণি, সুরের আকাশে তুমি কি গো শুকতারা।
সবশেষে দর্শক শ্রোতাদের অনুরোধে গাইলেন ভারতীয় আধুনিক গান- ‘আমি দূর হতে তোমারেই দেখেছি’। দীর্ঘ ২ঘণ্টাকাল ব্যাপী সংগীতানুষ্ঠানটি ছিল দর্শক-শ্রোতাদের জন্য মনোমুগ্ধকর। “আমরা আসছি আপনাদের ভাল লাগার কিছু গান নিয়ে” শিরোনামে সংগীতানুষ্ঠানে যন্ত্র সংগীতে-কীবোর্ডে- নিখিলেশ বড়–য়া, তবলায়-প্রীতম আচার্য্য, বাঁশিতে-প্রাণেশ্বর ভট্টাচার্য্য, অক্টোপ্যাডে-রনি চৌধুরী।

The Post Viewed By: 17 People

সম্পর্কিত পোস্ট