চট্টগ্রাম বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

২৩ জানুয়ারি, ২০২০ | ৪:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক হ ঢাকা অফিস

আইসিজে’র দিকে তাকিয়ে গোটা বিশ্ব

রাখাইনে গণহত্যার অন্তর্বর্তী আদেশ আজ

মিয়ানমারের সরকার এবং সামরিক বাহিনী রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর গণহত্যা, লুন্ঠন ও ধর্ষণ চালিয়েছে, গাম্বিয়ার এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে নেদারল্যান্ডের হেগে অবস্থিত জাতিসংঘের সর্বোচ্চ বিচার আদালত আর্ন্তজাতিক ন্যায়বিচার আদালতে (আইসিজে) শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ডিসেম্বরে। আইসিজে’র ১৭ জন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত বিচারিক দলের পক্ষে আদালতের প্রেসিডেন্ট বিচারক আব্দুলকাওয়ী আহমেদ ইউসুফ আজ বৃহস্পতিবার (বাংলাদেশ সময় দুপুর ৩টা) অর্ন্তবর্তী আদেশ ঘোষণা করবেন। আইসিজে’র এই অর্ন্তবর্তী আদেশের দিকে তাকিয়ে আছে গোটা বিশ্ব, যেনো গণহত্যার বিরুদ্ধে মানবতার জয় হয়।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, আশা করছি, আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলার রায়ে রোহিঙ্গারা ন্যায়বিচার পাবে।
আইসিজে এক বার্তায় জানিয়েছে, গত ১১ নভেম্বর গাম্বিয়া মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানোর তথ্য উত্থাপন করে এবং গাম্বিয়া মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আর্ন্তজাতিক গণহত্যা প্রতিরোধ বিয়ষক কনভেনশন লঙ্ঘণের অভিযোগ এনে ন্যায় বিচার চেয়েছে। পাশাপাশি গণহত্যা বন্ধের জন্য আদালতের কাছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অন্তবর্তী (৬টি) আদেশ চেয়েছে গাম্বিয়া।

মামলার নথি থেকে জানা গেছে, আসিজে’র কাছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ৬টি বিষয়ে অর্ন্তবর্তী আদেশ চেয়েছে গাম্বিয়া। যার মধ্যে রয়েছে- ১, রোহিঙ্গা গণহত্যা, নির্যাতন ও নিপীড়ন বন্ধে সুরক্ষার ব্যবস্থা করা। ২. মিয়ানমারের সেনাবাহিনীসহ সকল সশস্ত্র বাহিনী ও সংগঠনকে গণহত্যার ষড়যন্ত্র থেকে নিবৃত্ত রাখা। ৩. গণহত্যার আলামত নষ্ট না করতে পদক্ষেপ নেয়া। ৪. মিয়ানমারে চলমান পরিস্থিতির আরো অবনতি যাতে না ঘটে, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া। ৫. রোহিঙ্গা গণহত্যা, নির্যাতন এবং নিপিরন বন্ধে আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়নের বিষয়ে মিয়ানমার এবং গাম্বিয়া চারমাসের মধ্যে আইসিজে’তে প্রতিবেদন পেশের ব্যবস্থা করা। ৬. বস্তুনিষ্ঠ তদন্তের স্বার্থে জাতিসংঘসহ আর্ন্তজাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের মিয়ানমারের রাখাইনসহ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে গণহত্যা চালানো স্থানগুলো পরিদর্শনের অনুমতি দেয়া।
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, কৌশলগত কারণে বাংলাদেশ অনেক আগে থেকেই গাম্বিয়াকে সহযোগিতা করছে। ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) একাধিক বৈঠকেও এই বিষয়ে আলোচনা হয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আইসিজি’তে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলার শুনানিকালে গাম্বিয়াকে সহায়তা দিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিবের নেতৃত্বে ঢাকা থেকে একটি দল নেদারল্যান্ডের হেগে গিয়েছিল। আজ বৃহস্পতিবারের অর্ন্তবর্তী আদেশের দিনেও ঢাকার একটি প্রতিনিধদল হেগে উপস্থিত থাকবে। এ ছাড়া, সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টডিজ ‘আইসিজে রুলিং অন দি প্রভিশনাল মেজারস অন রোহিঙ্গা জেনোসাইড’ শীর্ষক ঢাকার একটি অভিজাত হোটেলে প্যানেল ডিসকাশনের আয়োজন করেছে। যা অর্ন্তবর্তী আদেশ ঘোষণার পর অনুষ্ঠিত হবে। ওই আলোচনায় পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

The Post Viewed By: 57 People

সম্পর্কিত পোস্ট