চট্টগ্রাম শনিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২১

১৬ মে, ২০১৯ | ২:৩৬ অপরাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

কার হাতে যাবে সুন্দরবনের রাজত্ব?

গত দুবারের সুন্দরবনের রাজা কী এবারও পারবেন জিততে, নাকি রাজা বদলাবে বনের? এমনই প্রশ্ন এখন্ মথুরাপুরবাসীদের মনে। ভারতের লোকসভা নির্বাচনে গত দুবার সুন্দরবন অঞ্চলের মথুরাপুর আসনে দোর্দণ্ড প্রতাপে জিতেছেন তৃণমূলের চৌধুরী মোহন জাটুয়া।

আসনটি এবারও তিনি ধরে রাখতে পারবেন কিনা, উত্তর মিলবে ২৩ মে।

বিজ্ঞাপন

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ৫৪৩ আসনের ভোট গ্রহণ এখন শেষ পর্যায়ে। সাত দফার এই নির্বাচনের শেষ দফার ভোট বাকি রয়েছে। ১৯ মে এই শেষ দফার ভোট নেয়া হবে। ভারতের আটটি রাজ্যের ৫৯টি আসনে নির্বাচন হবে ওইদিন। পশ্চিমবঙ্গের নয়টি আসনেও ওই দিন ভোট নেওয়া হবে। এর মধ্যে রয়েছে সুন্দরবন অঞ্চলের তপসিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত মথুরাপুর আসনও।

এই মথুরাপুর আসনটি মূলত পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন অঞ্চলের সাতটি বিধানসভা আসন নিয়ে গঠিত। এই মথুরাপুর আসনের বর্তমান সাংসদ হলেন তৃণমূলের ৮০ বছর বয়সী চৌধুরী মোহন জাটুয়া। ২০১৪ সালে তিনি সিপিএম প্রার্থী রিংকি নস্করকে পরাজিত করেন। আর ২০০৯ সালে জাটুয়া পরাজিত করেছিলেন সিপিএম প্রার্থী অনিমেষ নস্করকে। দুবারের বিজয়ী চৌধুরী মোহন জাটুয়া মাঠে নেমেছেন তৃণমূলের টিকিট নিয়েই। এবার এই আসনে পশ্চিমবঙ্গের চার বৃহৎ দল তৃণমূল কংগ্রেস, বিজেপি, বামফ্রন্ট এবং জাতীয় কংগ্রেসের প্রার্থীরা মাঠে নেমে প্রচারে ঝড় তুলেছেন। জয়ের ব্যাপারে চার দলই এবার আশাবাদী।

চৌধুরী মোহন জাটুয়া কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকারের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের মন্ত্রিসভার তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। ২০০১ সালে তিনি এই অঞ্চলের মন্দিরবাজার বিধানসভা আসন থেকে বিধায়ক হয়েছিলেন। তিনি এই রাজ্যের পুলিশের সাবেক অতিরিক্ত আইজি ছিলেন।

মথুরাপুর আসনে এবার বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন শ্যামা প্রসাদ হালদার। বামফ্রন্টের শরিক দল সিপিএম এই আসনে প্রার্থী করেছে দলীয় নেতা শরৎ হালদারকে। আর কংগ্রেস প্রার্থী করেছে কৃত্তিবাস সর্দারকে। সিপিএমের প্রার্থী শরৎ হালদার বলেছেন, সুন্দরবন একসময় বামদের ঘাঁটি ছিল। এরপর তা দখল করে তৃণমূল। মানুষ তৃণমূলের অত্যাচার দেখেছে। তাই এবার মানুষ পরিবর্তন চাইছে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 263 People

সম্পর্কিত পোস্ট