চট্টগ্রাম বুধবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২০

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৩:০২ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা অফিস

রোহিঙ্গা গণহত্যা নিয়ে আইসিজে-তে শুনানি

মিয়ানমারে গণহত্যা বন্ধ করুন

অন্তর্বর্তীকালীন পদক্ষেপ চায় গাম্বিয়া আদালতে নির্বিকার সু চি ফেসবুকে ‘ফেক রেপ’ পেজ

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জাতিগত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে দেশটির সামরিক বাহিনীর গণহত্যার ঘটনায় হেগের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়ার করা মামলার শুনানি শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার প্রথম দিনে বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টায় শুরু হয়ে এই শুনানি চলেছে সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিট পর্যন্ত। হেগের আদালতে এ মামলার শুনানি চলবে আগামী ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তিন ঘণ্টার কিছু বেশি সময় ধরে চলা এই শুনানিতে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের কাছে মিয়ানমারের রাখাইনে সংঘটিত রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংস গণহত্যা, ধর্ষণ, জ্বালাও-পোড়াওয়ের চিত্র তুলে ধরেন মামলার বাদি গাম্বিয়ার আইনজীবীরা। এ সময় প্রোজেক্টরে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের চালানো নৃশংসতার সচিত্র উপস্থাপন করা হয়। গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আইসিজেতে দায়েরকৃত মামলার শুনানির শুরুতে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্বোধ হত্যাকা- বন্ধে দেশটির প্রতি আহ্বান জানান গাম্বিয়ার আইন ও বিচারমন্ত্রী আবুবকর মারি তামাবাদু। শুনানির শুরুতেই আইসিজের প্রধান বিচারপতি আবদুল কোয়াই আহমেদ ইউসুফের উদ্দেশে তিনি বলেন, গাম্বিয়া যা বলছে তা হল, আপনি এখনই মিয়ানমারকে এই নির্বোধ হত্যাকা- বন্ধ করতে বলুন।

আদালতে যুক্তরাষ্ট্রের আইনজীবী তাফাদজ পাসিপান্দো বলেন, রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণের কথা অস্বীকার করতে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি কৌশল অবলম্বন করেছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ‘ফেক রেপ’ নামে একটি পেজ খোলা হয়; এ পেজের নিয়ন্ত্রণ করছে স্টেট কাউন্সিলরের দফতর। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নারীদের গণধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু সু চি বলেছেন, সেনাবাহিনী এবং বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীর কেউ নোংরা বাঙালি মেয়েদের স্পর্শ করবে না। কারণ তারা আকর্ষণীয় নয়। তার আগে মামলার শুনানির শুরুতে গাম্বিয়ার আইন ও বিচারমন্ত্রী আবুবকর মারি তামাবাদু বলেন, বর্বর এবং নৃশংস এসব কাজ; যা আমাদের সবার বিবেককে আঘাত করেছে। এটি এখনও অব্যাহত রয়েছে। মিয়ানমারকে নিজ দেশের মানুষ হত্যা বন্ধ করতে হবে।

দেশটির আইনজীবীরা আন্তর্জাতিক এই আদালতে রাখাইনে গণধর্ষণ, রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর পোড়ানো, শত শত রোহিঙ্গা মুসলিম শিশুকে ছুরিকাঘাতে হত্যার কথা উল্লেখ করে বলেন, এগুলো গণহত্যার আলামত। আদালত কক্ষে গাম্বিয়ার আইনজীবী দলের সদস্যরা যখন মিয়ানমারের নৃশংসতার চিত্র তুলে ধরেন তখন নির্বিকার দেখা যায় অং সান সু চিকে। এ সময় আদালতের বাইরে কয়েক ডজন রোহিঙ্গা ন্যায়বিচারের দাবিতে সমাবেশ করেন। একই সময় মিয়ানমারের বাণিজ্যিক রাজধানী খ্যাত ইয়াঙ্গুনে সু চির সমর্থনে হাজার হাজার মানুষ সমাবেশ করে। সমাবেশে আসা বার্মিজদের হাতে বিভিন্ন ধরনের প্ল্যাকার্ড দেখা যায়। অনেকেই ‘দেশের মর্যাদা রক্ষায়’, ‘জননী সু চির পাশে দাঁড়ান’ স্লোগান দেন।

রাখাইনের মিন গি গ্রামে নৃশংস এক হত্যাকা-ের চিত্র তুলে ধরে গাম্বিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য অ্যান্ড্রু লোয়েনস্টেইন জাতিসংঘের স্বাধীন তদন্তকারীদের একটি তদন্ত প্রতিবেদনের বিস্তারিত আদালতের কাছে উপস্থাপন করেন। জাতিসংঘের এ প্রতিবেদনে ওই একটি গ্রামেই প্রায় ৭৫০ জনকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানান তিনি। হত্যাকা-ের শিকার এসব রোহিঙ্গার মধ্যে ১০০ জনের বেশি শিশু; যাদের বয়স ৬ বছরের নিচে।

জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের কাছে দেওয়া এক রোহিঙ্গার জবানবন্দি হুবহু তুলে ধরেন আইনজীবী অ্যান্ড্রু লোয়েনস্টেইন। তিনি বলেন, ‘আমি চার প্রতিবেশীসহ বাড়িতে প্রবেশ করেছিলাম। আমাদের তিনজনের শিশু সন্তান ছিল। বাড়িতে ঢুকে উঠানে মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখি: আমাদের গ্রামের ছোট ছোট ছেলেদের মরদেহ। একদিন বাড়িতে প্রবেশ করার পরপরই সৈন্যরা দরজা বন্ধ করে দেয়। এক সৈন্য আমাকে ধর্ষণ করে। সে আমার পেছনে, গলায় এবং তলপেটে ছুরিকাঘাত করে। আমার বাচ্চাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলাম; ওর বয়স ছিল মাত্র ২৮ দিন। কিন্তু তারা তাকে জানালা দিয়ে মাটিতে ছুড়ে মারে এবং সঙ্গে সঙ্গেই সে মারা যায়।’

আইসিজের রেজিস্ট্রার ফিলিপ গোতিয়ে অন্তর্বর্তী পদক্ষেপের নির্দেশনা চেয়ে গাম্বিয়ার করা এক আবেদনের বিস্তারিত পড়ে শোনান। পরে, অধ্যাপক পায়াম আখাভান রাখাইনে গণহত্যার বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আজ মঙ্গলবার হচ্ছে জাতিসংঘের গণহত্যা সনদের ৭০তম বার্ষিকী। কিন্তু এই সনদের শর্ত অনুযায়ী গণহত্যা বন্ধ করেনি মিয়ানমার।

ইসলামী সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি) সমর্থনে গাম্বিয়া আইসিজেতে ওই মামলাটি করে। এ মামলার রায় পেতে আট সপ্তাহ থেকে কয়েক বছর পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে। তবে, শুনানিতে দোষী সাব্যস্ত হলে মিয়ানমার এবং তাদের সেনা কর্মকর্তাদের কি ধরনের শাস্তি দেওয়া হবে, তা এখনও স্পষ্ট নয়। জানা গেছে, গাম্বিয়ার পক্ষে নাভি পিল্লাই এবং মিয়ানমারের ক্লাউস ক্রেসকে এডহক বিচারপতি হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এডহক বিচারপতিদের শপথের মধ্য দিয়ে গতকাল শুনানির প্রক্রিয়া শুরু হয়। এরপর আইসিজের রেজিস্ট্রার ফিলিপ গোতিয়ে অন্তর্বর্তী পদক্ষেপের নির্দেশনা চেয়ে গাম্বিয়া আবেদনে যা বলেছে তা পড়ে শোনান। গাম্বিয়ার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন সে দেশের আইন ও বিচার মন্ত্রী আবুবকর মারি তামবাদু। মিয়ানমারের নেতৃত্বে থাকছেন দেশটির স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। শুনানির শুরুতে আইসিজের প্রেসিডেন্ট আবদুল কোয়াই আহমেদ ইউসুফ শুনানির প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিচার কক্ষে উপস্থিত সুধীজনদের অবহিত করেন। শুনানির প্রথম দিনে সাক্ষ্য-প্রমাণ দাখিল করেছে গাম্বিয়া প্রজাতন্ত্র। আজ বুধবার একই সময়ে শুরু হওয়া শুনানিতে অংশ নিবে মিয়ানমার। এতে দেশটির পক্ষে বক্তব্য রাখবেন নোবেলজয়ী অং সান সু চি।

এদিকে আইসিজের শুনানিতে সরাসরি কোনও পক্ষ না হলেও গাম্বিয়াকে লজিস্টিক সহায়তা দিবে ঢাকা। এ লক্ষ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (দ্বিপক্ষীয়) মাসুদ বিন মোমেনের নেতৃত্বে কুড়ি সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দ্য হেগে গিয়েছেন। ওই প্রতিনিধি দলে কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া তিন রোহিঙ্গাও রয়েছেন। দলে আন্তর্জাতিক আইন বিশেষজ্ঞ এবং নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিকেও রাখা হয়েছে। তারা তথ্য-উপাত্ত নিয়ে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানিতে উপস্থিত থাকবেন।

২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে রক্তাক্ত সামরিক অভিযান শুরু করে দেশটির সেনাবাহিনী। সামরিক বাহিনীর জ্বালাও-পোড়াও, খুন, ধর্ষণের মুখে ৭ লাখ ৩০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। জাতিসংঘ মিয়ানমার সামরিক বাহিনী এই অভিযান গণহত্যার অভিপ্রায়ে পরিচালনা করেছে বলে মন্তব্য করেছে।

The Post Viewed By: 129 People

সম্পর্কিত পোস্ট