চট্টগ্রাম রবিবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২০

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ১২:২৮ অপরাহ্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে উত্তাল উত্তর-পূর্ব ভারত

ভারতের লোকসভায় বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল-২০১৯ (সিএবি) পাসের প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ধর্মঘট পালন করছে বিভিন্ন সংগঠন।

আজ মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) আসাম, মেঘালয়, ত্রিপুরা ও মিজোরাম সহ উত্তর-পূর্বের একাধিক ছাত্র সংগঠনের ডাকে ভোর ৫টা থেকে শুরু হয়েছে এই ধর্মঘট। অন্যান্য সংগঠন ও রাজনৈতিক দল সমর্থিত নর্থ ইস্ট স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন (নেসো) বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই ধর্মঘট পালন করবে। খবর এনডিটিভির

ধর্মঘটকে ঘিরে কোনো ধরনের সহিংসতা এড়াতে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। এই ধর্মঘটে সমর্থন দিয়েছে কংগ্রেস ও বিভিন্ন বামপন্থী সংগঠন। এছাড়া কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলকে ইনার লাইন পারমিট (আইএলপি) শাসনের আওতাধীন করার কথা বলার পরেই এই আন্দোলন থেকে সরে এসেছে মণিপুর।

প্রসঙ্গত, নাগরিকত্ব (সংশোধন) বিল প্রথম তৈরি হয়েছিল  ২০১২ সালে। পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে আসা হিন্দু শরণার্থীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দিতেই তৈরি করা হয়েছিল এই বিল। বর্তমানে ১১ বছরের পরিবর্তে পাঁচ বছর ভারতের বাসিন্দা হলেই ভারতীয় নাগরিকত্ব পাবেন তারা। একই সঙ্গে, নয়া সংশোধনী বিল নিয়ে যথেষ্ট উদ্বেগে রয়েছেন উত্তর-পূর্ব রাজ্যের ভূমিপু্ত্ররা। তাদের ভয়, সংশোধনী বিলের সাহায্যে নাগরিকত্ব লাভের পর নতুন বাসিন্দারা হয়ত উচ্ছেদ করবেন তাদের। হয়ত টান পড়বে তাদের রুজি-রোজগারে।

আজকের বন্ধ সর্বাত্মক করতে কংগ্রেস, এআইইউডিএফ, সমস্ত আসাম স্টুডেন্টস ইউনিয়ন, কৃষক মুক্তি সংগ্রাম সমিতি, সমস্ত অরুণাচল প্রদেশের ছাত্র ইউনিয়ন, খাসি ছাত্র ইউনিয়ন এবং নাগা স্টুডেন্টস ফেডারেশন সমর্থন জানাচ্ছে এনইএসওকে। এসইফআই, ডিওয়াইএফআই, এআইডিডাব্লুএ, এআইএসএফ, আইআইএসএ এবং আইপিটিএ-র মতো মোট ১৬ টি বামপন্থী সংগঠনও সমর্থন জানিয়েছে নেসোকে। বন্ধের কারণে রাজ্যের গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ডিব্রুগড় বিশ্ববিদ্যালয় স্থগিত রেখেছে আগামীকালের নির্ধারিত সমস্ত পরীক্ষা।

পূর্বকোণ/পিআর

The Post Viewed By: 104 People

সম্পর্কিত পোস্ট