চট্টগ্রাম সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

১৭ জানুয়ারি, ২০২৩ | ১১:২৯ পূর্বাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

বুরকিনা ফাসোতে প্রায় ৫০ নারী অপহৃত

বুরকিনা ফাসোর উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ সাউমে ১২ ও ১৩ জানুয়ারি প্রায় ৫০ জন নারীকে অপহরণ করেছে জঙ্গিরা। ২০১৫ সালে প্রতিবেশী মালি থেকে বুরকিনা ফাসোতে ছড়িয়ে পড়া বিদ্রোহের মধ্যে গণঅপহরণের ঘটনা এবারই প্রথম।

 

সোমবার (১৬ জানুয়ারি) এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির সরকার।

 

যদিও পশ্চিমা দেশের নাগরিক ও স্থানীয়রা মাঝেমধ্যে জঙ্গিদের হাতে বন্দী হয়, তবে এর আগে দেশটিতে এত সংখ্যক নারীদের অপহরণ করা হয়নি। নাইজেরিয়ায় অবশ্য গণঅপহরণ চালায় পৃথক বোকো হারাম বিদ্রোহীরা।

 

অরিবিন্দা শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে লিকি গ্রামে ফল সংগ্রহের সময় এবং একই জেলার অন্য একটি স্থান থেকে ওই নারীদের ধরে নিয়ে যায় সশস্ত্র পুরুষরা।

 

সরকার এক বিবৃতিতে জানায়, এসব নিরপরাধ ভুক্তভোগীদের নিরাপদ ও সুস্থ খুঁজে পাওয়ার লক্ষ্যে উদ্ধার অভিযান শুরু হয়েছে।

 

পশ্চিম আফ্রিকার বেশ কয়েকটি দেশের মধ্যে বুরকিনা ফাসো একটি, যা আল কায়েদা এবং ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত সহিংস বিদ্রোহের সঙ্গে লড়াই করছে। গত এক দশক ধরে বিশাল এলাকা দখল করেছে বিদ্রোহীরা।

 

জাতিসংঘের তথ্যমতে, সহেলজুড়ে হাজার হাজার মানুষ নিহত এবং ২ দশমিক ৭ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। সেখানে কৃষিকে প্রভাবিত করে খাদ্য সংকট বৃদ্ধিতে অবদান রেখেছে নিরাপত্তাহীনতা।

 

ভুক্তভোগী নারীদের স্বজনরা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, তারা আশপাশের ঝোপে খাবারের সন্ধান করেছিল। কারণ গ্রামটিতে তাদের পরিবারকে খাওয়ানোর জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য ছিল না। তারা ফল, পাতা ও বীজ সংগ্রহ করছিল, যা পরে শিশুখাদ্য বানানো হতো।

 

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বিদ্রোহীরা উত্তরাঞ্চলের কিছু অংশ অবরোধ করেছে। এতে সেখানে তীব্র খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে এবং আটকে পড়া মানুষের কাছে ত্রাণ সরবরাহ করাও ক্রমশ বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে।

 

সেপ্টেম্বরে সাউমের রাজধানী জিবোতে ত্রাণ নিয়ে যাওয়ার সময় ১৫০টি গাড়ির বহরে জঙ্গিরা হামলা চালালে কয়েক ডজন সৈন্য নিহত হয়।

 

নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অরিবিন্দার ওই গ্রামের বাসিন্দা বলেন, নারীরা খাবার সংগ্রহের জন্য ৪ কি.মি (ঝোপের মধ্যে) দূরে যান।

 

তিনি জানান, জিহাদিদের হাতে গুলিবিদ্ধ হওয়ার ভয়ে পুরুষরা বাড়ি থেকে দূরে যেতে ভয় পাচ্ছিল। তাই নারীদেরকে পেয়ে অপহরণ করে তারা।

 

নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে এবং বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা দিতে কর্তৃপক্ষের ব্যর্থ হওয়ার কারণে গত বছর বুরকিনা ফাসোতে দুটি সামরিক অভ্যুত্থান ঘটে।

 

মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট নারীদের অপহরণের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এক বিবৃতিতে স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, অপহৃতদের অবিলম্বে ও নিঃশর্তভাবে তাদের স্বজনদের কাছে নিরাপদে ফিরিয়ে দিতে হবে এবং দায়ী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। সূত্র : রয়টার্স

 

পূর্বকোণ/আরএ

 

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট