চট্টগ্রাম শনিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

৮ ডিসেম্বর, ২০২২ | ২:১৩ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে নিহত ৩

ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিম তীরের জেনিন শহরে ইসরায়েলি বাহিনীর বুলেটে নিহত তিন ফিলিস্তিনি।

 

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি।

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অধিকৃত পশ্চিম তীরের জেনিন শহরের সীমানায় ইসরায়েলি বাহিনী তিন ফিলিস্তিনিকে হত্যা করে বলে ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

এর আগে গত ২৫ অক্টোবর পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত চার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছিলেন। এ ঘটনায় আহত হন আরও ১৯ জন। একইদিন রামাল্লায় ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে আরেক ফিলিস্তিনি নিহত হন। এই রামাল্লাতেই ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের সদর দপ্তর অবস্থিত।

 

এর দু’দিন আগে ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বাহিনী এক ফিলিস্তিনি যুবককে হত্যা করে। সেসময় ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, পশ্চিম তীরের একটি চেকপয়েন্টে ওই ফিলিস্তিনি যুবককে মাথায় গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়।

এছাড়া অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে অধিকৃত পশ্চিম তীরে গ্রেপ্তার অভিযান পরিচালনার সময় দুই ফিলিস্তিনিকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী। এর আগে সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে পশ্চিম তীরে তিন ফিলিস্তিনিকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনী।

 

উল্লেখ্য, ইসরায়েল সাম্প্রতিক সময়ে পশ্চিম তীরে একের পর এক রাত্রিকালীন অভিযান জোরদার করার পর সেখানে সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এই ধরনের অভিযান প্রায়ই ইসরায়েলি সেনাবাহিনী ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে মারাত্মক সংঘর্ষের জন্ম দিয়ে থাকে।

 

চলতি বছর পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি লড়াইয়ে ১২৫ জনেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। ফিলিস্তিনি হামলায় ইসরায়েলে ১৯ জন নিহত হওয়ার পর থেকে এই লড়াই আরও জোরালো হয়েছে।

 

১৯৬৭ সালের ছয় দিনের যুদ্ধে ইসরায়েল পশ্চিম তীর দখল করে এবং এরপর থেকে সেখানে ১৩০ টিরও বেশি বসতি তৈরি করেছে। এসব বসতির মধ্যে অনেকগুলো ছোট শহরের মতো। সেখানে অ্যাপার্টমেন্ট ব্লক, শপিং মল এবং শিল্প অঞ্চলসহ নানা স্থাপনা রয়েছে।

 

অন্যদিকে ফিলিস্তিনিরা পশ্চিম তীরকে তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের প্রধান অংশ হিসেবে গড়ে তুলতে চায়। আর তাই সেখানে ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হিসেবে দেখে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই।

পূর্বকোণ/আর

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট