চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

১ ডিসেম্বর, ২০২২ | ১:৩০ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

উষ্ণতম বছর পার করছে ফ্রান্স, বাড়ছে বৈশ্বিক তাপমাত্রাও

ক্রমশ সারাবিশ্বের তাপমাত্রা বাড়ছে। ইউরোপ মহাদেশে অধিকাংশ সময় ঠাণ্ডা আবহাওয়া বিরাজ করলেও এবার সেখানকার জলবায়ুতে বিস্তর পরিবর্তন দেখা দিয়েছে। ফলে চলতি বছর তীব্র দাবদাহে পুড়ছে পুরো ইউরোপ। একই সময়ে নিজেদের ইতিহাসে ফ্রান্স উষ্ণতম বছর পার করছে।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের বরাত দিয়ে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম ফ্রান্স২৪ এ তথ্য জানানো হয়।

 

প্রতিবেদনে বলা হয়, তাপমাত্রার রেকর্ড লিপিবদ্ধ শুরুর পর— ২০২২ সালটি ফ্রান্সের ইতিহাসে সবচেয়ে উষ্ণ বছর হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে। এ বছর দেশটির মানুষকে অসহনীয় গরম সহ্য করতে হয়েছে। ফ্রান্সে মে মাস থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ক্রমাগত তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছিল। এ সময় একাধিকবার দাবদাহের কবলে পড়েছিল দেশটি। এছাড়া উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ব্রিটানিতে দাবানল এবং ভূমধ্যসাগরে অস্বাভাবিক তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে ফরাসি পরিবেশ মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়টি জানায়, ডিসেম্বরের তাপমাত্রার ওপর নির্ভর করে ফ্রান্সে এ বছরের গড় তাপমাত্রা ১৪.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ১৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত থাকবে। যা ২০২০ সালের গড় তাপমাত্রা ১৪.০৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে অনেক বেশি এবং ১৯৯০ সালে ফ্রান্সে তাপমাত্রার রেকর্ড লিপিবদ্ধ শুরুর পর থেকে সর্বোচ্চ।

 

এছাড়া, ২০২২ সালে ফ্রান্সে বার্ষিক বৃষ্টির পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে প্রায় ২৫ ভাগ কম হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এতে করে ১৯৮৯ সালের পর এখানে সবচেয়ে শুষ্ক আবহাওয়া রেকর্ড হবে। ওই বছর প্রায় স্বাভাবিকের চেয়ে ২৫ ভাগ কম বৃষ্টিপাত হয়েছিল।

বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা চলতি বছরের নভেম্বরে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছিল, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ১৯ শতকের পর বিশ্বব্যাপী তাপমাত্রা ১.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। এরমধ্যে এই তাপমাত্রার অর্ধেকই বেড়েছে গত ৩০ বছরে। ২০২২ সালেই ইউরোপের আল্পস পর্বতমালার হিমবাহ গলার সব রেকর্ড ভেঙে গেছে। এ বছর হিমবাহের পূরত্ব কমেছে ৯.৮ ফুট থেকে ১৩ ফুট পর্যন্ত। অন্যদিকে ২০০১ সালের পর সুইজারল্যান্ডের হিমবাহের চারভাগের তিনভাগ বিলীন হয়ে গেছে।

 

পূর্বকোণ/এএস

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট