চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

১ ডিসেম্বর, ২০২২ | ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

স্মৃতিভ্রম রোগ আলঝেইমার্সের ‘যুগান্তকারী’ ওষুধ আবিষ্কার

মস্তিষ্কের স্মৃতিভ্রমের রোগ আলঝেইমার্সের চিকিৎসায় প্রথম কোন ওষুধ আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানীরা। এ আবিষ্কারকে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা ‘যুগান্তকারী’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানিয়েছে।

জানা গেছে, বিজ্ঞানীদের কয়েক দশকের ব্যর্থতার পর এই ওষুধটি আবিষ্কার হয়েছে। ডিমেনশিয়ার সবচেয়ে সাধারণ রূপ হচ্ছে আলঝেইমার্স। যদিও লিকেনেম্যাব নামের ওষুধটির প্রভাব এখনও তুলনামূলক কম। তারপরও মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রায় এই ওষুধের আবিষ্কার কী ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে, সেটিও পরিষ্কার নয়।

 

বিবিসি বলছে, লিকেনেম্যাব নামের ওষুধটি এই রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে কাজ করে। ফলে আলঝেইমার্সে আক্রান্ত অনেক রোগী হয়তো এর সুফল পাবেন না। আলঝেইমার্স আক্রান্ত ব্যক্তিদের মস্তিষ্কে বেটা অ্যামিলয়েড নামে যে আঠালো পদার্থ তৈরি হয়, সেটিকে আক্রমণ করে লিকেনেম্যাব।

যুক্তরাজ্যের গবেষণা সংস্থা আলঝেইমার্স রিসার্চ বলেছে, গবেষণার এই ফলাফল ‘গুরুত্বপূর্ণ’। আলঝেইমার্স রোগের চিকিৎসার উপায় খুঁজতে গিয়ে ৩০ বছর আগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা প্রথমে অ্যামিলয়েড লক্ষ্য করে গবেষণা করবেন বলে ঠিক করেছিলেন।

 

সেই গবেষকদের একজন অধ্যাপক জন হার্ডি। আলঝেইমার্সের নতুন এই ওষুধের আবিষ্কারের পর তিনি এটিকে ‘ঐতিহাসিক’ আখ্যা দিয়েছেন। এর ফলে আলঝেইমার্স রোগের চিকিৎসার নতুন নতুন উপায় বেরিয়ে আসতে শুরু করবে বলেও আশাপ্রকাশ করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, অ্যামিলয়েড হচ্ছে একটি প্রোটিন, যা মস্তিষ্কের নিউরনের মাঝে জমা হতে থাকে। এর ফলে মস্তিষ্কের কোষগুলো ঠিকভাবে কাজ করতে পারে না। এ ধরনের অ্যামিলয়েডের জন্ম নেওয়া আলঝেইমার্স রোগের অন্যতম উপসর্গ। বিশ্বে প্রায় সাড়ে ৫ কোটির বেশি মানুষ আলঝেইমার্স রোগে আক্রান্ত। আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে সেই সংখ্যা ১০ কোটি ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

মানুষের শরীরে ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করলে সেটি দূর করতে শরীরের ভেতরে যে ধরনের অ্যান্টিবডি তৈরি হয়, লিকেনেম্যাব হচ্ছে সেরকম একটি অ্যান্টিবডি। কিন্তু এটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে; যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে মস্তিষ্ক থেকে অ্যামিলয়েড দূর করে ফেলতে সহায়তা করবে।

তবে ওষুধটি আলঝেইমার্স রোগ পুরোপুরি সারিয়ে তুলতে পারে না। কিন্তু মস্তিষ্কের ক্ষতি হওয়ার হার চার ভাগের একভাগ কমিয়ে ফেলতে পারে। আলঝেইমার্স রোগের চিকিৎসায় ওষুধ আবিষ্কার করতে গিয়ে যে হতাশা তৈরি হয়েছিল, সেখানে এই ওষুধের পরীক্ষার ফলাফলকে অনেকে বিশাল ‘জয়’ হিসাবে দেখছেন।

 

পূর্বকোণ/এএস/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট