চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

২৯ নভেম্বর, ২০২২ | ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

চীনে লকডাউনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন

করোনার কথিত উৎপত্তিস্থল চীনে নতুন করে ভাইরাসটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। পরে সংক্রমণ ঠেকাতে দেশটিতে নতুন করে লকডাউনের ঘোষণা করে সরকার। কিন্তু এর বিরুদ্ধে সাধারণ জনগণ বিক্ষোভ শুরু করেছেন। সোমবার (২৮ নভেম্বর) চীনা জনগণের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের অধিকারকে সমর্থন করে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বার্তাসংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, এক প্রতিক্রিয়ায় হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তাবিষয়ক মুখপাত্র জন কিরবি বলেন, মানুষকে সমবেত হওয়ার, শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করার সুযোগ দেওয়া উচিত। হোয়াইট হাউস শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের অধিকারকে সমর্থন করে। তবে এখন পর্যন্ত করোনার টিকার জন্য চীনের কাছ থেকে কোন অনুরোধ পায়নি যুক্তরাষ্ট্র।

 

এর আগে চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের ‘শূন্য করোনা নীতির’ বিরুদ্ধে দেশটির সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্রমে বাড়তে থাকা ক্ষোভ বিক্ষোভে রূপ নেয়। গত বৃহস্পতিবার দেশটির জিনজিয়াং প্রদেশের উরুমকি শহরের একটি আবাসিক ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ১০ জনের মৃত্যু হয়।

বাসিন্দাদের ভবনে আটকে পড়া ও উদ্ধার তৎপরতা ব্যাহত হওয়ার জন্য করোনার কঠোর বিধিনিষেধকে দায়ী করা হয়। এই ঘটনার জেরে শুরু হওয়া বিক্ষোভ দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। দেশটিতে গতকাল সোমবারও বিক্ষোভ হয়। গতকাল দিনভর বিক্ষোভকারীদের দমাতে কঠোর অবস্থান নিতে দেখা যায় পুলিশকে।

 

চীনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, আবার হু-হু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। বাড়ছে আক্রান্ত ও হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা। বিশ্বজুড়ে করোনা ছড়িয়ে পড়ার পর অভিযোগের তীর ছোড়া হয় চীনের দিকেই। এখনও বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক আছে। আর সেই কারণেই এবার চীন সরকার একটু বেশি সতর্কতা অবলম্বন করছে। আড়াই বছর আগে তৈরি ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি চাইছে না শি জিনপিংয়ের সরকার।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ‘যদিও এভাবে বিক্ষোভে জনসাধারণের ফুঁসে ওঠা শি জিনপিংয়ের জন্য বিব্রতকর। তবে এতে খুব একটা পরিবর্তন ঘটবে না। কেননা দল, সামরিক, নিরাপত্তা এবং প্রচারযন্ত্র সম্পূর্ণ তার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

 

পূর্বকোণ/এএস

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট