চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

১৭ নভেম্বর, ২০২২ | ৪:২৩ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইরানে বিক্ষোভকারীদের ওপর বন্দুক হামলা, নারী-শিশুসহ নিহত ৯

ইরানের খুজেস্তান প্রদেশ ও ইসফাহান শহরে বিক্ষোভকারীদের ওপর অজ্ঞাত বন্দুকধারীদের হামলায় নারী-শিশুসহ অন্তত ৯ জন নিহত হয়েছেন।

বুধবার (১৭ নভেম্বর) দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর দুটিতে এ ঘটনা ঘটে।

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যমের খবরে এই ঘটনাকে ‘সন্ত্রাসী হামলা’ বলে অভিহিত করা হয়েছে। দেশটির সরকারি টেলিভিশন চ্যানেল বলছে, খুজেস্তানের ইজেহ শহরের একটি বাজারে বন্দুক হামলায় পাঁচজন নিহত ও আরও ১৫ জন আহত হয়েছেন।

 

ইরানের আধা-সরকারি সংবাদ সংস্থা আইএসএনএ’র খবরে বলা হয়, একটি গাড়িতে করে দুই বন্দুকধারী বাজারে পৌঁছে লোকজনকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়েছে। নিহতদের একজন শিশু, একজন নারী ও তিনজন পুরুষ। এছাড়া, নিহতদের মধ্যে ইরানের স্বেচ্ছাসেবী বাসিজ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর দুই সদস্যও রয়েছেন।

খুজেস্তানের জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তা বলেছেন, বিক্ষোভকারীদের ওপর প্রথম হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ইতিমধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

এ ঘটনার চার ঘণ্টা পর ইরানের তৃতীয় বৃহত্তম শহর ইসফাহানে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে বাসিজ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর সদস্যদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালানো হয়েছে। এতে বাসিজ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর দুই সদস্য নিহত ও আরও দুজন আহত হয়েছেন।

 

এদিকে, ইরানের আধা-সরকারি সংবাদ সংস্থা তাসনিম বলছে, ইজেহ শহরের একটি স্কুলে সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আসা এক ভিডিওতে দেখা যায়, স্কুল ভবনে আগুন জ্বলছে। এ সময় সেখানে গোলাগুলির শব্দও পাওয়া যায়। তবে এই ভিডিওর সত্যতা যাচাই করা যায়নি বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

হিজাব পরার বিধান লঙ্ঘনের দায়ে ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর গত ১৬ সেপ্টেম্বর মাহশা আমিনি নামে এক তরুণী মারা যান। এই ঘটনার পর দেশটিতে হিজাববিরোধী বিক্ষোভ চলছে। ইরানের জাতিগত আরব সংখ্যালঘুদের বেশিরভাগ খুজেস্তানে বসবাস করেন। সেখানকার সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর সদস্যরাও মাহশা আমিনি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় শুরু হওয়া বিক্ষোভে যোগ দিয়েছেন।

 

পূর্বকোণ/এএস

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট