চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

১২ অক্টোবর, ২০২২ | ১১:০২ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

চিপ উৎপাদন: দক্ষিণ কোরিয়ায় অর্থায়নে চীনের সবুজ সংকেত

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যকার বাণিজ্যিক সম্পর্ক এখন অনেকটাই দ্বন্দ্বপূর্ণ। আরোপিত বিধিনিষেধের কারণে বর্তমানে চীনও বিকল্প পদক্ষেপ নিচ্ছে। এর অংশ হিসেবে দেশটির সিকিউরিটিজ নিয়ন্ত্রক সংস্থা সম্প্রতি চীন ও দক্ষিণ কোরিয়ার শীর্ষ চিপ উৎপাদনকারীদের আর্থিক সহায়তা প্রদানে মিউচুয়াল ফান্ড ব্যবহারে সবুজ সংকেত দিয়েছে। খবর রয়টার্স।

হুয়াটাই-পাইনব্রিজ ফান্ড ম্যানেজমেন্টের এক কর্মকর্তা সূত্রে এ তথ্য জানা গিয়েছে। বিশ্বের বৃহত্তম দুই অর্থনীতির দেশের মধ্যে যখন ভূরাজনৈতিক অস্থিরতা বিরাজ করছে, তখন চীনের সিকিউরিটিজ নিয়ন্ত্রক সংস্থা এ অনুমোদন দিল। সম্প্রতি বাইডেন প্রশাসন চীনের চিপ শিল্পকে প্রভাবিত করার জন্য রপ্তানি নিয়ন্ত্রণের সুনির্দিষ্ট সেট প্রকাশ করেছে। অন্যদিকে হুয়াটাই-পাইনব্রিজ নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনের জন্য গত ৯ আগস্ট আবেদন করেছিল।

দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক স্যামসাং ইলেকট্রনিকস, এসকে হাইনিক্স থেকে শুরু করে চীনের সেমিকন্ডাক্টর ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্টারন্যাশনাল করপোরেশন (এসএমআইসি) ও মনটেজ টেকনোলজিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করবে দ্য এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড। ইটিএফের জন্য আগে থেকে তৈরি করা প্রচারণাপত্রে হুয়াটাই-পাইনব্রিজ জানায়, এ বিনিয়োগ বা অর্থায়ন সহযোগিতার মাধ্যমে চীনা ও কোরীয় সেমিকন্ডাক্টর উৎপাদনকারীরা দীর্ঘমেয়াদে একত্রিত হবে। তবে এ অর্থায়ন বা বিনিয়োগ প্রকল্প কবে নাগাদ শুরু হবে সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। প্রচারণাপত্রে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার মুখে প্রযুক্তি খাতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে কাজ করছে চীন। বিনিয়োগের বিষয়ে চীনের সিকিউরিটিজ নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্রতিষ্ঠানটিকে আরো এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে। ২০২১ সালে চীনে চিপ উৎপাদনকারী টুল থেকে শুরু করে বিভিন্ন পণ্য রফতানিতে শীর্ষে ছিল দক্ষিণ কোরিয়া। অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় চীনের রফতানিও উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে বলে ফান্ড ম্যানেজার সূত্রে জানা গিয়েছে।

সম্প্রতি দেয়া এক বিবৃতিতে দক্ষিণ কোরিয়া জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার কারণে চীনে স্যামসাং ও এসকে হাইনিক্সের বিদ্যমান চিপ উৎপাদনে সরবরাহ চেইনে কোনো বিঘ্ন ঘটবে না। আরেক বিবৃতিতে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র মাও নিং বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের এ নিষেধাজ্ঞা ও বিধিনিষেধ আরোপের বিষয়টি বাণিজ্য ব্যবস্থার অপব্যবহার।

সম্প্রতি অনুমোদিত ইটিএফটি সিএসআই কেআরএক্স চীন-কোরিয়া সেমিকন্ডাক্টর ইনডেক্স অনুসরণ করবে। গত বছর সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ ও কোরিয়ান এক্সচেঞ্জের মধ্যে বৃহত্তর সহযোগিতায় এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়। মূলত দুটি দেশের মধ্যে আন্তঃসীমান্ত বিনিয়োগ বাড়াতেই এ চুক্তি। তথ্যসূত্র: বণিক বার্তা

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট