চট্টগ্রাম শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

৭ অক্টোবর, ২০২২ | ৭:২৯ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

ডেকান হেরাল্ডের প্রতিবেদন

বাংলাদেশি যুবকের সঙ্গে অনুপ চেটিয়ার মেয়ের বিয়ে

ভারতের নিষিদ্ধ ঘোষিত সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসামের (উলফা) অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা নেতা গোলাপ বড়ুয়া। তিনি অনুপ চেটিয়া নামেও পরিচিত। তারই মেয়ে বন্যা বড়ুয়ার সঙ্গে বিয়ে হয়েছে অনির্বাণ চৌধুরী নামে এক বাংলাদেশি যুবকের। ভারতের কর্ণাটক থেকে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা ডেকান হেরাল্ডের এক প্রতিবেদনে এ খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদন মতে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর আসামের দিব্রুগড়ের জেরাইগাঁওয়ে অনুপ চেটিয়ার নিজ বাড়িতে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উলফা নেতা অনুপ চেটিয়া নিজেই পোস্ট করেছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, অনুপ চেটিয়া যখন বাংলাদেশের জেলে বন্দি ছিলেন তখন মেয়ে বন্যা বড়ুয়া পড়াশোনা করতেন ঢাকার মাস্টারমাইন্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে। সেখানেই সহপাঠী অনির্বাণ চৌধুরীর প্রেমে পড়েন বন্যা। 

১৯৯৭ সালে বাংলাদেশে গ্রেফতার হন উলফা নেতা অনুপ চেটিয়া। একাধিক জাল পাসপোর্ট বহন করাসহ ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বেআইনি চোরাচালানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে তার জেল হয়। ১৭ বছর পর ২০১৫ সালে অনুপ চেটিয়াকে ভারতের হাতে তুলে দেয় বাংলাদেশ। অনুপ চেটিয়ার বাড়ি আসামের দিব্রুগড় শহর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার আগে। আগের বিয়ের ব্যাপারে বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) ডেকান হেরাল্ডকে তিনি বলেন, যেহেতু আমি বাংলাদেশের জেলে ছিলাম। তাই ওদের প্রেমের সম্পর্কের বিষয়ে জানতাম না।

উলফার আন্দোলনের সময় বাংলাদেশের জনগণ যেভাবে আমাদের সহায়তা করেছেন তার জন্য তাদের প্রতি আমার ভালোবাসা ও সম্মান আছে। এজন্যই এ বিয়েতে আমি কোনো আপত্তি করিনি। ১৯৭৯ সালে অনুপ চেটিয়া ও আসামের আরও বেশ কয়েকজন যুবক মিলে অস্ত্র হাতে তুলে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। গঠন করেন ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসাম তথা উলফা। উদ্দেশ্য, বাংলাদেশ থেকে আসামে ‘বেআইনি অভিবাসন’ সমস্যার সমাধান।

কিন্তু ভারতীয় সেনাবাহিনীর অপারেশনের মুখে অনুপ চেটিয়াসহ উলফার বেশ কয়েকজন নেতা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেন। ডেকান হেরাল্ড লিখেছে, বাংলাদেশের ভেতরে ক্যাম্প স্থাপন করে উলফা। সেখান থেকে তাদের কার্যক্রম চালাতে থাকে। এক পর্যায়ে অনুপ চেটিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। তারপর থেকে তিনি বাংলাদেশের জেলেই ছিলেন। ২০১৫ সালে তাকে ভারতের হাতে তুলে দেয়া হয়।

অনুপ চেটিয়া আসামের মোটোক সম্প্রদায়ের। এটি আসামের একটি আদিবাসী সম্প্রদায়। মেয়ের বিয়ে সম্পর্কে তিনি বলেছেন, তাদের বিয়ে হয়েছে মোটোক সম্প্রদায়ের রীতি অনুযায়ী। তবে মেয়ের বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে আগামী ১৫ নভেম্বর অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে এক মন্দিরে। বর্তমানে সেখানেই কাজ করছেন অনির্বাণ। বিয়ের পর নবদম্পতি সেখানেই বসবাস করবেন বলে জানিয়েছেন অনুপ চেটিয়া।

এ বিয়ে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। দেখা দিয়েছে অসংখ্য প্রশ্ন। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, বাংলাদেশ থেকে যাওয়া কথিত অবৈধ অভিবাসন ও সংশোধিত নাগরিকপঞ্জি (সিএএ) ইস্যুতে এখন কী অবস্থান নেবেন অনুপ চেটিয়া। ফেসবুকের এক পোস্টে বলা হয়েছে, যেহেতু ছেলে (অনির্বাণ) বাংলাদেশি একজন হিন্দু। এখন কি সিএএ’র বিরোধিতা করবেন অনুপ চেটিয়া? 

 

পূর্বকোণ/আরআর/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট