চট্টগ্রাম শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২২

সর্বশেষ:

৬ অক্টোবর, ২০২২ | ৫:৩১ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মাছ ধরতে গিয়ে মিলল ‘সামুদ্রিক স্বর্ণ’, ১১ কোটি টাকায় বিক্রি

মাছ শিকারে গিয়ে ৩০ কেজি ‘সামুদ্রিক স্বর্ণ’ পেয়েছেন নারং ফেটচারাজ নামে থাইল্যান্ডের এক জেলে। যা পরে ১১ কোটি টাকায় বিক্রি করেছেন তিনি। তবে বিশ্বজোড়া চাহিদা সম্পন্ন ধাতব স্বর্ণ নয়, এটি স্পার্ম জাতীয় তিমির বমি। তাকে রীতিমতো কোটিপতি বানিয়ে দিয়েছে ‘অ্যামবারগ্রিস’ নামের ওই বস্তু।

ইন্ডিয়া টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সব সময়ের মতই সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন নারং। সমুদ্র থেকে ফেরার সময় সুরাট থানি প্রভিন্সের নিয়োম সৈকতে তিনি পাথরের মতো একটি বস্তু পান। পাথর সদৃশ ওই বস্তু সম্পর্কে কোন ধারণা না থাকলেও সন্দেহ হয় তার। কাছে গিয়ে তিনি ওই বস্তুতে মোমের মতো উপাদান দেখতে পান। তিনি বুঝতে পারেন ওটা তিমির বমি হতে পারে।

 

এরপর কিছু টাকা-পয়সা পাবেন এই আশায় ওই বস্তুটি প্রিন্স অফ সোংক্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের কাছে নিয়ে যান নারং। তবে বিশেষজ্ঞদের পরীক্ষার পর জানা যায়, নারংয়ের খুঁজে পাওয়া পাথরের দাম ১১ কোটি টাকা। নারং মূলত খুঁজে পেয়েছেন তিমির বমি। এই বস্তুটির মূল্য প্রায় এক মিলিয়ন পাউন্ড।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, ওই বস্তুর নাম অ্যামবারগ্রিস। এটি মূলত স্পার্ম জাতীয় তিমির বমি যা জমে শক্ত হয়ে যায় এবং সমুদ্রে ভেসে বেড়ায়। নারংয়ের পাওয়া অ্যামবারগ্রিসের ওজন ৩০ কেজি। সর্বশেষ যে অ্যামবারগ্রিস পাওয়া গিয়েছিল তার দর অনুযায়ী নারংয়ের অ্যামবারগ্রিসের মূল্য ১১ কোটি টাকা। তিমির বমির শক্ত হয়ে যাওয়া এই রূপকে বলা হয় ‘ সামুদ্রিক স্বর্ণ’। প্রকৃত স্বর্ণের থেকে সামুদ্রিক এই স্বর্ণের দাম অনেক বেশি।

 

পূর্বকোণ/এএস

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট