চট্টগ্রাম রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১০:০৪ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বিক্ষোভ দমনে আরও কঠোরতার হুঁশিয়ারি ইরানি প্রেসিডেন্টের

পুলিশি হেফাজতে এক তরুণীর মৃত্যুর ঘটনায় চলমান বিক্ষোভ দমনে আরও কঠোর হওয়ার বার্তা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। তিনি বলেন, দেশের শান্তি ও নিরাপত্তাকে যারা আমলে নিচ্ছেন না, তাদের পরিকল্পিতভাবে মোকাবিলা করা হবে।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) চলমান বিক্ষোভে নিহত হওয়া নিরাপত্তা বাহিনীর এক সদস্যের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে ফোন করেন তিনি। এ সময় এই হুঁশিয়ারি দেন প্রেসিডেন্ট।

 

ইরানে জনপরিসরে নারীদের বাধ্যতামূলক হিজাব পরাসহ কঠোর পর্দাবিধি রয়েছে। এ বিধিগুলো কার্যকর হচ্ছে কি না, তা তদারক করে দেশটির ‘নীতি পুলিশ’। এ বিধির আওতায় নীতি পুলিশের একটি দল ১৩ সেপ্টেম্বর মাহশা আমিনি নামে এক তরুণীকে তেহরান থেকে আটক করে। আটকের পর আমিনি থানায় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে তেহরানের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর তিন দিন পর ১৬ সেপ্টেম্বর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুর পর ইরানজুড়ে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়। শুক্রবার পর্যন্ত ইরানের ৮০টি শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে ২০১৯ সালে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ব্যাপক বিক্ষোভ হয়েছিল ইরানে। রয়টার্সের তথ্যমতে, এরপর এত বড় বিক্ষোভ আর হয়নি দেশটিতে। চলমান বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত ৩৫ জন নিহত হয়েছেন।

 

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়, বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর পাঁচ সদস্যসহ নিহত হয়েছেন ৩৫ জন। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এ বিক্ষোভকে দাঙ্গা হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। দেশটির গুইলান প্রদেশের পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, শুধু এ অঞ্চলে বিক্ষোভ থেকে ৭৩৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে আছেন ৬০ জন নারী।

সাংবাদিকদের অধিকার রক্ষায় সোচ্চার বৈশ্বিক সংগঠন কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে) জানায়, দেশটিতে ১১ সাংবাদিক ও অধিকারকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে নিলুফার হামেদিও রয়েছেন। এই নারী সাংবাদিক মাহশা আমিনির হত্যার খবর প্রকাশ করেছিলেন।

 

পূর্বকোণ/এএস/পারভেজ

শেয়ার করুন