চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

সর্বশেষ:

১৬ আগস্ট, ২০২২ | ৭:০০ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

শ্রীলঙ্কার বন্দরে চীনের গোয়েন্দা জাহাজ, ভারতের প্রতিবাদ

শ্রীলঙ্কার হাম্বানটোটা বন্দরে নোঙ্গর করেছে চীনের একটি গবেষণা জাহাজ ইউয়ান ওয়াং ৫। বন্দরটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কার সমুদ্রসীমায় কোনও গবেষণা চালানো যাবে না এমন শর্তে জাহাজটিকে নোঙ্গরের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ভারত আগে থেকেই উদ্বেগ জানিয়ে বলে আসছে, তাদের কার্যক্রমের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি চালাতে ব্যবহার করা হবে জাহাজটি।

শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে জাহাজটিকে আগামী ২২ আগস্ট পর্যন্ত চীনের পরিচালিত বন্দরে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বৈদেশিক নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের উদ্ধৃতি দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলেছে, চীনের অত্যাধুনিক প্রজন্মের জাহাজগুলোর একটি ইউয়ান ওয়াং ৫। এটি স্যাটেলাইট, রকেট পর্যবেক্ষণ এবং আন্তমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণে ব্যবহার করা হয়।

 

ভারতের কয়েকটি সংবাদমাধ্যম জাহাজটিকে ‘দ্বৈত-ব্যবহারের গুপ্তচর জাহাজ’ বলে বর্ণনা করেছে। তবে সমুদ্র পরিবহন বিশ্লেষণকারী একটি ওয়েবসাইট জানিয়েছে, এটি একটি গবেষণা ও জরিপ জাহাজ।

ভারতীয় সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, দিল্লির সরকার ‘শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার সময় জাহাজের ট্র্যাকিং সিস্টেমগুলো ভারতীয় স্থাপনাগুলোর তথ্য সংগ্রহ করতে পারে’ বলে উদ্বেগ প্রকাশ করে। জুলাইয়ের শুরুতে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানান, জাহাজটির পরিকল্পিত সফর পর্যবেক্ষণ করছে দিল্লি। ওই মুখপাত্র জানান, দিল্লি তার নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক স্বার্থ রক্ষা করবে।

 

রয়টার্সের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, জাহাজটির সফর নিয়ে শ্রীলঙ্কার সরকারের কাছে মৌখিক প্রতিবাদ দাখিল করেছে ভারত। এই মাসের শুরুতে শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাহাজটিকে বন্দরে যেতে দেওয়া থেকে বিরত থাকতে চীনের প্রতি অনুরোধ জানান। তিনি জানান, এনিয়ে আরও আলোচনার প্রয়োজন রয়েছে।

জবাবে চীন জানায়, “কোনও নির্দিষ্ট দেশের জন্য শ্রীলঙ্কাকে চাপ দেওয়ার জন্য কথিত ‘নিরাপত্তা উদ্বেগ’ উদ্ধৃত করা সম্পূর্ণরূপে অযৌক্তিক”। তবে তারা কোনও নির্দিষ্ট কোনও দেশের নাম উল্লেখ করেনি। পরে শ্রীলঙ্কা এক ঘোষণায় জানায় তারা জাহাজটিকে নোঙ্গরের অনুমতি দেবে।

 

অর্থনৈতিক সংকটে জর্জরিত শ্রীলঙ্কায় বেইজিংয়ের প্রভাব বাড়তে থাকার মধ্যে উদ্বেগ প্রকাশ করে ভারত। বেল্ট অ্যান্ড রোড উদ্যোগের আওতায় শ্রীলঙ্কাকে শত শত কোটি ডলার ঋণ দিয়েছে বেইজিং। তবে এর সব অর্থায়ন শ্রীলঙ্কার পক্ষে যায়নি।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ২০১৭ সালে চীনা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান পোর্ট হোল্ডিংস ৯৯ বছরের চুক্তিতে হাম্বানটোটা বন্দরের বেশিরভাগ শেয়ার কিনে নেয়। বন্দরটি পুনর্গঠনে নেওয়া ঋণ পরিশোধে কলম্বো হিমশিম খেতে থাকার মধ্যে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এই বন্দরেই নোঙ্গর করেছে ইউয়ান ওয়াং ৫। সূত্র- বিবিসি

 

পূর্বকোণ/এএস

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট