চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১১:১২ পূর্বাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক 

মিয়ানমারে অভ্যূত্থান: বিশ্বজুড়ে প্রতিবাদের ঝড়

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থান ও অং সান সু চিসহ শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তারে বিশ্বজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

যুক্তরাষ্ট্র : মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর প্রতি সুচিসহ আটক নেতাদের ছেড়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র । না হলে ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দিয়েছে ওয়াশিংটন। হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি এ বিষয়ে এক বিবৃতিতে বলেছেন, মিয়ানমারের সাম্প্রতিক নির্বাচনের ফলাফল পাল্টে দেয়া কিংবা দেশটির গণতান্ত্রিক উত্তরণ বাধাগ্রস্ত করার যে কোনো চেষ্টার বিরোধিতা করে যুক্তরাষ্ট্র। আটককৃতদের ছেড়ে না দিলে মিয়ানমারের দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে ওয়াশিংটন।

জাতিসংঘ : জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি ও অন্যান্য রাজনৈতিক নেতাদের আটকের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। মিয়ানমারের জনগণের ইচ্ছার প্রতি শ্রদ্ধা দেখাতে তিনি সামরিক নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন,’ জাতিসংঘের মুখপাত্র এমনটি বলেছেন বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। ‘এইসব ঘটনা গণতান্ত্রিক সংস্কারের প্রতি মারাত্মক আঘাত,’ বলেন মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক।
তিনি আরো বলেন, সব নেতাদের মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক সংস্কারের বৃহত্তম স্বার্থে কাজ করতে হবে, অর্থপূর্ণ সংলাপে অংশ নিতে হবে, সহিংসতা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতাকে পুরোপুরি সম্মান করতে হবে।

চীন : মিয়ানমারের সামরিক অভ্যুত্থান ‘লক্ষ্য’ করার কথা জানিয়ে দেশটিতে স্থিতিশীলতা বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছে চীন।
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সোমবার বেইজিংয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দৈনিক সংবাদ ব্রিফিংয়ে মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন এ আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেছেন, মিয়ানমারে যা ঘটেছে তা লক্ষ্য করেছি আমরা আর পরিস্থিতি আরও বোঝার প্রক্রিয়াতে রয়েছি। চীন মিয়ানমারের এক বন্ধুসুলভ প্রতিবেশী। আমরা আশা করছি, মিয়ানমারের সব পক্ষ সংবিধান ও আইনি কাঠামোর অধীনে যথাযথভাবে তাদের পার্থক্যগুলো সামাল দিতে পারবে এবং রাজনৈতিক ও সামাজিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখবে।

ভারত : ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, মিয়ানমারের পরিস্থিতি নিয়ে ভারত ‘গভীরভাবে উদ্বিগ্ন’ এবং সেখানকার পরিস্থিতি ‘নিবিড়ভাবে’ পর্যবেক্ষণ করছে তারা। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, মিয়ানমারের গণতন্ত্রে উত্তরণের বিষয়ে সব সময় সমর্থন জানিয়ে আসছে ভারত। আমরা বিশ্বাস করি, আইন এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অবশ্যই সমুন্নত রাখতে হবে। আমরা পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি।

পাকিস্তান : মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান প্রসঙ্গে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা আশবাদী যে, দুই পক্ষ গঠনমূলক আলোচনা করবে। এক বিবৃতিতে পাকিস্তান বলে, ‘আমরা আশা করি, সংশ্লিষ্ট সব পক্ষই নিজেদের সংবরণ করবে, আইনের শাসনকে সমুন্নত রাখবে, গঠনমূলকভাবে আলোচনা করবে, এবং শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতির দিকে এগিয়ে যাবে।’

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 142 People

সম্পর্কিত পোস্ট