চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

২ জুন, ২০১৯ | ২:৪৭ পূর্বাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

ভারতের জিএসপি সুবিধা বাতিল করল যুক্তরাষ্ট্র

উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে ভারতকে দেয়া বিশেষ বাণিজ্য সুবিধা জেনারালাইজড সিস্টেম অব প্রেফারেন্সেস (জিএসপি) বাতিল করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শুক্রবার ভারতের জিএসপি সুবিধা বাতিলের ঘোষণা দেন। এই ঘোষণা কার্যকর হবে বুধবার থেকে (৫ জুন)। জিএসপি বাতিলের বিষয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ভারতের বাজারে যুক্তরাষ্ট্রের পণ্যের ‘গ্রহনযোগ্য‘ প্রবেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেনি দেশটি। যে কারণে, ভারতকে দেয়া বিশেষ বাণিজ্য সুবিধা প্রত্যাহার করে নেয়া হল বলে জানান তিনি। ট্রাম্পের এ পদক্ষেপকে ‘দুঃখজনক‘ উল্লেখ করে ভারত সরকার জানিয়েছে, তারা ওয়াশিংটনের সাথে একটি দৃঢ় বাণিজ্য সম্পর্ক বজায় রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাবে। ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের পর এক বিবৃতিতে নয়াদিল্লি জানায়, ‘আমরা

নিশ্চিত যে, উভয় দেশের স্বার্থ বজায় রেখে একটি দৃঢ় সম্পর্ক ধরে রাখতে দু’দেশ নিবিড়ভাবে কাজ করে যাবে।’ কি সুবিধা পেত ভারত? উন্নয়নশীল দেশগুলোকে বাণিজ্য সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে ১৯৭৬ সালে জিএসপি প্রকল্প চালু করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এ প্রকল্পের আওতায়, উন্নয়নশীল দেশগুলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে শুল্কমুক্ত সুবিধায় সুনির্দিষ্ট কিছু পণ্য রপ্তানি করতে পারে। জিএসপির সুবিধার আওতায় ভারত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে প্রায় ছয় বিলিয়ন ডলার মূল্যের বিভিন্ন পণ্য শুল্কমুক্ত সুবিধায় রপ্তানি করত। ভারতীয় এক কর্মকর্তার উদ্ধৃতি দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, জিএসপি সুবিধার আওতায় যুক্তরাষ্ট্রে পণ্যরপ্তানি বাবদ দেশটি প্রতি বছর প্রায় দুই’শ ৫০ মিলিয়ন ডলার মুনাফা করত।
ভারতের ‘রক্ষণশীল বাণিজ্য নীতি’
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে স্থানীয় ব্যবসা ও শিল্পকে প্রণোদনা প্রদানের অংশ হিসেবে নানামুখী পদক্ষেপ নেয় ভারত সরকার। এ সময় দেশটিতে ই-কমার্স খাতের বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য আলাদা নিয়ম চালু করে ভারত সরকার। ফলে আমাজন ও ফ্লিপকার্টের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবসায়িক চাপের মুখে পড়ে। গত বছর, ভারত সরকার ভিসাকার্ড এবং মাস্টারকার্ড প্রদানকারী ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভারতীয় কার্ড ব্যহারকারিদের তথ্য শুধুমাত্র ভারতের অনলাইন সার্ভারে জমা রাখার আদেশ দেয়। আদেশের পর এ খাতের সংশ্লিষ্ট অ্যামেরিকার প্রতিষ্ঠানগুলো তীব্র প্রতিবাদ জানায়।
এর আগে, বিদেশি ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী ও স্মার্টফোন আমদানির উপর আরোপিত শুল্ক বাড়িয়ে দেয় ভারত সরকার। ভারত সরকারের এ পদক্ষেপের সমালোচনা করে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য কর্মকর্তারা অভিযোগ করেন, ভারত সরকারের এ ধরনের পদক্ষেপ যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যখাতে প্রভাব ফেলছে।
তার আগে ভারত থেকে আমদানিকৃত স্টিল ও অ্যালুমিনিয়ামের উপর যথাক্রমে শতকরা ২৫ ভাগ এবং ১০ ভাগ শুল্ক আরোপ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। চলমান এ অস্থিরতায়, গত মার্চ মাস থেকেই ভারতের জিএসপি সুবিধা বাতিলের পরিকল্পনা করছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।
গত ৪ মার্চ কংগ্রেসকে দেয়া এক চিঠিতে হোয়াট হাউস জানায়, ভারত ও তুরস্কের জিএসপি সুবিধা বাতিলের পরিকল্পনা করছে তারা। ধারণা করা হচ্ছে, জিএসপি সুবিধা বাতিলের চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য ভারতের জাতীয় নির্বাচন শেষ হওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন ট্রাম্প। নির্বাচন শেষ হওয়ার পরপরই জিএসপি সুবিধা বাতিলের এ ঘোষণা দেয়া হলো।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 254 People

মন্তব্য দিন :

সম্পর্কিত পোস্ট