চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

সর্বশেষ:

২৮ নভেম্বর, ২০২২ | ১০:০৯ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

ফুসফুস সুস্থ রাখতে যা করবেন

যেকোনো ধরনের সংক্রমণ থেকে বাঁচার অন্যতম উপায় হলো প্রতিরোধ। প্রতিটি মানুষ সুস্থ থাকতে চায় কিন্তু ফুসফুসের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বা নিয়ন্ত্রণের কথা কেউই ভাবে না। ফুসফুস সুস্থ রাখার জন্য সংক্রমণ প্রতিরোধে নেয়া যেতে পারে কিছু পদক্ষেপ।

 

জেনে নিন হেলথলাইনের বাতলানো ফুসফুসকে সুস্থ রাখার পাঁচটি উপায়:

ধূমপান পরিত্যাগ: ফুসফুস সুস্থ রাখার জন্য অবশ্যই ধূমপান ত্যাগ করতে হবে। ধূমপানের কারণে ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। তাছাড়া ফুসফুসের আরো বেশকিছু সমস্যার কারণ হিসেবেও দেখা দিতে পারে ধূমপান। কখনো কখনো এর ফলে সেসবের তীব্রতাও বাড়তে পারে। শুধু ধূমপায়ীরই নয়, বরং অন্যের ধূমপানের কারণেও অধূমপায়ীরাও ফুসফুসের ক্ষতি হয়। তাই এ বিষয়ে সতর্ক থাকা খুব জরুরি।

 

ব্যায়াম: ধূমপান ছাড়ার পাশাপাশি নিয়মিত ব্যায়ামের মাধ্যমেও আপনি আপনার ফুসফুসের স্বাস্থ্য ভালো করতে পারেন। শুধু শরীরের আকার নয়, ফুসফুসের আকার ঠিক রাখতেও ব্যায়াম সাহায্য করে। পাবমেডে প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক নিবন্ধে বলা হয়েছে, ব্যায়ামের সময়ে শ্বাস গ্রহণ প্রতি মিনিটে ১৫টি থেকে বেড়ে ৪০-৬০টিতে গিয়ে দাঁড়ায়। সেজন্য নিয়মিত যোগব্যায়াম অত্যন্ত জরুরি। এমনকি ফুসফুসে কোনো ধরনের রোগ বাসা বাঁধলেও তার প্রভাব কিছুটা ধীর হয়ে যায়।

 

দূষণ এড়িয়ে চলুন: প্রতিনিয়ত দূষণের মধ্যে থাকলে ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তরুণ বয়সে ফুসফুস সহজে নানান দূষণ থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারে, বয়স বেড়ে গেলে যেটা কঠিন হয়ে যায়। ফলে তখন সংক্রমণ ও রোগের প্রবণতা বেড়ে যায়। তাই যে সময় বাইরে বেশি দূষণ থাকে, সেই সময়ে বাইরে না যাওয়ার চেষ্টা করুন। বেশি বেশি যানজট থাকা এলাকা এড়িয়ে চলুন। সেখানেও আপনাকে দূষণে শ্বাস নিতে হয়। দূষিত পরিবেশ যেমন নির্মাণ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বা মাইনিংয়ের কাজ করতে হলে যথাযথ সুরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে নিন। বাসার পরিবেশ দূষণমুক্ত রাখার চেষ্টা করুন। ঘরে বাতাস চলাচলের জন্য ঘন ঘন দরজা-জানালা খুলে রাখুন।

 

সংক্রমণ প্রতিরোধ: সংক্রমণ সবসময় ক্ষতিকর। বিশেষ করে যখন বয়স বেড়ে যায়। যাদের আগে থেকেই ফুসফুসে কোনো রোগ থাকে তাদের সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেশি। এমনকি সতর্ক না হলে সুস্থ প্রাপ্তবয়স্করাও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হতে পারেন। তাই ঘন ঘন সাবান ও গরম পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। মুখে যতটা সম্ভব কম হাত দিন। প্রচুর পানি ও শাকসবজি খান। বিভিন্ন রোগ থেকে বাঁচতে নিয়মিত টিকা নিন।

 

গভীর শ্বাস নিন: আমরা বেশির ভাগ মানুষই হালকা শ্বাস নিই। এতে শুধু বুক ওঠানামা করে। বুক ভরে শ্বাস নেয়ার চেষ্টা করুন। যেন পেটও ওঠানামা করে। বারবার ভালোভাবে শ্বাস নিলে ফসফুস পরিষ্কার হয়ে যায়, এতে অক্সিজেনও পায় শরীর। ইন্ডিয়ান জার্নাল অব ফিজিওলজি এন্ড ফার্মাকোলজিতে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়েছে, ২-৫ মিনিট বা ১০ মিনিট এভাবে শ্বাস নিলেই বেশ উপকার পাওয়া যেতে পারে।

 

পূর্বকোণ/সাফা/পারভেজ

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত পোস্ট